সাতক্ষীরা সীমান্তে শাহেদকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব

বুধবার, ১৫ জুলাই ২০২০

সাতক্ষীরা সীমান্তে শাহেদকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব
র‍্যাব হেফাজতে শাহেদ বাঁ থেকে তৃতীয়

করোনা পরীক্ষা না করেই জাল সার্টিফিকেট দেওয়াসহ নানা অভিযোগে রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান শাহেদকে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। র‍্যাবের মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক আশিক বিল্লাহ এ তথ্য জানান।

অস্ত্রসহ শাহেদকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব

বুধবার ভোর ৫টা ২০ মিনিটে সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার কোমরপুর গ্রামের লবঙ্গবতী নদীর তীর সীমান্ত এলাকা থেকে অবৈধ অস্ত্রসহ রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।


কোমরপুর সীমান্ত দিয়ে নৌকায় করে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তিনি। এ সময় তিনি জিন্সের প্যান্ট ও নীল রঙের শার্টের ওপর কালো রঙের বোরকা পরে ছিলেন। সাহেদ গ্রেফতার এড়াতে গোফ কেটে ফেলেছিলেন, সাদা চুল কালো করেছিলেন। গ্রেফতারের পর সেখান থেকে হেলিকপ্টারে করে সাহেদকে ঢাকায় আনা হয়। এরপর উত্তরায় তাকে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করা হয়।ঢাকায় আনার পর সংবাদ সম্মেলন করা হবে।

এর আগে শাহেদের প্রতারণা কাজের অন্যতম সহযোগী রিজেন্ট গ্রুপের এমডি মাসুদ পারভেজকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে গাজীপুরের কাপাসিয়া এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

প্রসঙ্গত, ৭ জুলাই অভিযান চালিয়ে রিজেন্ট হাসপাতালের উত্তরা ও মিরপুরের শাখা দুটি সিলগালা করে দেয় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

অভিযানের পর র‍্যাবের ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম সাংবাদিকদের বলেন, রিজেন্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে তিন ধরনের অভিযোগ ও অপরাধের প্রমাণ তারা পেয়েছেন।

এরপর প্রতারণার অভিযোগে রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. শাহেদকে প্রধান আসামি করে ১৭ জনের নামে উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলা করে র‍্যাব। এরই মধ্যে হাসপাতালটির ব্যবস্থাপকসহ ৮ জনকে আটক করা হয়। তবে অভিযানের পর থেকেই পলাতক ছিলেন শাহেদ।

রিজেন্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ, হাসপাতালটি করোনার নমুনা পরীক্ষা না করে ভুয়া রিপোর্ট তৈরি করত। হাসপাতালটির সঙ্গে সরকারের চুক্তি ছিল ভর্তি রোগীদের বিনামূল্যে চিকিৎসা করাবে। কিন্তু এ চুক্তি ভঙ্গ করে রোগীপ্রতি লক্ষাধিক টাকা বিল আদায় করে তারা। রোগীদের বিনামূল্যে চিকিৎসা দেওয়ার কথা বলে সরকারের কাছে ১ কোটি ৯৬ লাখ টাকার বেশি বিল জমা দেয়।

এছাড়া সরকারের সঙ্গে বিনামূল্যে করোনা পরীক্ষার চুক্তি থাকলেও তারা তারা আইইডিসিআর, আইটিএইচ ও নিপসম থেকে ৪ হাজার ২০০ রোগীর বিনামূল্যে নমুনা পরীক্ষা করিয়ে এনেছে। পাশাপাশি নমুনা পরীক্ষা না করেই আরও তিন গুণ লোকের ভুয়া করোনা রিপোর্ট তৈরি করে।

শনিবারের চিঠি / আটলান্টা / জুলাই ১৫, ২০২০

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৭:২৫ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, ১৫ জুলাই ২০২০

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com