পদ্মা সেতুতে গাড়ি চলাচলে অর্ধেক সময়ে গন্তব্যে, উচ্ছ্বসিত যাত্রীরা

রবিবার, ২৬ জুন ২০২২

পদ্মা সেতু দিয়ে আনুষ্ঠানিক যান চলাচলের প্রথম দিন রোববার মাওয়া প্রান্তে টোল দেওয়ার জন্য গাড়ির দীর্ঘ জট [ ছবিঃ সংগৃহীত ]

 

পদ্মা সেতুতে গাড়ি চালুর প্রথম দিনেই সুফল পেয়েছেন এ পথের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলায় যাতায়াতকারীরা। এদিন ফেরির তুলনায় প্রায় অর্ধেক সময়ে গন্তব্যে পৌঁছেছেন। প্রথমবার পদ্মা সেতুতে ওঠা ও কম সময়ে গন্তব্যে পৌঁছানো-এ দুই আনন্দে উচ্ছ্বসিত যাত্রীরা।


তাদের কয়েকজন জানান, বরিশাল থেকে ঢাকা পৌঁছতে আড়াই থেকে তিন ঘণ্টা সময় লেগেছে। সেতু চালুর আগে ফেরি পার হয়ে এ পথ আসতে লাগত ৬-৭ ঘণ্টা। অপরদিকে খুলনা থেকে ঢাকায় আসতে সাড়ে তিন-চার ঘণ্টায় এসেছে বাস। আগে এ পথে লাগত ৭-৮ ঘণ্টা।

একইভাবে অন্যান্য গন্তব্যের যাত্রীরাও কম সময়ে গন্তব্যে গেছেন। এদিকে সেতুতে প্রথমবার উঠে আবেগ ও উচ্ছ্বাসে মেতে ওঠেন অসংখ্য যাত্রী। অনেকেই সেতুর মাঝখানে গাড়ি থামিয়ে তাদের এ উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন।

ছবি তুলে, গান গেয়ে নানাভাবে তাদের আবেগের প্রকাশ ঘটান। যদিও আজ থেকে সেতুর মাঝখানে গাড়ি থামালে আইনের মুখোমুখি হতে হবে বলে জানিয়েছে সেতু কর্তৃপক্ষ।

এদিকে প্রথমদিন সেতুর ওপর চলাচলকারী যানবাহনের ৬০ শতাংশই ছিল মোটরসাইকেল। লাগামহীনভাবে চলায় প্রথমদিনই দুর্ঘটনার কবলে পড়ে মোটরসাইকেল। এতে দুজন মারা যান।

এমন পরিস্থিতিতে রোববার রাতে সরকার এক তথ্য বিবরণীতে জানায়, আজ ভোর ৬টা থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

সেতু কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, রোববার সকাল ৬টার দিকে পদ্মা সেতুতে জনসাধারণের গাড়ি চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়। এর আগে গভীর রাত থেকে সেতুতে উঠতে হাজার হাজার যানবাহন ভিড় জমায়।

সেতুর টোল প্লাজা খুলে দেওয়ার পরই সেতুতে উঠতে হুমড়ি খেয়ে পড়েন মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন ধরনের যানবাহন চালকরা। তাদের নিয়ন্ত্রণ করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের গলদঘর্ম হতে হয়েছে।

গাড়ি চালুর প্রথম আট ঘণ্টায় ধারণার চেয়েও বেশি যানবাহন চলাচল করেছে। রোববার সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত ১৫ হাজার ২০০টি যানবাহন চলাচল করেছে।

এসব যানবাহন থেকে টোল আদায় হয়েছে ৮২ লাখ ১৯ হাজার ৫০ টাকা। সংশ্লিষ্টরা জানান, প্রথম কয়েকদিন উৎসুক মানুষের চাপ বেশি থাকবে। এরপর প্রকৃত যাতায়াতকারী যানবাহনের সংখ্যার ধারণা পাওয়া যাবে।

