বিএনপির বিক্ষোভহীন নিউ ইয়র্ক বিমানবন্দরে শেখ হাসিনা [ভিডিও]

সোমবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬

বিএনপির বিক্ষোভহীন  নিউ ইয়র্ক বিমানবন্দরে শেখ হাসিনা [ভিডিও]

সাবেদ সাথী, নিউ ইয়র্ক: এই প্রথমবারের মতো বিএনপির প্রতিরোধ কর্মসূচি বিক্ষোভবিহীন পরিবেশে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক বিমানবন্দরে অবতরণ করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কানাডায় গ্লোবাল ফান্ড সম্মেলন শেষে স্থানীয় সময় রোববার বিকাল ৩টায় এয়ার কানাডিয় একটি বিমানে তিনি নিউ ইয়র্ক সিটির লা গার্ডিয়া বিমানবন্দরে পৌঁছালে যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন তাকে স্বাগত জানান।

জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে কানাডা থেকে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের বিমানবন্দরের লা গার্ডিয়া পৌঁছালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে মোটর শোভাযাত্রা করে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে যাওয়া হয় ম্যানহাটনের হোটেল ওয়ার্ল্ডোফ এস্টোরিয়ায়। প্রধানমন্ত্রীকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানাতে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মিরা জড়ো হন বিমান বন্দরে। দলের নেতা কর্মিরা মুহুর্মুহু করতালি আর শ্লোগানে মুখরিত করেন তোলেন লাগোর্ডিয়া বিমান বন্দর।


প্রতিবছর যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির নেতা-কর্মিরা বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে বিক্ষোভ ও কালো পতাকা প্রদর্শন করলেও এবারে ‘প্রতিরোধ কর্মসূচি  ঘোষণার পরেও বিএনপির নেতা-কর্মিরা কেউই বিমানবন্দর এলাকায় উপস্থিত হননি। কমিটি গঠনসহ নানাবিধ কারনে দলীয় কোন্দল তীব্র হয়ে উঠায় দলের কেউই বিমানবন্দরে যাননি বলে জানা যায়। বিএনপির ওই কর্মসূচির পাল্টায় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোও ‘যেখানে বিএনপি-জামাত-সেখানেই প্রতিরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করেছিল গত সপ্তাহে।

ga-juboএদিকে বিএনপির নেতারা বলছেন ভিন্ন কথা। তাঁরা বলছেন বিমানবন্দর এলাকায় তাদের বিক্ষোভ সমাবেশ করার কোন অনুমতি দেয়নি কর্তৃপক্ষ।

নিউ ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রীর কর্মসূচি
শেখ হাসিনা সোমবার জাতিসংঘের সদরদপ্তরে উদ্বাস্তু ও অভিবাসনের ওপর সাধারণ পরিষদের প্ল্যানারি বৈঠকে ভাষণ দেবেন। এরপর তিনি মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সিলর ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী অং সাং সু চির সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন।
স্থানীয় সময় বিকালে জাতিসংঘে ‘গ্লোবাল কমপ‌্যাক্ট ফর সেইফ, রেগুলার অ্যান্ড অর্ডারলি মাইগ্রেশন: টুওয়ার্ডস রিয়ালাইজিং দ্য ২০৩০ এজেন্ডা ফর সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড অ্যাচিভিং ফুল রেসপেক্ট ফর দ্য হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড মাইগ্র্যান্টস’ শীর্ষক গোলটেবিলে কো-চেয়ারের দায়িত্ব পালন করবেন শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার তিনি জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭১তম অধিবেশনের সাধারণ আলোচনার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। পরে হোটেল ম্যারিয়ট ইস্টসাইডে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে আয়োজিত কাউন্টার টেররিজমের উপর এশিয়ান লিডার্স ফোরামের বৈঠকে যোগ দেবেন।

একই দিনে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা আয়োজিত উদ্বাস্তু বিষয়ক একটি বৈঠক এবং এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানেও শেখ হাসিনার যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে।

বুধবার বিকালে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭১তম অধিবেশনের সাধারণ আলোচনায় বক্তব্য দেবেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। ওইদিন সুইডেনের প্রধানমন্ত্রী আয়োজিত গ্লোবাল ডিল ইনিশিয়েটিভের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন শেখ হাসিনা। এছাড়া সুইজারল্যান্ডের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে তার দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হওয়ারও কথা রয়েছে।

বুধবার রাতে নিউ ইয়র্কে হোটেল গ্র্যান্ড হায়াতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এবং পরদিন নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশের স্থায়ী মিশনে এক সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখবেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দেওয়ার সময় বিভিন্ন রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানের সঙ্গে বৈঠক ছাড়াও কমনওয়েলথ মহাসচিব, ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের নির্বাহী চেয়ারম্যান এবং বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠক করবেন।
তিনি ২২ সেপ্টেম্বর সড়কপথে ভার্জিনিয়ায় যাবেন ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়ের কাছে। ২৫ সেপ্টেম্বর এমিরেটসের একটি ফ্লাইটে তিনি দেশের উদ্দেশে ওয়াশিংটন ডিসি ত্যাগ করবেন বলে জাতিসংঘে বাংলাদেশ মিশনের প্রধান ও স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন জানান।
সফর শেষে ২৬ সেপ্টেম্বর বিকালে ঢাকায় ফিরবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শনিবারের চিঠি/ আটলান্টা / সেপ্টেম্বর ১৯,  ২০১৬

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৫:৫৮ অপরাহ্ণ | সোমবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com