বিধিনিষেধ মুক্ত খালেদা, জিয়ার সমাধিতে যেতে পারবেন আজ

সোমবার, ১৯ জানুয়ারি ২০১৫

বিধিনিষেধ মুক্ত খালেদা, জিয়ার সমাধিতে যেতে পারবেন আজ

 

শনিবার রিপোর্টঃ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গুলশান রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনে মোতায়েন অতিরিক্ত পুলিশ, পুলিশ ভ্যান ও জলকামান সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। রবিবার (১৮ জানুয়ারি) রাত ২টা ৫০ মিনিটের দিকে এসব সরিয়ে নেওয়া হয়। বর্তমানে সেখানে একজন উপ-পরিদর্শকের (এসআই) নেতৃত্বে সাত জন পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুলিশ সদস্য জানান, অন্যান্য স্বাভাবিক দিনে যে সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন থাকে বর্তমানে সেই সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। একজন পুলিশ সদস্য জানান, পক্ষকাল যাবৎ গুলশানের স্বীয় রাজনৈতিক কার্যালয়ে কার্যত অবরুদ্ধ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া এখন যে কোনো স্থানে যেতে পারবেন। কোনো বিধিনিষেধ নেই। খালেদা জিয়া আজ তার প্রয়াত স্বামী সাবেক রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের সমাধিতে যেতে পারবেন; দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে ‘শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি’ও পালন করতে পারবেন।


এদিকে, খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী শিমুল বিশ্বাস বলেছেন, তারা এখনও এই মর্মে কোনো বার্তা পাননি। পেলে দলীয় চেয়ারপারসন নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন। গত ১৬ দিন গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে অবরুদ্ধ আছেন খালেদা জিয়া। ২০ দলীয় জোটের ডাকা অবরোধ কর্মসূচির সহিংস পরিস্থিতির মধ্যেই রোববার রাতে এমন নাটকীয় সিদ্ধান্ত এলো। খালেদা জিয়ার ব্যাপারে সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের এমন সিদ্ধান্ত সন্ধ্যায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর শীর্ষ পর্যায়ে অবহিত করা হলে তারা জরুরি বৈঠক করেন। এ ব্যাপারে মাঠ পর্যায়ের পুলিশ কর্মকর্তাদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে।

রোববার সন্ধ্যায় পুলিশ সদর দপ্তরে আইজিপির নেতৃত্বে উচ্চ পর্যায়ের এক বৈঠক হয়। সেখানে ডিএমপি কমিশনার, ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি, পুলিশের গুলশান বিভাগের ডিসি ছাড়াও অন্যান্য ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।এ ব্যাপারে জানতে চাইলে গতকাল রাতে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, প্রয়াত জিয়াউর রহমানের মাজার জিয়ারত করতে চন্দ্রিমা উদ্যানে যেতে পারেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। এ ক্ষেত্রে কোনো বাধা নেই। এ জন্য আবেদনেরও প্রয়োজন নেই। এ ব্যাপারে ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, ‘শান্তিপূর্ণভাবে খালেদা জিয়া পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ শেষে জননিরাপত্তা ও জনশৃঙ্খলার বিঘ্ন না ঘটিয়ে যে কোনো স্থানে যেতে পারেন। তাকে অবরুদ্ধ করে রাখার প্রশ্নই ওঠে না। তবে যদি কেউ জননিরাপত্তা বিঘ্নিত করে ও জনশৃঙ্খলার হুমকির কারণ হয়, তাহলে তিনি যে-ই হোক না কেন, তার বিরুদ্ধে দেশের প্রচলিত আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ১০:২৩ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ১৯ জানুয়ারি ২০১৫

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com