সেতু বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, মাওয়া ও জাজিরা প্রান্তে টোল প্লাজায় ছয়টি করে কাউন্টার রয়েছে। পাঁচটি করে কাউন্টারে টোল আদায় করা হচ্ছে। মাওয়া প্রান্তে প্রাইভেটকার ক্যাটাগরিতে প্রথম সেতুতে উঠেছে টয়োটা করল্লা ব্র্যান্ডের ঢাকা মেট্রো গ ১৪-৪৭৭১ নম্বর গাড়িটি।

যাত্রীবাহী বাসের মধ্যে প্রথম এনা পরিবহণের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ঢাকা মেট্রো ব ১৫-৪৬২৪ নম্বর গাড়িটি উঠেছে। আর মোটরসাইকেলের মধ্যে ঢাকা মেট্রো ল ১৯-৮৩৫৮, ট্রাকের মধ্যে ঢাকা মেট্রো ট ১৮-৭২২২ ও স্পোর্টস ইউটিলিটি ভেহিক্যাল (এসইউভি) গাড়ির মধ্যে নিশান এক্সট্রেইল মডেলের ঢাকা মেট্রো ঘ ১৫-০৬৮৬ নম্বর গাড়িটি প্রথম সেতুতে প্রবেশ করেছে।

অ্যাম্বুলেন্স ক্যাটাগরিতে ঢাকা মেট্রো ছ ৭১-১৩০৯, কাভার্ডভ্যানের মধ্যে ঢাকা মেট্রো ট ১৪-৫৪২৩ ও পিকআপভ্যানের নম্বর ঢাকা মেট্রো নং ১৮-১৬০৪ নম্বর গাড়িটি প্রবেশ করেছে। সেতুর টোল আদায় করছে যৌথভাবে কোরিয়া এক্সপ্রেস করপোরেশন (কেইসি) ও চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি)।

এর মধ্যে এমবিইসি মূল সেতুর নির্মাণকাজ এবং কেইসি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হিসাবে নিযুক্ত প্রতিষ্ঠান।

বহুল কাক্সিক্ষত পদ্মা সেতু শনিবার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সংযোগসহ ৯ দশমিক ৮৩ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সেতুর ফলে ঢাকার সঙ্গে দক্ষিণাঞ্চলের সরাসরি যোগাযোগ স্থাপিত হয়েছে। নিজস্ব অর্থায়নে তৈরি এ সেতু চালুর ফলে জিডিপিতে ১ দশমিক ২৩ শতাংশ প্রবৃদ্ধি যুক্ত হবে বলে আশা করছে সরকার।

রোববার সরেজমিন দেখা গেছে, মাওয়া প্রান্তে সকালে টোল প্লাজায় গাড়ির ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। গাড়ি ও মোটরসাইকেলের বড় লাইন তৈরি হয়। তবে দুপুরের আগেই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসে।

দুপুরের পর থেকে বিকাল পর্যন্ত টোলপ্লাজায় গাড়ি অপেক্ষমাণ থাকতে দেখা যায়নি। গাড়ি এসেই টোল পরিশোধ করে সেতুতে উঠে পড়েছে। আরও দেখা গেছে, সেতুতে ওঠার পরই আড্ডাবাজি ও সেলফিতে মেতে ওঠেন অনেকেই। যাত্রীবাহী বাস থামিয়েও নেমে পড়েন অনেকে।

বিশেষ করে তরুণ-তরুণীদের দল বেঁধে তীব্র গতিতে মোটরসাইকেলে চড়তে দেখা যায়। আবার অনেকে সেতু থেকে পদ্মা নদীর উত্তাল ঢেউ দেখেও সন্তুষ্ট হন। রাজধানীর ওয়ারী থেকে সেতু দেখতে এসেছেন আরিফুল ইসলাম, তাওহীদুল আলমসহ আটজন।

ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত গিয়ে ফেরার পথে মাওয়ায় কথা হয় এ প্রতিবেদকের সঙ্গে। তারা জানান, চারটি মোটরসাইকেলে চড়ে তারা সেতুতে ওঠেন, সেখানে গান গেয়েছেন, ছবি তুলেছেন তারপর ভাঙ্গা গিয়েছেন।

