ভারত থেকে আনা ৫০টি বাসের মধ্যে ১৫ টিই এখন অচল

সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১

ভারত থেকে আনা ৫০টি বাসের মধ্যে ১৫ টিই এখন অচল
প্রতিকী ছবি

ভারত থেকে আনা জোড়া লাগানো বাসের অধিকাংশ লক্কড়ঝক্কড় হয়ে পড়েছে। আর রাজধানীর সড়ক থেকে উধাও হয়েছে চক্রাকার বাস। শুল্ক ও কর বাদে প্রতিটি জোড়া বাস ৮৪ লাখ টাকায় কিনলেও কয়েক বছরের মধ্যে বাসগুলো অচল হয়ে পড়ছে। ইতোমধ্যে ৫০টি বাসের ১৫টি অচল। বাসগুলো এখন গাজীপুরে বিআরটিসির ডিপোতে পড়ে আছে।

চক্রাকার ও জোড়া বাসগুলো যখন সড়কে নামানো হয়েছিল তখন আজিমপুর-মোহাম্মদপুর-কমলাপুর, ফার্মগেট, মতিঝিল, গুলিস্তানসহ রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় চলতে দেখা যায়। বর্তমানে অধিকাংশ জোড়া লাগানো বাস লক্কড়ঝক্কড় হয়ে পড়ায় সড়কে দেখা মিলছে না। তবে লোকসানের কারণে চলছে না চক্রাকার বাস।


জোড়া লাগানো বাসের পাশপাশি চক্রাকার বাসা সার্ভিসে টানাপোড়েন দেখা দিয়েছে। আজিমপুর-মোহাম্মদপুর, মোহাম্মদপুর-কমলাপুর রুটে বিআরটিসি চক্রাকার এসি বাস চালু করে। অত্যন্ত সুশৃঙ্খলভাবে চলছিল বিআরটিসির এই চক্রাকার সার্ভিসটি। কিন্তু হঠাৎ করে উধাও হয়ে গেছে এই সার্ভিস।

সংশ্লিষ্টদের মতে,সড়কে বেসরকারি বাসগুলোর সঙ্গে বিআরটিসির বাস পাল্লা দিয়ে চলতে পারছে না। প্রতি বছর লোকসান গুণতে হচ্ছে রাষ্ট্রায়ত্ত পরিবহন সংস্থা বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশনের (বিআরটিসি)। ২০১৯ সালের ২৭ মার্চ চক্রাকার বাসা সার্ভিস চালু হওয়ার মাত্র এক বছরের মাথায় এমন দৃশ্য যাত্রীদের জন্য ভোগান্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বিআরটিসির প্রশাসন ও অপারেশন বিভাগের পরিচালক ড. মো. জিয়াউদ্দিন বলেন, চক্রাকার বাস সার্ভিসে লোকসান হচ্ছে। সিটি করপোরশেনকে বলা হয়েছে চক্রাকার বাস যেসব রুটে চলবে সেখানে রিকশা বন্ধ করে দিতে হবে। রিকশার কারণেই এই সার্ভিস ভায়াবল হচ্ছে না। সিটি করপোরেশন ভর্তুকি দিলে চক্রাকার সার্ভিস অব্যাহত রাখা যাবে।

বেসরকারি বাস ২০ বছর চলাচল করলেও বিআরটিসির প্রায় অধিকাংশ বাস ৮ বছরে অচল হয়ে পড়ছে। এ বিষয়ে বিআরটিসির চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম বলেন,বাসগুলো তাড়াতাড়ি বিকল হওয়ার পেছনের কারণগুলো খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে।

শনিবারের চিঠি/ আটলান্টা / মার্চ ০৮, ২০২১

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৫:৫৬ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com