লতিফ সিদ্দিকীর এমপি পদ নিয়ে লুকোচুরি

সোমবার, ০৬ জুলাই ২০১৫

লতিফ সিদ্দিকীর এমপি পদ নিয়ে লুকোচুরি

 

টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতি) থেকে নির্বাচিত আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য লতিফ সিদ্দিকীর জাতীয় সংসদের সদস্য পদ নিয়ে লুকোচুরি হচ্ছে। মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.), পবিত্র হজ ও তাবলিগ জামাত নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করায় ৯ মাস আগে তাকে দল থেকে বহিষ্কার করে আওয়ামী লীগ। এমনকি দলের প্রাথমিক সদস্য পদ থেকেও তাকে চূড়ান্তভাবে বরখাস্ত করা হয়। কিন্তু আওয়ামী লীগ বহিষ্কারের বিষয়টি এখনো লিখিতভাবে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীকে অবহিত করেনি। স্পিকারও সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, লতিফ সিদ্দিকীর বহিষ্কারের বিষয়টি তিনি অবগত নন। ফলে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কারের পরও তার সংসদের আসন বহাল রয়েছে।


এ বিষয়ে বিশিষ্ট পার্লামেন্টারিয়ান সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত গত শনিবার দাবি করেছেন, লতিফ সিদ্দিকী স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য হিসাবে জনপ্রতিনিধিত্ব করতে পারেন। তিনি বলেছেন, ‘সংসদ সদস্য পদ যায় দুই কারণে। একটি হল দলের বিরুদ্ধে সংসদে ভোট দিলে। আরেকটি ওই সংসদ সদস্য দল থেকে পদত্যাগ করলে। কিন্তু লতিফ সিদ্দিকী কোনোটিই করেননি। তাই বুঝতে হবে, তার সদস্য পদ আছে।’

সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদ লংঘন না করেও কেবল দল থেকে বহিষ্কৃত হলে জাতীয় সংসদের সদস্য পদ থাকে না-এমন নজির আমাদের রয়েছে। সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ এবং নির্বাচন কমিশনের এ সংক্রান্ত সর্বশেষ দু’টি রায় ও নির্দেশনা অনুযায়ী দল থেকে বহিষ্কৃত হলেই সংসদ সদস্য পদ চলে যায়। কিন্তু সুরঞ্জিত সেনের এই মন্তব্যের পর লতিফ সিদ্দিকীর সদস্য পদ নিয়ে নতুন বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে। বহিষ্কৃত হওয়ার পরেও স্পিকারকে অবহিত না করার বিষয়টি তথ্য গোপনের অপরাধে দুষ্ট।

শনিবারের চিঠি / আটলান্টা / ৬ জুলাই ২০১৫

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ১০:২৪ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ০৬ জুলাই ২০১৫

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com