৫ জানুয়ারির ভোট ছাড়া উপায় ছিল না : সিইসি

বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭

৫ জানুয়ারির ভোট ছাড়া উপায় ছিল না : সিইসি

Jatioবাংলাদেশ ডেস্কঃ বিদায় নিলেন কাজী রকিবউদ্দীন কমিশন। শেষ কার্যদিবসে সংবাদ সম্মেলনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) দাবি করলেন, তাঁর মেয়াদে কোনো ব্যর্থতা নেই। বরং তাঁর দাবি, সব ধরনের চ্যালেঞ্জ তারা সফলভাবে মোকাবিলা করতে পেরেছেন। অসাংবিধানিক পরিস্থিতি এড়াতে পাঁচ জানুয়ারির সংসদ নির্বাচন করা ছাড়া আর কোনো উপায় ছিল না বলেও মন্তব্য করেন বিদায়ী সিইসি।

আজ বুধবার শেষ কার্যদিবসে নতুন ভবনের মিডিয়া কক্ষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ।


শেষবারের মতো পাওয়া সিইসি কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের কাছে তাই সাংবাদিকদের অনেক প্রশ্ন জমে ছিল। লিখিত বক্তব্যের পর তাঁর কাছে একটি প্রশ্ন ছিল ‘পাঁচ বছরে কমিশনের ব্যর্থতা কী’- এর উত্তরে এক কথায় কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ শুধু ‘না’ শব্দটি উচ্চারণ করেন।

কখনোই কোনো চাপ ছিল না উল্লেখ করে সিইসি বলেন, ‘অনেক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছি এবং তা সফলভাবে অতিক্রম করতেও সক্ষম হয়েছি।

এই কমিশনের মেয়াদকালে বিভিন্ন নির্বাচনে ব্যাপক অনিয়ম ও সহিংসতার কথা সাংবাদিকরা বার বার তুলে ধরলেও রকিবউদ্দীন ঘুরে ফিরে সেই জবাব পাশ কাটিয়ে গিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘আমি কোনো ফোনকল পাইনি। কোনো চাপ পাইনি। আমরা যা করেছি, অত্যন্ত নিরপেক্ষভাবে করেছি। যা করেছি, তা ব্যক্তিগত স্বার্থের জন্য নয়, দেশের জন্য, আপনাদের জন্য।

৫ জানুয়ারির সংসদ নির্বাচন নিয়ে এ সময় সিইসি নিজের ব্যাখ্যা তুলে ধরে বলেন, ‘২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচন করা ছাড়া আর কোনো গণতান্ত্রিক পথ আমাদের জন্য খোলা ছিল না। ওই সময় নির্বাচন না হলে দেশে যে কী অসাংবিধানিক অরাজক সংকট সৃষ্টি হতো- তা অপনারা কল্পনা করতে পারবেন।

এ সময় সিইসি আরো বলেন, ‘বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচন তো আইনেরই রয়েছে। এখানে নির্বাচন কমিশনের করার কিছু নাই। ইটস এ পলিটিক্যাল গেইম। পলিটিক্সে আপনি যদি নির্বাচনে না নামেন, তাহলে অন্য লোক তো ফাঁকা মাঠে গোল করে চলেই যাবে।

সাত হাজার ৪০৭টিরও বেশি নির্বাচন তার মেয়াদকালে হয়েছে জানিয়ে বিদায়ী সিইসি বলেন, নিজের মূল্যায়ন নিজে তিনি করতে চান না। তিনি বলেন, এখন কালচারটাই এমন হয়ে গেছে আমাদের সোসাইটিতে যে, কথায় কথায় লোকে ছুরি মারছে। মেরে ফেলছে। আগে এটা ছিল না। চড়-থাপ্পড় মারছে। এখন তো গোলাগুলি হচ্ছে এবং সহিংসতা অনেক বেড়ে গেছে। এটা একটা সামাজিক অবক্ষয়।

বিদায়ী সিইসি বলেন, নতুন কমিশনের প্রতি তাঁর কোনো পরামর্শ নেই। আছে শুধু শুভকামনা।

এই সংবাদ সম্মেলনে অন্য সব কমিশনার উপস্থিত থাকলেও ছিলেন না কমিশনার আব্দুল মোবারক।

শনিবারের চিঠি/ আটলান্টা / ফেব্রুয়ারি ০৯, ২০১৭

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ১০:০৫ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৭

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com