এখন বাসায় ফিরে যাচ্ছেন। তারা বলেন, এমন আনন্দ সাধারণত পাওয়া যায় না। সবাই মিলে ছবি তুলে ফেসবুকে দিয়েছি। ছবির নিচে অনেক লাইক-কমেন্ট পড়েছে।

এদিকে সেতুতে গাড়ি চালু হওয়ায় কম সময়ে ঢাকা আসতে পারছেন যাত্রীরা। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নিজের উচ্ছ্বাসের কথা জানান অনেক যাত্রী। তাদেরই একজন নির্বাচন কমিশনের খুলনা অঞ্চলের আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মো. ইউনুচ আলী।

নিজের ফেসবুকে পদ্মা সেতুতে ওঠার অভিজ্ঞতা তুলে ধরে বলেন, সকাল পৌনে ৮টায় খুলনার সোনাডাঙ্গা থেকে সেন্টমার্টিন পরিবহণের গাড়িতে সেতুর ওপর দিয়ে বেলা ১১টা ১৫ মিনিটে ঢাকার আরামবাগে এসে পৌঁছেছি। এ সেতু আমাদের মর্যাদা, এ সেতু আমাদের গর্ব।

শ্যামলী, সাকুরা, গ্রিনলাইনসহ কয়েকটি পরিবহণের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, তাদের গাড়ি বরিশাল থেকে ঢাকায় ৩ ঘণ্টার মধ্যে পৌঁছেছে। আর খুলনার গাড়ি পৌঁছেছে সাড়ে ৩ থেকে ৪ ঘণ্টায়।

শ্যামলী এনআর পরিবহণের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শুভঙ্কর ঘোষ রাকেশ বলেন, ফেরির যন্ত্রণা থেকে আমরা মুক্তি পেয়েছি। ফেরিতে আগে যে সময় লাগত, তার অর্ধেক সময়ে গন্তব্যে যেতে পারছি। এতে যাত্রীরাও খুশি, আমরাও খুশি।

সেতুতে কড়াকড়ি : পদ্মা সেতু চালুর আগে এতে নামা ও ছবি তোলা নিষেধ ছিল। রোববার তা অনেককেই মানতে দেখা যায়নি। গাড়ি চালুর প্রথম দিন এ নিষেধাজ্ঞা শিথিল থাকলেও সোমবার থেকে কড়াকড়ি আরোপ করেছে সেতু বিভাগ।

সেতুতে গাড়ি থেকে নামলে জরিমানার মুখোমুখি হতে হবে বলে হুঁশিয়ার করে দিয়েছে। এ ছাড়া এক চিঠিতে সেতু ও আশপাশ এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করতে নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে অনুরোধ জানিয়েছে সেতু কর্তৃপক্ষ।

এক চিঠিতে এ অনুরোধ জানিয়ে বলা হয়েছে, গাড়ি-মোটরসাইকেল থামিয়ে সেলফি তোলা, শুয়ে পড়ে ছবি তোলা, ঝুলে রেলিংয়ে ওঠার চেষ্টা করা-এসব দেখা যাচ্ছে। এতে একদিকে যানবাহন চলাচল ব্যাহত হচ্ছে, অন্যদিকে দুর্ঘটনার ঝুঁকি বাড়ছে।

এ ছাড়া মালামাল চুরির ঘটনাও হচ্ছে। এ জন্য সাধারণ মানুষের নামার বিষয়ে যে নিষেধাজ্ঞা আছে, তা কঠোরভাবে কার্যকরের বিষয়ে সেনাবাহিনীকে অনুরোধ করা হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়, অনেকে সেতুতে নেমে মূল্যবান মালামাল ও যন্ত্রপাতি চুরি করছে। অনেকে দুদিকের টোলপ্লাজার আশপাশে যন্ত্রপাতি ও মালামালের ক্ষতি করছে। এ অবস্থায় জরুরি ভিত্তিতে ইএসএসটিকে টহল জোরদার করার অনুরোধ জানানো হয়েছে।

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৭:৪৪ অপরাহ্ণ | রবিবার, ২৬ জুন ২০২২

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com