যুক্তরাষ্ট্রে মুসলিম নগর সরকার পেল হেমট্রামিক সিটি

সোমবার, ১০ জানুয়ারি ২০২২

যুক্তরাষ্ট্রে  মুসলিম নগর সরকার পেল হেমট্রামিক সিটি
নবনির্বাচিত নগর প্রতিনিধিবৃন্দ [ ছবিঃ সংগৃহীত ]

মুহুর্মুহু করতালি আর উৎসবমুখর পরিবেশে যুক্তরাষ্ট্রের শত বছরের ইতিহাস ভেঙে প্রথমবারের মতো মিশিগান অঙ্গরাজ্যের হেমট্রামিক সিটির নিয়ন্ত্রণ নিলেন একঝাঁক মুসলিম  জনপ্রতিনিধি। মেয়র কাউন্সিলর সকলেই বাংলাদেশি আর ইয়ামেনী বংশোদ্ভূত।হেমট্রামিক সিটির নবনির্বাচিত মুসলিম মেয়র আমির গালিবসহ ৩ জন কাউন্সিলর ২ জানুয়ারি রবিববার  আনুষ্ঠানিকভাবে শপথগ্রহণ করেন। হেমট্রামিক হাই স্কুল কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সিটির সব সম্প্রদায়ের শতাধিক মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করেন ডিয়ারবর্ন সিটির একজন ইয়েমেনি-আমেরিকান শিল্পী মারিয়া সাদ। বাংলাদেশি শিল্পী অনামিকা রায়ও একটি বাংলা গান পরিবেশন করেন। ৪টি ধাপে এসব নির্বাচিত জনপ্রতিনিধির শপথবাক্য পাঠ করানো হয়। ৩১তম জেলা আদালতের বিচারক অ্যালেক্সিস ক্রোট নবনির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের শপথবাক্য পাঠ করান। অতিথিদের স্বাগত জানান, হেমট্রামিক সিটি ম্যানেজার ক্যাথলিন অ্যাঙ্গেরার। ক্যাথলিন বলেন, “আমাদের বাসিন্দাদের, আমাদের অভিবাসী পরিবারগুলোকে স্থানীয় রাজনীতিতে প্রবেশ করতে আমেরিকার তুলনা হয় না। আজ আমরা আমেরিকান স্বপ্নের বাস্তবতার সাক্ষী। আমরা এমন একটি দেশে বসবাস করি যেখানে যে কেউ তাদের স্বপ্ন পূরণ করতে পারে।”


৩ জন নবনির্বাচিত কাউন্সিলর সদস্য খলিল রেফাই, আমান্ডা জ্যাকস্কি এবং অ্যাডাম আলবারমাকির সাথে নবনির্বাচিত মেয়র আমির গালিব শপথ নেন। বিদায়ী মেয়র ক্যারন ম্যাজেস্কি সব নেতার সাথে তাদের পরিচয় করে দেন। শপথগ্রহণ করার পর মেয়র আমির গালিব সিটির সার্বিক কল্যাণ নিশ্চিত করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন। একইসঙ্গে সব দল-মত সকল মানুষের জন্য সিটির দরজা খোলা থাকবে এবং সিটির স্বার্থ সংরক্ষণে নানামুখী উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে বলে জানান । তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়ে বলেন, একজন ডাক্তার যেমন ইচ্ছাকৃতভাবে ভুল ওষুধ দিয়ে রোগীকে সেবা দেন না, ঠিক তেমনি তিনি সিটির নেতা হিসাবে ইচ্ছাকৃতভাবে সিটির কোনো ক্ষতি করবেন না।  উপস্থিত সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, “শুভ নতুন বছর, শুভ নতুন হ্যামট্রামেক।”

এদিকে মুসলিম হলেও দায়িত্ব গ্রহণের পর রাষ্ট্র ও ধর্মকে আলাদা রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন নবনির্বাচিত মেয়র আমির গালিব এবং সিটি কাউন্সিলের সদস্যরা। তাঁরা বলেন, এটিই যুক্তরাষ্ট্রের আইন এবং তাদের ইচ্ছাও মূলত সেটিই।

বর্তমানে হ্যামট্রামেক সিটি কাউন্সিলে বাংলাদেশি দুইজন মুসলিম কাউন্সিলম্যান এবং একজন ইয়েমেনী মুসলিম কাউন্সিলম্যান রয়েছেন। তাঁরা হচ্ছেন কামরুল হাসান, নাঈম চৌধুরী ও মোহাম্মদ আলসোমিরি। কাউন্সিলর সদস্য মোহাম্মদ কামরুল হাসান বলেন, তিনি নতুন নেতাদের সাথে কাজ করার জন্য উন্মুখ।

তিনি বলেন, “এখন থেকে হেমট্রামিকের মেয়র এবং কাউন্সিলর আমরা সবাই মুসলিম হলেও, সিটি হলের ভেতরে কিন্তু সবাই যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক। হাসান বলেন, “সিটি হলের ভিতরে কোনো ধর্ম থাকা উচিত নয়। ধর্ম থাকবে গির্জা, মসজিদ এবং মন্দিরে। সবকিছুর পর আমরা সবাই হেমট্রামিকের বাসিন্দা, আমরা এক সম্প্রদায়, আমরা সবাই ভাই -বোন।

হেমট্রামিক হাইস্কুলের সাবেক শিক্ষার্থী মেয়র আমের গালিব বলেন, স্কুলে তাঁকে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল, বড় হয়ে কী করতে হওয়ার ইচ্ছা। উত্তরে রাজনীতিবিদ শোনার পর তিনি নিরুৎসাহিত হয়েছিলেন। তাঁর দ্বিতীয় পছন্দের পেশা চিকিৎসা বিজ্ঞান পড়তে হয়েছিলেন। দশ বছর পর জনসমাজকে চিকিৎসা খাতে সেবা দেয়ার পর নিজের প্রথম পছন্দের পেশায় ফোরে এসেছেন বলে তিনি উল্লেখ করেন। মেয়র গালিব বলেন , তিনি খালি হাতে আসেননি। জনসমাজের অফুরন্ত ভালোবাসা নিয়ে এসেছেন।হেমট্রামিক শহরের সব নির্বাচিত প্রতিনিধি মুসলমান হওয়াটাই শেষ নয়, এগিয়ে যাওয়ার মাত্র শুরু বলে তিনি উল্লেখ করেন।

উল্লেখ্য, এই হেমট্রামিক সিটি থেকেই উত্তর আমেরিকায় বাংলাদেশিদের মূল ধারার রাজনীতিতে সংযুক্তির সূচনা হয় ১৯৯৯ সালে। সাহাব আহমদ সুমিন এখানে প্রথম বাংলাদেশি-আমেরিকান মুসলিম হিসাবে নির্বাচিত হয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করেছিলেন।

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৭:২৮ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ১০ জানুয়ারি ২০২২

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com