যুক্তরাষ্ট্রে বাংলা সংস্কৃতি বিকাশে কাজ করবে শিল্পকলা একাডেমি

বুধবার, ২৮ জানুয়ারি ২০১৫

যুক্তরাষ্ট্রে বাংলা সংস্কৃতি বিকাশে কাজ করবে শিল্পকলা একাডেমি

 

সাবেদ সাথী, নিউ ইয়র্কঃ বাংলা সংস্কৃতি বিকাশে নতুন প্রজন্মের জন্য কাজ করে যাবে যুক্তরাষ্ট্রস্থ শিল্পকলা একাডেমি। প্রবাসে বেড়ে উঠা শিশু-কিশোরদের জন্য নতুন প্রকল্প গড়ে তুলে বাংলাভাষা ও সঙ্গীত চর্চার প্রশিক্ষন দিয়ে শিল্পী তৈরির ক্ষেত্রে সহায়তা প্রদান করবে এ সংগঠনটি। গত রবিবার সন্ধ্যায় নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটনের একটি রেস্তোঁরায় অনুষ্ঠিত ‘ম্যানহাটন বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুল’ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন। ইউএসএ বাংলাদেশি অর্গানাইজেশন ও শিল্পকলা একাডেমি যৌথভাবে এ অনুষ্ঠনটির আয়োজন করেন।


শিল্পকলা একাডেমির সভাপতি মনিকা রায়ের সভাপতিত্বে এবং মিনহাজ আহমেদ সাম্মু’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নিউ ইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনসুলেটের কনসাল জেনারেল শামীম আহসান।

কনসাল জেনারেল শামীম আহসান ‘ম্যানহাটন বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুল’ এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষনা করে বলেন, প্রবাসে নতুন প্রজন্মের কাছে বাংলাভাষা ও সংস্কৃতি তুলে ধরা সকল অভিভাবকের একান্ত কর্তব্য। আর যাঁরা এ কাজে সবসময় এগিয়ে আসেন তাঁরা নিঃসন্দেহে একটা বড় ধরনের মহতি কাজ করছেন। তিনি বলেন, ম্যানহাটন শহরে প্রবাসী বাংলাদেশিদের বসবাস তেমন বেশি না হলেও যে পরিমান বাংলাদেশি রয়েছেন তাদের সন্তানদের জন্য শিল্পকলা একাডেমির বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুল একটি প্রশংশনীয় উদ্যোগ। এই স্কুলটিকে সঠিকভাবে পরিচালনার জন্য সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। একই সাথে তিনি নতুন প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরারও আহবান জানান। শিল্পকলা একাডেমির পক্ষ থেকে তিনি নিউ ইয়র্কের ষ্টেট সিনেটর বিল পারকিন্সকে ক্রেষ্ট উপহার দেন।

ইউএসএ বাংলাদেশি অর্গানাইজেশনের সভাপতি ইকবাল আহমেদ মাহবুব বলেন, প্রবাসে শিশুদের বাংলা শেখানোর কাজ কঠিন মনে হলেও এটা মোটেই কঠিন নয়। এ জন্য অভিভাবকদেরই আগে উদ্যোগী হতে হবে। প্রতি ঘরে ঘরে নিজেদের সন্তানদের সাথে সব সময় বাংলায় কথা বলার চর্চা রাখতে হবে। ‘ম্যানহাটন বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুল’ আমাদের একটি ক্ষুদ্র প্রয়াস। এটা তখনই সফল হবে যখন ম্যানহাটনে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিরা তাঁদের সন্তানদের এ স্কুলে ভর্তি করাবেন।   

1422409151শিল্পকলা একাডেমির প্রধান পৃষ্ঠপোষক বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবী আনোয়ার হোসেন বলেন, শিল্পকলা একাডেমির সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সকল কর্মকান্ডই সমর্থনযোগ্য। এদের সকল কাজেই আমি আপ্লুত। ‘ম্যানহাটন বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুল’ প্রবাসের নতুন প্রজন্মের শিশু-কিশোরদের জন্য নতুন প্রতিভা বিকাশে একাডেমি সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রদান করবে বলে তিনি আশাবাদী। আগামী দিনে শিল্পকলা একাডেমির এ ধরনের কর্মকাণ্ডের প্রসার বৃদ্ধিতে তাঁর সহযোগিতা থাকবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

