ফোবানা সম্মেলন নিয়ে সংশয়

সোমবার, ০৫ জুলাই ২০২১

ফোবানা সম্মেলন নিয়ে সংশয়
ফোবানা সম্মেলন নিয়ে সংশয়

উত্তর আমেরিকার প্রবাসীদের সবচেয়ে বড় বার্ষিক সম্মেলন ফোবানা নিয়ে উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে। করোনা মহামারি পেরিয়ে এ বছর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ফোবানার ৩৫তম আসর। কিন্তু এর মধ্যেই ফোবানার নির্বাহী কমিটির দ্বন্দ্বের কারণে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়া নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

গত বছর করোনার কারণে ৩৪তম ডালাস ফোবানা অনুষ্ঠিত হয়নি। ছোট পরিসরে ভার্চ্যুয়াল সম্মেলন হয়েছিল গত বছর। যুক্তরাষ্ট্রে করোনার সেই ভয়াবহতা কাটতে শুরু করেছে, সবকিছু স্বাভাবিক হচ্ছে।


প্রাথমিকভাবে ৩৫তম ফোবানা আগামী সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও এখনো কোনো কার্যক্রম চোখে পড়ছে না। ফোবানা সফল করতে তিন দিনের মূল আকর্ষণ সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণকারী সংগঠনগুলো মহড়া করার সুযোগ পাচ্ছে না। কারণ বেশ কয়েকটি অঙ্গরাজ্যে এখনো নানা বিধিনিষেধ বলবৎ রয়েছে। সম্মেলনের জন্য আছে আর এক মাস। ফোনাবার সম্মেলনে ১০-১৫টি সেমিনার, ডকুমেন্টারি, বাংলাদেশের অতিথি, ভিআইপি, ম্যাগাজিন প্রকাশ, বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, স্টেজ মিউজিকসহ বৃহৎ কর্মযজ্ঞ থাকে। তাই এই অল্প সময়ে তা কীভাবে ব্যবস্থা করা হবে নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।

এরই মধ্যেই ৩৫তম ফোবানা নিয়ে কমিউনিটিতে ব্যাপক বিভ্রান্তিমূলক আলোচনার জন্ম দিয়েছে। ফোবানা এক্সিকিউটিভ চেয়ারম্যান জাকারিয়া চৌধুরী নানা অনিয়মের কারণে ফোবানার গুরুত্বপূর্ণ দুজন কর্মকর্তাকে অব্যাহতি দিয়েছেন। ওই দুজনকে আজীবনের জন্য ফোবানা থেকে নিষিদ্ধ করার উল্লেখ করে বিবৃতি দেওয়া হয়েছে।

কারণ দর্শানো নোটিশ না দিয়েই ফোবানা নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান আহসান চৌধুরী ও সেক্রেটারি মাসদু রব চৌধুরীকে ফোবানা থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

ফোবানা নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান আহসান চৌধুরীর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের মধ্যে রয়েছে গত ১৬ জুন ফোবানার নির্বাহী কমিটির বৈঠকে চেয়ারম্যান জাকারিয়া চৌধুরী কর্তৃক সভা মুলতবি ঘোষণা করার পরে সম্পূর্ণ অবৈধ ও অসাংগঠনিকভাবে আরেকটি সভা করেন। সেখানে তাঁর সভাপতিত্বে নির্বাহী কমিটির কিছু সদস্যের উপস্থিতিতে চেয়ারম্যান কর্তৃক রুলিং করা সম্মেলনের তারিখ পরিবর্তন করে সংগঠন ও সম্মেলন বিরোধী অবৈধ সিদ্ধান্ত গ্রহণে সহযোগিতা করেন। এ ছাড়া ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর সম্পূর্ণ অসাংগঠনিকভাবে চেয়ারম্যানকে পাশ কাটিয়ে ফোবানার সাব কমিটি গঠন করার অভিযোগ আছে তাঁর বিরুদ্ধে। আসন্ন ৩৫ তম ফোবানা সম্মেলনকে বাধাগ্রস্ত করার জন্য স্বাগতিক কমিটির বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের মিথ্যা প্রচারণাও তিনি অব্যাহত রাখেন বলে বলা হয়েছে।

এদিকে এক্সিকিউটিভ সেক্রেটারি মাসুদ রব চৌধুরীর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের মধ্যে রয়েছে গত ১৬ জুন ফোবানার নির্বাহী কমিটির বৈঠকে চেয়ারম্যান জাকারিয়া চৌধুরী কর্তৃক সভা মুলতবি ঘোষণা করার পরে সম্পূর্ণ অবৈধ ও অসাংগঠনিকভাবে সভা পরিচালনা করা; চেয়ারম্যান কর্তৃক রুলিং করা ৩৫তম ফোবানা সম্মেলন তারিখ নিয়ে সম্মেলন বিরোধী অবৈধ সিদ্ধান্ত গ্রহণে সহযোগিতা করা; গত ১৭ জুন চেয়ারম্যানকে না জানিয়ে সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে ফোবানার ওয়েবসাইট, ইমেইল ও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমের পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করে সম্মেলন বিরোধী বিভিন্ন মিথ্যা প্রোপাগান্ডা পরিচালনা করা; গত ১৯ জুন মধ্যরাতে ফোবানার নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যানের অনুমোদন ও স্বাক্ষর ছাড়াই অবৈধভাবে সম্মেলনের তারিখ পরিবর্তন নিয়ে বিভ্রান্তিকর প্রেস রিলিজ বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার; সাম্প্রতিক সময়ে স্বাগতিক কমিটির ক্যালিফোর্নিয়া তহবিল সংগ্রহ অনুষ্ঠানে বিরোধিতা করে কমিউনিটি নেতৃবৃন্দকে মেসেজ প্রদান; ৩৫তম ফোবানা সম্মেলন স্বাগতিক কমিটিকে অর্থসহ অন্যান্য সহযোগিতা না করার জন্য স্পনসরদের প্ররোচিত করা; অর্থসহ অন্যান্য লেনদেনে ৩৫তম ফোবানা সম্মেলন স্বাগতিক কমিটির সঙ্গে যোগাযোগ না করে তাঁর সঙ্গে যোগাযোগের জন্য প্ররোচনা প্রদান ও বিভ্রান্তিমূলক তথ্য, প্রেস রিলিজ সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার; নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে চেয়ারম্যানের প্রায় প্রতিটি রুলিং অমান্য করা; বিভিন্ন সভায় উপদেষ্টাদের অগ্রাহ্য ও অপমান করা; ফোবানার প্রতিটি নির্বাহী বৈঠকের আগে ফোবানার কিছু সদস্যকে নিয়ে জুম মিটিং করে ফোবানার ভেতরে গ্রুপিং ও অভ্যন্তরীণ কোন্দল সৃষ্টি এবং ফোবানার ঐক্য প্রক্রিয়া নস্যাতের চেষ্টা।

