বিশ্ব মিডিয়ায় কামারুজ্জামানের ফাঁসি

সোমবার, ১৩ এপ্রিল ২০১৫

বিশ্ব মিডিয়ায় কামারুজ্জামানের ফাঁসি

ঢাকা: একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত জামায়াত নেতা মুহাম্মদ কামারুজ্জামানের ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়েছে। শনিবার রাত ১০টা ৩১ মিনিটে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে তার ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়। বিবিসি, রয়টার্স, আল জাজিরাসহ আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমগুলোতে অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে প্রকাশিত হয়েছে এই মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার খবরটি।

‘Bangladesh Islamist politician Kamaruzzaman hanged’ সাদাসিধে শিরোনামে প্রচারিত প্রতিবেদনে বিবিসি জানিয়েছে, ১৯৭১ সালের যুদ্ধে গণহত্যাসহ বিভিন্ন অপরাধে অভিযুক্ত একটি ইসলামিক দলের নেতাকে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে ফাঁসিতে ঝুলানো হয়েছে।


দীর্ঘ প্রতিবেদনে বিবিসি আরো জানায়, ৬২ বছরের কামরুজ্জামন ১৯৭১ সালে ১২০ নিরস্ত্র কৃষকসহ  নানা অপরাধে ২০১৩ সালের মে মাসে দোষী সাব্যস্থ হয়েছিলেন যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালে । তবে তিনি মৃত্যুদণ্ড মওকুফের জন্য বাংলাদেশের প্রেসিডেন্টের কাছে অনুগ্রহ চাইতে রাজি হননি বলেও জানিয়েছে বিবিসি। ।

তিনি হলেন দ্বিতীয় ব্যক্তি যুদ্ধপরাধের ঘটনায় যার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হল। এর আগে ২০১৩ সালে মানবতা বিরোধী অপরাধে জামায়াত নেতা আবদুল কাদের মোল্লার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছিল ।

ট্রাইব্যুনালের বিচারে আরো যারা মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত হয়েছেন তারা হলেন, জামায়াতের মতিউর রহমান নিজামি, আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদি এবং বিরোধী দল বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী।

আল জাজিরার খবরে কামরুজ্জামানের ফাঁসিকে কেন্দ্র করে  রাজধানীর নিরাপত্তা বৃদ্ধি, শেষ মুহূর্তে গ্রামের বাড়িতে তার দাফন ইত্যাদি বিষয় অগ্রাধিকার পেয়েছে।

বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ ‘যুদ্ধ কসাই’য়ের ফাঁসি কার্যকর করায় রাজধানী ঢাকায় আনন্দ মিছিল করেছে শত শত মানুষ। কামরুজ্জামানের ফাঁসির খবরটি এভাবেই শুরু করেছে ইয়াহু নিউজ।

ইয়াহু বলছে, কামরুজ্জামানের ফাঁসির খবর ছড়িয়ে পড়ার আনরন্দ ফেটে পড়ে পর শত শত মানুষ। তারা ভিজয় সূচক ‘ভি’ দেখায়। এছাড়া জামায়াতের নিন্দা এবং এর প্রতিবাদে দলটি যে সোমবার সারা দেশে হরতাল ডেকেছে এসব তথ্যও দেয়া হয়েছে এতে।

বাংলাদেশের আইন ও বিচারমন্ত্রী আনিসুল হকের বরাত দিয়ে শনিবার জামায়াত নেতার ফাঁসির খবরটি গুরুত্ব সহকারে প্রকাশ করেছে পাকিস্তানি পত্রিকা ‘ডন’।  ‘Bangladesh hangs Jamaat-e-Islami leader for 1971 war massacre’ শিরোনামে প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানানো হয়, মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার ঘণ্টা খানেক পর তার লাশ দাফনের জন্য বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়।  লাশ বহনকারী গাড়িটিতে কড়া নিরাপত্তা আরোপ করা হয়েছিল।

পত্রিকাটি আরো জানিয়েছে, কামারুজ্জামানের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার  সংবাদে  ‘শত শত সরকার সমর্থক’ আনন্দে ফেটে পড়ে এবং বিজয়সূচক ‘ভি’ দেখায়।  জামায়াত ই ইসলামি এই ঘটনাকে‘সরকারে পূর্ব পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড’ হিসেবে বর্ণনা করেছে । তারা এর প্রতিবাদে সোমবার সারা দেশে হরতাল ডেকেছে বলেও জানিয়েছে ডন।

 

শনিবাবের চিঠি / আটলান্টা / ১৩ এপ্রিল ২০১৫

 

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৯:২৩ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ১৩ এপ্রিল ২০১৫

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com