রাস্তায় শিঘ্রই দৌড়াবে মেড ইন বাংলাদেশ গাড়ি

মঙ্গলবার, ২৪ মার্চ ২০১৫

রাস্তায় শিঘ্রই দৌড়াবে মেড ইন বাংলাদেশ গাড়ি

 

made-in-bangladeshশনিবার রিপোর্টঃ বছরে ১২শ’ গাড়ি উৎপাদন ক্ষমতা নিয়ে বেসরকারি উদ্যোগে দেশে প্রথম গাড়ি সংযোজন কারখানা স্থাপন করছে দেশের অন্যতম বৃহৎ শিল্পপ্রতিষ্ঠান পিএইচপি পরিবার। চলতি বছরে বিজয় দিবসের প্রাক্কালেই এই কারখানায় উৎপাদিত সেডান কার বাজারে আসছে বলে জানা যায়।


চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলায় ৩০ একর জমির ওপর স্থাপিত এই কারখানায় ৫০ জন বিশেষজ্ঞ প্রকৌশলীসহ শতাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারী কাজ করবে।

বৃহস্পতিবার মালয়েশিয়ার সেলাঙ্গরে প্রোটন সেন্টার অব এক্সেলেন্স কমপ্লেক্সে বিশ্ববিখ্যাত মালয়েশিয়ান ‘প্রোটন’ ব্র্যান্ডের সঙ্গে সম্পূর্ণ নতুন এই গাড়ি সংযোজনকারী প্রতিষ্ঠানের এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। প্রোটনের সিইও দাতো আবদুল হারিথ আবদুল্লাহ ও পিএইচপি বোর্ড অব ম্যানেজমেন্টের ডিরেক্টর মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন চৌধুরী চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও প্রোটনের চেয়ারম্যান ডা. মাহাথির মোহাম্মদ ও পিএইচপি ফ্যামিলির চেয়ারম্যান সুফী মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। আরও উপস্থিত ছিলেন পিএইচপি ফ্যামিলির ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মহসিন চৌধুরী, ব্যবস্থাপনা পরিচালক আক্তার পারভেজ চৌধুরী হিরু, পরিচালক জহিরুল ইসলাম রিংকু।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রোটন’র সিইও দাতো আবদুল হারিথ আবদুল্লাহ বলেন, ‘বাংলাদেশে প্রোটন গাড়ি সংযোজিত হবে প্রোটনের আন্তর্জাতিক বৈশিষ্ট্য ও মান অনুযায়ী। বাংলাদেশে স্থাপিত প্রথম কারখানার নির্মিত গাড়ির মান নিশ্চিত করার পরই পিএইচপিকে লাইসেন্স দেয়া হবে প্রোটনের।’

safe_imageবাংলাদেশে নির্মিত প্রোটন সেডান কার এর নামকরণ হবে ‘প্রোটন পিএইচপি’। বিশ্ববিখ্যাত টয়োটা রিকন্ডিশন্ড কারের তুলনায় নতুন প্রোটন পিএইচপি’র দাম কম হবে। জ্বালানি খরচও পড়বে তুলনামূলক কম। সম্পূর্ণ নতুন গাড়ি বলে প্রতি বছর রিকন্ডিশন্ড গাড়ির মতো ফিটনেস লাগবে না, ৫ বছর পর এর ফিটনেস করাতে হবে। এতে হয়রানি কমবে, টাকারও সাশ্রয় হবে।

পিএইচপি’র ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মহসিন চৌধুরী বলেন, ‘২৫ হাজার কিলোমিটারের মধ্যে চলার পর কোনো গাড়িতে যান্ত্রিক গোলযোগ দেখা দিলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই সেই কার মেরামতের ব্যবস্থা থাকবে বিনা খরচে। দেশের ৬টি জেলায় ৬টি শো-রুমের পাশাপাশি থাকবে সার্ভিস সেন্টারও। ফলে যন্ত্রাংশেরও কোনো জটিলতা দেখা দেবে না।’

পিএইচপি ফ্যামিলি’র সহযোগী প্রতিষ্ঠান পিএইচপি অটোমোবাইলস’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক আক্তার পারভেজ হিরু বলেন, ‘প্রোটন প্রিভে’ এই সিরিজের প্রিমিয়ার, এক্সিকিউটিভ ও স্ট্যান্ডার্ড এই ৩ ধরনের মডেলের প্রোটন কার বাজারজাত করা হবে। ইঞ্জিন হিসেবে ব্যবহার করা হবে বিশ্ববিখ্যাত টার্বো ইঞ্জিন। দেশে চালু বিভিন্ন বিদেশি কোম্পানির নতুন ও রিকন্ডিশন্ড সেডান কারের অধিকাংশই হলো ১৫০০ সিসি’র। আর সেডান বাংলাদেশে বাজারজাত করবে ১৬০০ সিসি’র যা দূরপাল্লার যাত্রায় বেশ আরামদায়ক ও জ্বালানি সাশ্রয়ী হবে।  গাড়ি চালানো যাবে অটো এবং ম্যানুয়াল দু’ভাবেই।’

বহুজাতিক শিপিং কোম্পানির শীর্ষস্থানীয় এক কর্মকর্তা জানান, দেশের প্রধান সামুদ্রিক বন্দর চট্টগ্রাম দিয়ে প্রতি বছর জাপানসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে ১৪ থেকে ১৫ হাজার নতুন ও রিকন্ডিশন্ড গাড়ি দেশে আসে। এর মধ্যে ৬৫ থেকে ৭০ শতাংশই হলো রিকন্ডিশন্ড সেডান কার।

১৯৮৫ সালে প্রোটন সাগা দিয়ে সেডান কারের যাত্রা শুরু হয়েছিল মালয়েশিয়ায়। সেই বছর ৪ কোটি মানুষের দেশ মালয়েশিয়ায় এ ব্র্যান্ডের গাড়ি বিক্রি হয়েছিল ১৩ হাজার। পরের বছর বিক্রি বেড়ে দাঁড়ায় ৬ গুণেরও বেশি ৮৩ হাজার। বর্তমানে যুক্তরাজ্য থেকে মধ্যপ্রাচ্য, অস্ট্রেলিয়া, এশিয়াসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে গ্রাহকদের চাহিদা ও পছন্দ অনুযায়ী গাড়ি নির্মাণ করে থাকে প্রোটন।

 

শনিবারের চিঠি /আটলান্টা / ২৪ মার্চ ২০১৫

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৩:০৩ পূর্বাহ্ণ | মঙ্গলবার, ২৪ মার্চ ২০১৫

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com