শিল্পকলা একাডেমির সভাপতি মনিকা রায় বলেন, শিল্পকলা একাডেমি শুধু গান বাজনার জন্য নয়। এ একাডেমি থেকে নতুন নতুন শিল্পী তৈরি করাটাও আমাদের একান্ত কর্তব্য। একাডেমির প্রথম প্রদক্ষেপ হিসেবে ‘ম্যানহাটন বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুল’ চালু করা হলো। এটাও সম্ভব হতো না, যদি না ইউএসএ বাংলাদেশি অর্গানাইজেশন সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতেন। তাই আমাদের সর্বাত্মক চেষ্টা থাকবে এই স্কুলটি এই শহরের একটি সেরা প্রতিষ্ঠানে পরিণত করার। এজন্য চাই সকল প্রবাসী বাংলাদেশিদের ঐকান্তিক সহযোগিতা। আশা করি এ প্রতিষ্ঠানটিকে রক্ষার করার জন্য সবাই আন্তরিকতার সাথে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেবেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই কোরান তেলাওয়াত করেন মোহর খান, গীতা পাঠ করেন প্রভাষ চক্রবর্তী। জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন একাডেমির শিল্পীবৃন্দ ও আমেরিকার জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করেন শিশুশিল্পী সুমাইয়াহ সুখ। এরপর সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক বাবলী হকসহ অন্যান্য সদস্যরা অতিথিদের ফুল দিয়ে অভর্থনা জানান।   

 অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন বিশেষ অতিথি নিউ ইয়র্কের ষ্টেট সিনেটর বিল পারকিন্স, নিউ ইয়র্কের ষ্টেট এসেম্বলি সদস্য রবার্ট জে. রডরিগায়েজ, ইষ্ট হারলেম চেম্বার অব কমার্সের হেনরী এম শেলড্রন, সাবেক কাউন্সিলম্যান রবার্ট জ্যাকসন, ইউএসএ বাংলাদেশি অর্গানাইজেশনের সভাপতি ইকবাল আহমেদ মাহবুব, প্রধান পৃষ্ঠপোষক বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবী আনোয়ার হোসেন, গীতিকার ও সাংবাদিক জীবন চৌধুরী, সঙ্গীতজ্ঞ নাদিম আহমেদ, শিল্পকলা একাডেমির সভাপতি মনিকা রায়,কাজী আশরাফ হাসান, সাংবাদিক হায়দার আকবর কিরন, নুরুল আবেদিন, অ্যাড.মজিবুর রহমান, রফিকুল ইসলাম আলহাজ্ব কেরামত আলী ও আজাদুল কবীর প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে কবিতা আবৃত্তি করেন গোপন সাহা ও কাজী আশরাফ হাসান। শেষে এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন মনিকা রায়, বাবলি হক, নাসরিন চৌধুরী, কৌশলী ইমা, কনিকা দাস, চন্দ্রা রায়, লিটন ফিলিপস, আফরোজা বেগম রোজী, মোহর খান, দিলরুবা আবেদিন ও শিশুশিল্পী সুমাইয়া সুখ। শিল্পীদের তবলায় সঙ্গত করেন বিশিষ্ট তবলাবাদক তপন মোদক। শব্দযন্ত্র পরিচালনা করেন আব্দুর রহমান। যাঁদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় অনুষ্ঠানটি সফল হয়েছে তাঁরা হলেন ইকবাল আহমেদ মাহবুব, আনোয়ার হোসেন, মনিকা রায়, বাবলি হক, দিলরুবা আবেদিন, লিটন আহমেদ, চন্দ্রা রায়, লিটন ফিলিপস, মুর্শেদা আহমেদ, এমএ রহমান, কনিকা দাস, মনিরুজ্জামান মনির, শুভাশিষ দেব, ওয়াহিদ কাজী এলিন, মোহর খান,সুফিয়া আলী, সিরাজ উদ্দিন ইসলাম, মনির উদ্দিন, আজমান আলী, আলহাজ্ব কেরামত আলী, শফিকুল ইসলাম , দীন ইসলাম প্রমুখ।

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ১০:৫৫ অপরাহ্ণ | বুধবার, ২৮ জানুয়ারি ২০১৫

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com