শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের হাতে সাংবাদিক লাঞ্ছিত

বুধবার, ২২ জুন ২০১৬

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের হাতে সাংবাদিক লাঞ্ছিত

ঢাকা : শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (শেকৃবি) শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে কয়েকজন চাঁদাবাজের চাঁদাবাজির খবর প্রকাশ করায় ‘দৈনিক যুগান্তর’র বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিকে লাঞ্ছিত করেছে শেকৃবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক দেবাশীষ দাস ও তার অনুসারীরা।

সোমবার (২০ জুন) দুপুর দেড়টায় শেকৃবির দ্বিতীয় গেটে এ ঘটনা ঘটে। এতে আহত সাংবাদিক মাহসাব রনিকে তৎক্ষণাত হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করা হয়।


পরবর্তীতে হামলাকারীদের প্রাণনাশের হুমকির প্রেক্ষিতে জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে শেরেবাংলা নগর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি দায়ের করা হয়।

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীদের বৃত্তির টাকা উত্তলনের জন্য স্বাক্ষর জালিয়াতি করায় শেকৃবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক দেবাশীষ দাসের অনুসারীরা। আর এ ঘটনার খবর দৈনিক যুগান্তর, দৈনিক সমকাল ও বাংলানিউজসহ বেশ কয়েকটি গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়।

এরই রেষ ধরে সোমবার দুপুর ১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ সম্পাদক দেবাশীষ দাস মাহসাব হোসাইন রনিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় গেটে ডেকে পাঠায়। সেখানে দেবাশীষ দাসসহ তার অনুসারীরা মাথায় ও কানে কয়েক দফায় বেধড়ক মারধর করে।

এ ঘটনার খবর পেয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত অন্যান্য দৈনিকের প্রতিনিধিরা ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে প্রাথমিক দেন। এ ঘটনায় শেরেবাংলা নগর থানায় লাঞ্ছিত সাংবাদিক একটি সাধারণ ডায়েরি (নং: ১৩৩৯) দায়ের করে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস.এম জাকির হোসাইন বাংলামেইলকে বলেন, ‘আমরা ঘটনাটি সম্পর্কে জানতে পেরেছি। অবশ্যই আমরা অভিযুক্ত নেতার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেব।’

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর ড. মিজানুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, ‘ব্যাপারটি আমরা শুনেছি। লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা নেব।’

মারধরের  অভিযোগের বিষয়ে জানতে শেকৃবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক দেবাশীষ দাসের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বাংলামেইলকে বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কেউ চাঁদাবাজির সঙ্গে জড়িতও না, আবার কাউকে মারধরের ঘটনাও ঘটেনি।’ রনি আমার খুব কাছের ছোটভাই বলেও মন্তব্য করেন এই ছাত্রলীগ নেতা।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সভাপতি প্রিন্স বিশ্বাস বাংলামেইলকে বলেন, ‘ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে সাধারণ শিক্ষার্থীদের স্বাক্ষর জালিয়াতি করে প্রশাসন থেকে প্রায় ৫ লাখ টাকা তুলে নেয়ার সংবাদ প্রকাশ করায় রনিকে মারধরের শিকার হতে হয়েছে।’ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকেও ঘটনাটি জানানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

ঘটনা বর্ণনায় তিনি বলেন, ‘সোমবার দুপুর ১২টার দিকে রনিকে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক দেবাশীষ দাস বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই নম্বর গেইট এলাকায় ডাকেন। এরপর রনি সেখানে গেলে দেবাশীষ তাকে মারধর করেন। রনি হলে ফিরে যেতে চাইলে তাকে দেবাশীষের কর্মীরা আরেক দফা মারধর করে।’

এদিকে শেরে বাংলানগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোপাল গনেশ বিশ্বাস বাংলামেইলকে বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

শনিবারের চিঠি/ আটলান্টা / জুন ২২,২০১৬

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ১০:১৫ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, ২২ জুন ২০১৬

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com