মান্না কি গুম হয়েছেন ?

মঙ্গলবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

মান্না কি গুম  হয়েছেন ?

 

শনিবার রিপোর্টঃ নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নাকে আটক করার পর কোথাও তার খোঁজ মিলছে না। মান্নার স্ত্রী মেহের নিগার জানান, সাদাপোশাকে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ মান্নাকে তার ভাতিজি শাহনামা শারমিনের বনানীর বাসা থেকে মঙ্গলবার ভোররাত সাড়ে ৩টার দিকে তুলে নিয়ে যায়। কিন্তু গোয়েন্দা পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, তাদের কেউ মান্নাকে আটক করেনি। তাহলে মান্নাও কি ইলিয়াস আলীর মত গুম হয়েছেন ?


মঙ্গলবার সকালে গণমাধ্যমগুলো খবর প্রচার করে, মান্নাকে আটকের পর গোয়েন্দা কার্যালয়ে নেওয়া হয়েছে। তবে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা কার্যালয়ের একটি বিশ্বস্ত সূত্র জানায়, ডিবি কার্যালয়ে মান্নাকে কোথাও দেখা যায়নি। এমনকি গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের কেউ তাকে খুঁজে পাননি। যেখানে আসামিদের রাখা হয়, সেখানেও মাহমুদুর রহমান মান্না নেই।

তিনি আরো জানান, গোয়েন্দা কার্যালয়ের সকলেই টিভি কিংবা অন্যান্য সংবাদমাধ্যমগুলোতে মান্নাকে ডিবিতে নেওয়া হয়েছে- এমনটি জানতে পারছেন। কিন্তু বাস্তবে মান্নাকে ডিবিতে আনা হয়নি। এদিকে মান্না কোথায় আছেন, তা জানার জন্য র‌্যাব হেডকোয়ার্টার্সের শরণাপন্ন হতে হয়। র‌্যাবের একটি বিশ্বস্ত সূত্র জানায়, র‌্যাবের কেউ মাহমুদুর রহমান মান্নাকে আটক করেনি। তা ছাড়া, র‌্যাবেরও কেউ এখনো জানেন না, তিনি কোথায় আছেন। অন্যান্য আটকের ঘটনায় অন্তত এটুকু বলা যায় যে, কোন আসামি কোথায় আছেন। কিন্তু মান্না কোথায় আছেন, তা কেউ জানেন না। অন্যদিকে পুলিশের এক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা জানান, ‘মান্নাকে গোয়েন্দা পুলিশ ধরে নিয়ে গেছে- এমন খবর ভিত্তিহীন। তবে গোয়েন্দাদের নাম করে অন্য কেউ হয়তো তাকে তুলে নিয়ে যেতে পারে। এখন দেখেন কী ঘটে।’

এদিকে যে এলাকা থেকে মান্নাকে গোয়েন্দা পুলিশ আটক করেছে বলে তার পরিবার অভিযোগ করেছে, সেই বনানী থানার এসআই ফরিদা পারভীন জানিয়েছেন, মান্নাকে তাদের থানার কেউ আটক করেননি। মান্নাকে আটকের বিষয়ে তারা কিছুই জানেন না।

মান্নার ভাতিজী শারমীন দাবী করেন, দরজা ধাক্কিয়ে পুলিশ তাদের ঘুম থেকে উঠায়। তারপর মান্নাকে নিয়ে যায়। এ সকল ঘটনায় জনমনে ব্যাপক প্রশ্ন সৃষ্টি হয়েছে। পুলিশ যদি তাকে গ্রেফতার না করে থাকে, তাহলে পুলিশ পরিচয়ে কারা তাকে তুলে নিয়ে গেলো?

দেশব্যাপী গুম, অপহরন, ক্রসফায়ার, বন্দুক যুদ্ধ বেড়ে যাওয়ায় মানুষের মনে আশংকা ও আতংক আরো ভর করছে। বিনপি নেতা ইলিয়াস আলী কয়েকবছর ধরে গুম হয়ে আছেন। তার সন্ধান ও দিতে পারেনি পুলিশ। ফোনালাপ ফাঁসের পর মান্না নিজেও আশংকা করেছিলেন তিনি গ্রেফতার হতে পারেন। বিতর্ক আরো ডালপালা মেলছে যে আসন্ন ঢাকা সিটি নির্বাচনে যারাই বিরোধী পক্ষের সম্ভাব্য প্রার্থী হতে চাচ্ছেন তাদেরকেই বিভিন্ন বিতর্কে অথবা মামলায় জড়ানো হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে ডঃ তুহিন মালিক, আব্দুল আউয়াল মিন্টু সম্ভাব্য প্রার্থী হওয়ায় তারাও একাধিক মামলার আসামী।

সবশেষ মাহমুদুর রহমান মান্না।

মান্নার টেলিকথনে একাধিক যায়গায় আন্দোলন সম্পর্কে নানারকম কথা আছে। মাঠে ময়াদানে এরকম কথা অনেকেই বলে। তবে নাগরিক সমাজের পরিচয়ে ‍উস্কানীমূলক কথা কিংবা ষড়যন্ত্র অনভিপ্রেত। পর্দার আড়ালে যা হয়, তার ছিটেফোটা হয়তো প্রকাশিত হয়। মান্নার শাস্তি ইতিমধ্যেই দাবী করা হয়েছে বিভিন্ন মহল থেকে। জন আশংকা তখনই দূর হবে যখন তাকে যখন তার গ্রেফতার বিতর্কের অবসান ঘটবে। আর যাই হোক ইলিয়াস আলীর পরিণতি যেনো মান্নার না হয়।

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৮:১০ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com