এসব অভিযোগের ভিত্তিতে ফোবানার অপারেটিং প্রসিডিউরের আর্টিকেল ১৭ সেকশন ৫-এর জিরো টলারেন্স নীতির আলোকে ভাইস চেয়ারম্যান আহসান চৌধুরী ও এক্সিকিউটিভ সেক্রেটারি মাসদু রব চৌধুরীকে আজীবনের জন্য ফোবানা থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে সংবাদমাধ্যমে পাঠানো বিবৃতিতে জানানো হয়েছে।

এ বিষয়ে আহসান চৌধুরী ও মাসদু রব চৌধুরীর সঙ্গে যোগাযোগ করেও কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

আরো পড়ুনঃ ফোবানা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে নির্বাহী পরিষদের অনাস্থা

গত বছর ডালাসে ফোবানা সম্মেলন অনুষ্ঠিত না হওয়ায় এবারের ৩৫তম ওয়াশিংটন ফোবানার দিকে প্রবাসীদের আগ্রহ থাকলেও সাম্প্রতিক ফোবানার নির্বাহী কমিটির মধ্যে প্রকাশ্য দ্বন্দ্বের কারণে তা নিয়েও সংশয় দেখা দিয়েছে।

জানা গেছে, ফোবানার চেয়ারম্যান জাকারিয়া চৌধুরীর একক আধিপত্য মানতে চাচ্ছে না একটি পক্ষ। আবার চেয়ারম্যান দুজন প্রভাবশালী সদস্যকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করেছেন। চেয়ারম্যান এককভাবে কাউকে বহিষ্কার করতে পারেন কিনা, তা নিয়েও ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে। এ নিয়ে পাল্টাপাল্টি অভিযোগ উঠেছে। নানা অনিয়মের খবর সংবাদপত্রে প্রকাশ হওয়ায় ফোবানা ইমেজ সংকটে পরেছে আবারও।

গত ১৪ জুন বৈঠক করে সম্মেলনের তারিখ পরিবর্তন করা প্রসঙ্গে নাম প্রকাশ না করার শর্তে ফোবানা সংশ্লিষ্ট একজন জানান, এটা যে সেপ্টেম্বরে হবে না সেটা অনেক আগেই ধারণা করা গেছে। একটি ফোবানা করতে হলে ন্যূনতম ছয় মাসের প্রস্তুতি প্রয়োজন। নভেম্বরের ২৬ থেকে ২৮ তারিখ করতে হলেও অনেক কাজ করতে হবে।

ওয়াশিংটনের একটি একটি পক্ষ নিউইয়র্কে ফোবানার সাবেক সংগঠকদের নিয়ে সেপ্টেম্বরে দুই দিনের একটি অনুষ্ঠান ‘ফোবানা’ নামেই করার চেষ্টা করছে। এ কারণে ফোবানা নিয়ে কমিউনিটিতে এক ধরনের বিভ্রান্তিও বিরাজ করছে।

৩৫তম ফোবানার হোস্ট কমিটি বাংলাদেশি আমেরিকান ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটি জুম মিটিং করেছেন গত ৩০ জুন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন সংগঠক বলেন, অনেকেই জাকারিয়া চৌধুরীর একক আধিপত্য সহজ ভাবে নিচ্ছেন না। হোস্ট কমিটিও তাঁর ওপর সামগ্রিকভাবে নির্ভরশীল, যা হওয়ার কথা নয়। হোস্ট কমিটি তাদের মতো সবকিছু করবে, নির্বাহী কমিটি সহযোগিতা করবে মাত্র।

এদিকে জাকারিয়া চোধুরী একক বিবৃতি দিয়ে বলেছেন, গত ১৬ জুন ফোবানা এক্সিকিউটিভ কমিটি ও হোস্ট কমিটির এক যৌথ বৈঠকে দীর্ঘ আলোচনার পর সম্মেলনের নতুন তারিখ আগামী ২৬ থেকে ২৮ নভেম্বর ঘোষণা করা হয়েছে।

ফোবানার নির্বাচন কমিশনের ফেসবুক আইডি হ্যাক করে সম্মেলনের নতুন তারিখ সম্পর্কে মিথ্যা প্রচার চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এই নিয়ে ইতিমধ্যেই তদন্ত শুরু হয়েছে। তাই ৩৫তম ফোবানা সম্মেলনের নতুন তারিখ নিয়ে বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে।

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৬:৫৪ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ০৫ জুলাই ২০২১

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com