বাংলা একাডেমিতে বই এর আড়ং

শনিবার, ১৮ এপ্রিল ২০১৫

বাংলা একাডেমিতে বই এর আড়ং

ঢাকা: অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৫ শেষ হয়েছে অনেক দিন হলো। মেলায় যারা বই কিনেছিলেন সেগুলো অনেকেরই পড়া শেষ হয়েছে। কেউ কেউ বইমেলার ভিড়ের কারণে বই কিনে সুবিধে করে উঠতে পারেননি। তাদের জন্য ধীরে সুস্থে বই কেনার সুযোগ করে দিয়েছে বাংলা একাডেমি। পহেলা বৈশাখ থেকে বাংলা একাডেমিতে শুরু হয়েছে বইমেলা। নববর্ষ উপলক্ষ্যে  এই বইয়ের আড়ং সাজানো হয়েছে।

বর্ধমান ভবনের পূর্ব পাশের মাঠে ছোট পরিসরে বইমেলার আয়োজন করা হয়েছে। এখানে শুধু বাংলা একাডেমির প্রকাশিত বই বিক্রি হচ্ছে। বাংলা একাডেমির ক্যাটালগার রেজাউল কবির বাংলামেইলকে জানান, নববর্ষ উপলক্ষ্যে বইয়ের আড়ং শুরু হয়েছে। এখানে বাংলা একাডেমির প্রকাশিত বই শতকরা ৩০ ভাগ থেকে ৭০ ভাগ পযন্ত ছাড়ে বিক্রি হচ্ছে।


এখানে পাওয়া যাচ্ছে, বাংলাদেশের লোকসাহিত্য, অভিধান, শব্দকোষ, ভ্রমণ, গবেষণা, প্রবন্ধ, অনুবাদ সাহিত্য, গল্প-কবিতা থেকে শুরু করে সাহিত্যের নানান বই।

বইমেলায় কথা হয় নন্দিতা প্রকাশের স্বত্ত্বাধিকারী বিভি রঞ্জনের সঙ্গে। তিনি বাংলামেইলকে বলেন, ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলায় প্রকাশকদের ব্যস্ততা বেড়ে যায়। ফলে অন্য প্রকাশনীর বই কেনার সুযোগ তেমন একটা মেলা না। বই প্রকাশ করতে হলে প্রচুর বই পড়তে হয়।  বিশেষ করে বাংলা একাডেমির প্রকাশিত বইয়ের মান অনেক ভালো। বৈশাখের বইমেলায় তেমন একটা ভিড়-ভাট্টা নেই। তাই ধীরে সুস্থে সময় নিয়ে বই কিনতে এলাম।’

এদিকে বাংলা একাডেমি চত্বরে চলছে বৈশাখী মেলা। এই মেলায় আগতদের অনেককেই দেখা গেলো বইয়ের আড়ংয়ে ঢুঁ মারতে। বই নেড়ে চেড়ে দেখে পছন্দ হলে কিনেও নিচ্ছেন। বইয়ের আড়ং এ কথা হয় জাহিদুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি জানান, বৈশাখী মেলায় ঘুরতে এসেছিলেন। এখানে এসে দেখলেন বইমেলাও চলছে। বইমেলায় মনের মত একটি বইও পেয়েছেন জাহিদুল। কিনেও নিয়েছেন সেটি।

বইমেলা মেলা এবং বৈশাখী মেলাকে কেন্দ্র করে বাংলা একাডেমি চত্বরে সাহিত্যিকদের আড্ডা বেড়েছে। রোজ সন্ধ্যায় এখানে লোকজ গানের আয়োজন করা হয়েছে। নজরুল চত্বরে গান শুনতে সেখানে মানুষের ভিড় জমে।

বাংলা একাডেমির বইয়ের আড়ং চলবে ২৩ এপ্রিল পযন্ত। বইপ্রেমীরা সকাল ১১টা থেকে রাত আটটা পযন্ত ঘুরে ফিরে বই দেখতে পারবেন। ছাড়ের সুযোগ নিয়ে কিনে নিতে পারবে পছন্দের বই।

 

শনিবারের চিঠি / আটলান্টা / ১৮ এপ্রিল ২০১৫

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৬:০৭ পূর্বাহ্ণ | শনিবার, ১৮ এপ্রিল ২০১৫

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com