মায়ের গর্ভ থেকে ছোট ভাইকে বের করল ছোট্ট জেসি

বৃহস্পতিবার, ১৫ জুন ২০১৭

মায়ের গর্ভ থেকে ছোট ভাইকে বের করল ছোট্ট জেসি

অনলাইন ডেস্কঃ জন্মগ্রহণ প্রক্রিয়া নিয়ে বেশির ভাগ শিশুদের মধ্যেই এক ধরনের ভ্রান্তি থাকে। বিশেষ করে, সে কীভাবে পৃথিবীতে এসেছে এই প্রশ্নের উত্তর জানতে চাইলে বেশির ভাগ বাবা-মা-ই বিব্রত হন। তাই জন্মগ্রহণ প্রক্রিয়া নিয়ে শিশুরা এক ধরনের রহস্য অনুভব করে।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের ১২ বছরের শিশু জেসি ডেলাপেন্না এ ক্ষেত্রে সবার চেয়ে আলাদা। কারণ সে নিজের হাতের মায়ের গর্ভ থেকে বের করে এনেছে তার একমাত্র ছোট ভাইকে। অবশ্য মায়ের চিকিৎসকের সঙ্গে মিলেই এই দুঃসাহসিক কাজটি করেছে সে।


গত সপ্তাহে জেসির মায়ের সন্তান জন্মদানের সম্ভাব্য সময় নির্ধারিত ছিল। প্রসব বেদনা ওঠার পর যখন তাঁর চিকিৎসক প্রসবের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তখন মায়ের সঙ্গে থাকার জন্য কান্নাকাটি শুরু করে জেসি। তখন চিকিৎসক ডা. ওয়াল্টার উলফ জেসিকে শান্ত হওয়ার পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, সে চাইলে মায়ের সন্তান প্রসবের ক্ষেত্রে সাহায্যও করতে পারে।

আর এর পরই অস্ত্রোপচারের নির্দিষ্ট পোশাক পরে ডা. উলফের সহায়তায় মায়ের গর্ভ থেকে জেসি বের করে আনে সাত পাউন্ড ওজনের ছোট্ট ভাইটিকে। শুধু তাই নয়, জেসিকে দিয়েই সদ্যোজাত শিশুর সঙ্গে মায়ের যুক্ত থাকার নাড়ীটিও কাটান ডা. উলফ।

নিজের কাজ নিয়ে দারুণ উচ্ছ্বসিত জেসি। এমএস নিউজ এবং ফক্স ৪০ চ্যানেলকে সে জানিয়েছে, এর আগে বহুবার চিকিৎসক সেজে খেলা করেছে সে। কিন্তু সেদিনই প্রথম সত্যিকারের চিকিৎসকের মতো কাজ করতে হয়েছে তাকে। সেই সময় বেশ ঘাবড়ে গিয়েছিল বলেও জানায় জেসি।

জেসি বলে, ‘আমি বিশ্বাসই করতে পারছিলাম না। আমি ভাবছিলাম, হায় ইশ্বর আমি এইমাত্র একটা সন্তান প্রসব করিয়েছি। আর সে হচ্ছে আমার ছোট ভাই। সে যখন বড় হবে তখন বিষয়টা আমি তাকে বলব। আমার আর অপেক্ষা সইছে না।’

এদিকে, জেসি যখন ছোট্ট ভাইটিকে পৃথিবীতে আনতে ডা. উলফকে সাহায্য করছিল তখন তার মুখের অভিব্যক্তির ছবি তুলে রাখা হচ্ছিল। ফেসবুক ব্যবহারকারী নিকি স্মিথ সেসব ছবি পোস্ট করেছেন। আর এরপর ইন্টারনেট জগতে ছড়িয়ে গেছে সেসব ছবি। যেখানে জেসির মুখের দারুণ সব অভিব্যক্তি ধরা পড়েছে। সেই মুখে রয়েছে বিস্ময়, কিছুটা ভয় আর কিছুটা কৌতুহল। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত নিকি স্মিথের ওই পোস্টটি ১৯ লাখেরও বেশি বার শেয়ার করা হয়েছে। পোস্টটি লাইক পেয়েছে দুই লাখেরও বেশি।

পুরো ঘটনা সম্পর্কে জেসির মা ডেডে ডেলাপেন্না বলেন, ‘আমার চিকিৎসক ডা. উলফ যখন বললেন, জেসি তুমিও পোশাক পরে তৈরি হয়ে নাও তখন আমি রীতিমতো ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম। তবে আমার স্বামী জ্যাক ওকে অভয় দিলেন। ডা. উলফ নিজের হাতের ভেতর জেসির হাত রেখে পুরো প্রসব প্রক্রিয়াটি ওকে দিয়েই করান।’

জেসির এসব ছবি ভাইরাল হওয়ার পর নেটিজেনরা বলছেন, এতে করে ছোট ভাইয়ের সঙ্গে তার সম্পর্কের বন্ধনটা আরো দৃঢ় হবে। অনেকেই ছোট ভাই বোন হওয়ার সংক্রান্ত নিজের অভিজ্ঞতাও তুলে ধরছেন। তবে কেউ কেউ অবশ্য এই ঘটনা জেসির মনে কোনো নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে কি না তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন।

শনিবারের চিঠি /আটলান্টা/ ১৪ জনু, ২০১৭

 

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৫:১২ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ১৫ জুন ২০১৭

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com