লক্ষ্মীপুরে দ্বীপ চর শামসুদ্দিনের অমানবিক জীবন

শনিবার, ২১ আগস্ট ২০২১

লক্ষ্মীপুরে দ্বীপ চর শামসুদ্দিনের অমানবিক জীবন
চর শামসুদ্দিন [ ছবিঃ সংগৃহীত ]

চারিদিকে বহমান মেঘনা এরই মাঝে বসবাস শতাধিক মানুষের। যেখানে সামান্যঝড় তুফানেও নেই সুরক্ষা বলয়।  .যেখানে জলচ্ছাস, ঘূর্ণিঝড়,বন্যা, প্লাবনে একমাত্র ভরসা আল্লাহ্।বলছিলাম লক্ষ্মীপুরের দ্বীপ চর শামসুদ্দনিরে কথা।স্থানীয়রা  এটিকে মতিরহাটের  চর বলে জানেন।জেলা সদরও কমলনগরের ২৫টি পরিবারের বসবাসএখানে।বসবাসের অনুপোযোগী হলেও লোক সংখ্যা বাড়ছে এই দ্বীপে। এর কারন  হিসাবে নদী ভাঙ্গন ও দারিদ্রতাকে দায়ী করেছেন অনেকে।নদীর ভাঙ্গনের স্বীকার হয়ে অনেকে ঘর বাড়ি হারিযে  এই দ্বীপে শেষ ঠাইঁ গড়ে তুলছে ।জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে এদ্বিপে ঢুকে  পড়েছে লবনাক্ত পানিআর  এই পানিই একমাত্র ভরসা দ্বীপের মানুষের।গ্রীষ্মকালে পানির আকাল দেখা যায় ্এই দ্বীপে।নদীর ওপার থেকে পানি  না  আনলে পানি যেনো সোনার হরিণ।অনেক সময তারা লবন পানির  কারনে  জীবানু যুক্ত পানিও পান করে।এ কারনে এই দ্বীপে ডায়রিয়া ,আমাশয় আক্রান্ত রোগীর সং খ্যা বেশি।কিন্তু দ্বীপের মানুষের সুস্বাস্থ্যর কথা চিন্তা করে একটি সামাজিক সংগঠণ দুটি টিউবওয়েল বসিয়েছ । এই দ্বীপে একটি মসজিদও  নেই  । শুক্রবার   জুম্মার নামাজের দিন দ্বীপের ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা নামাজ  পড়তে যায় নদির ওপারে মতির হাটের গ্রামে। দ্বীপে দেড়শতাধিক শিশু থাকলেও নেই কোন  শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ।অন্ধকার জীবনে রয়ে যাচ্ছে দ্বীপের শিশুরা।এই দ্বীপে  স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা নেই বললেই চলে।বর্ষা বা জলচ্ছাসে বসবাসের

অনুপোযোগি হয়ে উঠে এই দ্বীপ যার কারনে তারা উঁচু বা মাচার মতো করে ঘর নির্মান করেন।টিউবওয়েল পর্যাপ্ত বিশুদ্ধ  পানি নাথাকায় এলাকার মানুষের ঘণ ঘণ ডায়রয়িা হয়।এই দ্বীপের জীবন বৈচিত্রময়।নানা প্রতিকুলতার মাঝেও এই


দ্বীপেও রয়েছে প্রচুর সম্ভবনা। এখানে  ‌রয়েছে উর্বর ভূমি। যা চাষাবাদের জন্য উপযোগী।প্রতিবছর প্রচুর ফসল উৎপাদন  হয় এই দ্বীপে তাদের মধ্যে ধান, সোয়াবিন ব্যাপক ভাবে উৎপাদিত হয়।দ্বীপটি মহিষ পালনের চরণভূমি হিসাবে সম্ভবনাময়। দ্বীপ শামসুদ্দিনে শত শত মহিষ দেখতে পাওয়া যায়।এই দ্বীপে উৎপাদিত হয় দারুন স্বাদের দই্।যা স্থানীয় গ্রাম, গঞ্জ, শহর ও উচু তলার ঢাকার মানুষের কাছেও খুব প্রিয়।দ্বীপটি লক্ষ্মীপুর জেলার কাছে হওয়াতে অনেকেই বেড়াতে আসেন এই দ্বীপে। প্রচুর সম্ভবনাময় দ্বীপটিতে আশ্রায়ন প্রকল্পসহ ,বিদ্যালয় ,সুপেয় পানির,স্বাস্থ্য সম্মত  মলমূত্র  ত্যাগের জন্য আধুনিক শৌচাগার নির্মান করা প্রয়োজন বলে অনেকে মনে করেন। পযর্টন কেন্দ্র হিসাবেও চর শামসুদ্দীনের রয়েছে প্রচুর সম্ভবনা।

 

লক্ষ্মীপুর ।।

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৮:৫৩ অপরাহ্ণ | শনিবার, ২১ আগস্ট ২০২১

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com