বাংলাদেশের ক্রিকেটে অনেক বড় অর্জন: মাশরফি

সোমবার, ২২ জুন ২০১৫

বাংলাদেশের ক্রিকেটে অনেক বড় অর্জন: মাশরফি

 

শনিবার স্পোর্টসঃ
ওয়ানডে ক্রিকেটে বাংলাদেশের অর্জনের মুকুটে অনেক পালকই তো যোগ হয়েছে। শুরুটা সেই কেনিয়া আর জিম্বাবুয়েকে দিয়ে। এক সময় সমপর্যায়ের দল ছিল কেনিয়া। এরপর বাংলাদেশের উন্নতি হলো। হলো জিম্বাবুয়ের সমপর্যায়ের। তাদেরকে হারানোর ধারাবাহিকতা ছিল ২০০৭ বিশ্বকাপে। ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারানো এবং সুপার এইটে খেলা। উন্নতির ধারাবাহিকতা থেমে ছিল না। ২০১০ সালের পর দু’দুবার নিউজিল্যান্ডকে হোয়াইটওয়াশ করা হয়েছে। সিরিজ জয় হয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষেও। খেলেছে ২০১২ এশিয়া কাপের ফাইনাল।


 এরপর এলো অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের বিশ্বকাপে বাউন্সি উইকেটে নিজেদের প্রমাণের পালা। সেখানে বাংলাদেশ দেখিয়ে দিল, তারা শুধু উদীয়মান শক্তিই নয়, সমীহ আদায় করে নেওয়ার মত একটি দলও। এরপর এলো পাকিস্তান সিরিজ। বাংলাদেশের সামনে যারা সবসময় অপরাজেয়। তাদের সেই অহমিকা ভেঙে খান খান করে মাশরাফিরা করলো হোয়াইট ওয়াশ।

সর্বশেষ ধরাশায়ী ভারত। ক্রিকেটের মোড়ল। দম্ভ আর অহমিকায় যাদের পা মাটিতে পড়ে না। বাংলাদেশকে সুযোগ পেলেই তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করা যাদের নিয়মিত অভ্যাস। সেই দলটির বিপক্ষেই এক ম্যাচ হাতে রেখে সিরিজ জয়। নিশ্চয় বাংলাদেশের অর্জনের মুকুটে সেরা পালক! টিম বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফিও মনে করছেন, এটাই বাংলাদেশের সেরা অর্জণ। ওয়ানডে অধিনায়ক জানিয়েছেন, প্রথম দুই ম্যাচের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে চমকে গেছেন তারা নিজেরাও।

 ভারত সিরিজের আগে ৩-০ ব্যবধানে বাংলাদেশ উড়িয়ে দিয়েছে পাকিস্তানকে। কিন্তু ওয়ানডে র‌্যাংকিয়ের দুই নাম্বার দলের বিপক্ষে দুই ম্যাচেই দাপুটের জয়ে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিশ্চিত হওয়াটা বাংলাদেশের ক্রিকেটকে নিয়ে গেছে নতুন এক উচ্চতায়।

দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে তাই প্রশ্ন উঠল, এটিই বাংলাদেশ ক্রিকেটের সেরা সাফল্য কি না। মাশরাফি এটাকেই সেরা সাফল্য বলে থেমে থাকতে চান না। বরং এমন সাফল্যকে নিয়মিত করতে চান তিনি বাংলাদেশের ক্রিকেটে।

এ বিষয়ে মাশরাফি বলেন, ‘অবশ্যই এটি সবচেয়ে বড় অর্জনগুলির একটি। তবে প্রতিটি জয়ই গুরুত্বপূর্ণ। এখনও আমরা উন্নতি করছি। আশা করি, এই ধারা চলতে থাকবে। তবে ভারতের মতো দলের বিপক্ষে, র‌্যাংকিংয়ে যারা দুই নম্বরে আছে, তাদের হারানো অনেক বড় অর্জন।’

বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য অবশ্যই এটা মাইলফলক হিসেবে বেশি বিবেচিত হবে। এ বিষযে মাশরাফি বলেন, ‘ভারতের বপক্ষে সিরিজ জয় অন্যতম একটা। আমি মনে করি ছেলেরা অনেক আত্মবিশ্বাসী। হয়তো প্রত্যাশা কারোরই এতোটা ছিল না যে, আমরা সিরিজ জিততে পারি।’

মাশরাফি আরও যোগ করেন, ‘আমাদের পরিকল্পনা ছিল জয়ের জন্য খেলব এবং খেলার শেষ বল পর্যন্ত লড়ে যাব। আমরা জানি, আমাদের সেরা ক্রিকেট খেললে ভারতের সঙ্গে অনেক প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ হবে। সে ক্ষেত্রে আমরা জিততেও পারি। আমি বলব এই জয়ে ভাগ্যেরও অনেক সহায়তা ছিল। সবকিছু আমাদের ফেভারেই গিয়েছে, তাই আমরা জিতিছি।’

শনিবারের চিঠি /আটলান্টা / ২২ জুন ২০১৫

 

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৯:৪৪ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ২২ জুন ২০১৫

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com