পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন মুরাদ হাসান

ভুল স্বীকার করলেন কী ?

মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১

পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন মুরাদ হাসান
সদ্য পদত্যাগী সমালোচিত তথ্য  ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ মুরাদ হাসান [ পুরনো ছবি ]

ই-মেইলযোগে মঙ্গলবার একটি পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছেন সমালোচিত তথ্য  ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ মুরাদ হাসান। একই সঙ্গে বেলা দুইটার দিকে নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে একটি স্ট্যাটাস দিয়ে তিনি ‘ক্ষমা’ চেয়েছেন। যদিও তার স্ট্যাটাসটি শুরু হয়েছে, যদি “ভুল করে থাকি”।

স্ট্যাটাসে মন্ত্রী পরিষ্কার করে বলেননি তিনি ‘ভুল’ করেছেন কি করেননি। শুরুতেই “যদি” শব্দটি ব্যবহার করার একটা অর্থ হতে পারে, তিনি ভুল করেছেন কি না, সেটা নিয়ে সংশয় রয়ে গেছে। ফেসবুকে কমেন্ট করে অনেকেই প্রশ্নও তুলছেন এ ব্যাপারে।


শিষ্ঠাচার বহির্ভূত আচরণ ও নারীর প্রতি অশালীন মন্তব্যের অভিযোগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশক্রমে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন ডা. মুরাদ হাসান। সেখানে স্বেচ্ছায় ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে পদত্যাগের কথা উল্লেখ করেছেন তিনি। তবে এই পদত্যাগপত্রেই ভুল তথ্য প্রকাশ করেছেন মুরাদ।

পদত্যাগপত্রটি মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) মেইল করে মন্ত্রণালয়ে পাঠান মুরাদ। সরকারি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, মুরাদ হাসান তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ে প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ পান ২০১৯ সালের ১৯ মে। এর আগে, একই বছরের ৭ জানুয়ারি গঠন করা মন্ত্রিসভায় তাকে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। তবে তার পাঠানো পদত্যাগপত্রে তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগদানের তারিখ উল্লেখ করা হয়েছে ১৯ মে ২০২১।

ভুল তথ্যে পদত্যাগ পত্র

ফেসবুক লাইভে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কন্যার উদ্দেশ্যে অশালীন ও বর্ণবাদী মন্তব্য এবং ফাঁস হওয়া টেলিফোন কথোপকথনে একজন চিত্রনায়িকার সাথে অত্যন্ত অশালীন ও অশ্রাব্য ভাষায় কথা বলা নিয়ে প্রচণ্ড সমালোচনার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদত্যাগ করতে বলেন মুরাদ হাসানকে।

এর একদিন বাদেই মঙ্গলবার দুপুরে চট্টগ্রাম থেকে ই-মেইলযোগে পদত্যাগপত্র পাঠান মি. হাসান। সোমবার যখন বাংলাদেশে তাকে নিয়ে তুমুল সমালোচনা হচ্ছিল, এমনকি আওয়ামী লীগের অনেক নেতারাও তাকে নিয়ে বিব্রত বলে জানাচ্ছিলেন, তারই এক পর্যায়ে তিনি ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম যান বলে জানা যাচ্ছে।

প্রতিমন্ত্রীর দপ্তরের জনসংযোগ কর্মকর্তা মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দিন বিবিসি বাংলাকে নিশ্চিত করেছেন যে, মি. হাসান পদত্যাগপত্রটি তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছেন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এটি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছিল।

সোমবার রাতে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের জানান, মঙ্গলবারের মধ্যে মুরাদ হাসানকে পদত্যাগ করতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রীর এই নির্দেশ রাতেই মুরাদ হাসানকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে বলে সড়ক ও সেতুমন্ত্রী জানিয়েছিলেন।

অবশ্য পদত্যাগপত্রে মি. হাসান লিখেছেন, “ব্যক্তিগত কারণে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করতে ইচ্ছুক” তিনি। মঙ্গলবার থেকেই যেন তাকে প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে “অব্যহতি” দেয়া হয় বলে চিঠিতে উল্লেখ করেন তিনি।

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৭:৫০ পূর্বাহ্ণ | মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com