মডেলের সঙ্গে সেলফি তোলায় পাকিস্তানে মুফতি বরখাস্ত

রবিবার, ২৬ জুন ২০১৬

মডেলের সঙ্গে সেলফি তোলায় পাকিস্তানে মুফতি বরখাস্ত

Inter Nationalপাকিস্তান সরকারের ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অধীন চাঁদ দেখা কমিটি থেকে মুফতি আব্দুল কাভিকে বরখাস্ত করা হয়েছে। পাকিস্তানের বিতর্কিত মডেল কন্যা কুন্দিল বেলচ যিনি পাকিস্তানের কিম কারদাশিয়ান নামে পরিচিত তার সঙ্গে সেলফি তোলার পরেই বিতর্কিত হন আব্দুল কাভি।

মডেল বেলচ প্রায়ই সামাজিক যোগাযোগ ওয়েবসাইটে সল্পবসনার ছবি পোস্ট করেন। সম্প্রতি মুফতি কাভির সঙ্গে সেলফি ওয়েবসাইটে পোস্ট করার পরই মুসলিম প্রধান দেশ পাকিস্তানে সমালোচনার ঝড় উঠে। চাঁদ দেখা কমিটি থেকে কাভির বহিষ্কারাদেষের পর ইমরান খানের রাজনৈতিক দল তেহরিক-ই-এনসাফ থেকেও বহিষ্কার করা হয় তাকে। মুফতি কাভি বলেন, বেলচের অনুরোধেই তিনি সেলফি তুলতে রাজি হয়েছেন এবং মডেল বেলচ বলেন, ‘এ ঘটনার জন্য যে পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে তার জন্য আমি দুঃখিত।’


রক্ষণশীল মুসলিম দেশ পাকিস্তানে আবেদনময়ী কুন্দিলএকজন বিতর্কিত মডেল। গত সপ্তাহে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মুফতি কাভি ও তার কিছু ছবি এবং ভিডিও প্রকাশিত হয়।

মডেল কুন্দিলের সঙ্গে মুফতি কাভির বিতর্কিত ছবি

মডেল কুন্দিলের সঙ্গে মুফতি কাভির বিতর্কিত ছবি

এতে কাভি ও কুন্দিলের ঘনিষ্ঠতা ধরা পড়ে। ছবিতে মোবাইল ফোনে আলাপরত মুফতি কাভির সঙ্গে তার টুপি মাথায় উত্তেজক মুখভঙ্গিরত কান্দিলকে দেখা যায়। এমন বিতর্কিত ছবি প্রকাশের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মুফতি কাভিকে নিয়ে তুমুল সমালোচনা ও উপহাস শুরু হয়।

পরে মুফতি কাভিকে ইসলামের নামে কলংক আখ্যা দেন মডেল কান্দিল। তিনি সিনিয়র এই আলেমকে অসংলগ্ন আচরণের জন্যও অভিযুক্ত করেন।

বিতর্কের মুখে মুফতি কাভিকে সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন তেহরিকে ইনসাফ দল থেকেও বহিষ্কার করা হয়েছে।

এদিকে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেছেন, কাভির বিতর্কিত সেলফি ও আচরণের ব্যাপারে জাতীয় ওলামা পরিষদের মতামত পাওয়ার পর তার পরিণতি নির্ধারণ করা হবে।

মডেল কুন্দিলের ফেসবুকে প্রকাশিত ভিডিওতে মুফতি কাভিকে বলতে দেখা গেছে, তিনি এই বিতর্কিত মডেলকে ধর্মীয় বিষয়ে পথ দেখাবেন এবং মডেল তার ছাত্রী হতে রাজি হয়েছেন।

মডেলেরে অনুরোধেই তার সঙ্গে দেখা করেছেন বলে দাবি করেন মুফতি। ভিডিও ও ছবি প্রকাশের মাধ্যমে যে বিড়ম্বনার সৃষ্টি করেছেন, তার জন্য মডেল ক্ষমা চেয়েছেন বলেও দাবি তার।

তবে মডেল কান্দিল দাবি করেন, একটি টিভি প্যানেলে দেখা হলে তার ফোন নম্বর চান ওই মুফতি। পরে তিনি অসংলগ্ন আচরণ করতে শুরু করেন।

সেলফি প্রকাশের ব্যাপারে কুন্দিল বলেন, আমার মনে হয়েছিল যে, ওই মুফতির মুখোশটা প্রকাশ করা দরকার।

তিনি বলেন, এই মুফতি যখন একা থাকেন, তখন তার খাসলত হয় এক রকম। আর যখন তিনি অনুসারীদের সঙ্গে থাকেন, তখন তার আচরণ হয় আরেক রকম।

কুন্দিল আরও বলেন, এই মুফতি ইসলামের নামে কলংক হয়েও নিজেকে ইসলামের অভিভাবক দাবি করেন।

শনিবারের চিঠি/ আটলান্টা / জুন ২৬,২০১৬

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ১২:১২ অপরাহ্ণ | রবিবার, ২৬ জুন ২০১৬

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com