নিউইয়র্ক বাংলাদেশ সোসাইটির কপালে কলঙ্ক তিলক পড়ালো ট্রাস্ট্রিবোর্ড !

শনিবার, ২৮ অক্টোবর ২০১৭

নিউইয়র্ক বাংলাদেশ সোসাইটির কপালে কলঙ্ক তিলক পড়ালো ট্রাস্ট্রিবোর্ড !

নিউইয়র্ক বাংলাদেশ সোসাইটির কপালে কলঙ্ক তিলক পড়ালো ট্রাস্ট্রিবোর্ড !
খলিল আল জিবরান

 


প্রতিষ্ঠার ৪২ বছরে এসে নিউইয়র্ক বাংলাদেশ সোসাইটি এক কর্মকর্তার কলঙ্ক ঢাকতে গিয়ে নিজের কপালে সেই কলঙ্ক তিলক পড়লো। কার্যকরী কমিটির একজন নারী সদস্যকে কমিটির এক পুরুষ সদস্য টেলিফোনের ক্ষুদে বার্তায় অনৈতিক ভিডিও ম্যাসেজ পাঠানোর যে গর্হিত অপরাধটি করেছিলেন তার সুবিচার চেয়েছিলেন সেই নারী সদস্য। কিন্তু সভাপতি ও কমিটির মুষ্টিমেয় কয়েকজন সদস্য ন্যায় বিচারের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হলে ট্রাস্টি বোর্ড ও কার্যকরী কমিটির যৌথসভায় তার সমাধানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। কিন্তু ট্রাস্টিবোর্ডের ১২ সদস্যের ৭ জন অপরাধী কার্যকরী কমিটির সদস্য সাদী মিন্টুর পক্ষে অবস্থান নিয়ে কার্যকরী কমিটির সিংহভাগ সদস্যের কণ্ঠে কন্ঠ মিলিয়ে জঘন্য তার অপরাধকে ধামাচাঁপা দিতে অভিযোগকারীনী সাংষ্কৃতিক সম্পাদক মনিকা রায়কে সভায় ডেকে এনে ‘সমঝোতা’ করতে বাধ্য করেন।

যে ট্রাস্টিবোর্ড সোসাইটিকে সঠিক পথে পরিচালনা করার কথা এবং সংগঠনটিকে বিপথগামী হবার পথ থেকে ফিরিয়ে আনার কথা সেই ট্রাস্টিবোর্ড সদস্যরা কিসের স্বার্থে কেন একটি জঘন্য অপরাধকে ধামাচাঁপা দিয়ে কার স্বার্থ রক্ষা করেছেন?

অপরাধীর পক্ষে তাদের এই অবস্থান নেয়ায় প্রশ্ন উঠেছে এরা কি নিউইয়র্ক বাংলাদেশ সোসাইটির মত সার্বজনীন সংগঠনের রক্ষাকর্তা ট্রাস্টিবোর্ডের সদস্য হবার মত নৈতিক যোগ্যতা সম্পন্ন? অপরাধীকে সমর্থন করতে গিয়ে সোসাইটিতে আওয়ামী লীগ-বিএনপি ও জামাতি মনোভাবের ট্রাস্ট্রবোর্ড সদস্যদের একাত্মতা সত্যিই বিস্ময়কর ঘটনার জন্ম দিয়েছে নিউইয়র্কের মাটিতে। বিস্ময়করভাবে ট্রাস্টিবোর্ডের যে কজন সদস্য অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে অপরাধীকে শাস্তি দিতে চেয়েছিলেন তারা কমিউনিটিতে কট্টরপন্থী হিসাবেই পরিচিত। ট্রাস্টিবোর্ড ও কার্যকরী কমিটির যৌথসভায় যোগ দেয়া একজন জানিয়েছেন ট্রাস্টি বোর্ডের যেসব সদস্য সাদী মিন্টুর পক্ষ অবলম্বন করেছিলেন সভায় তারা হলেন- এডভোকেট জামাল আহমেদ জনি, মোস্তফা কামাল পাশা বাবুল, মফিজুর রহমান, আজিমুর রহমান বুরহান, সরাফ সরকার, এমদাদুল হক কামাল ও আব্দুল হাসিম হাসনু।

সাদী মিন্টুকে শাস্তি প্রদানের পক্ষে অবস্থানে ছিলেন ট্রাস্টিবোর্ডের সদস্য প্রফেসর দেলোয়ার, আলী ইমাম সিকদার, ওয়াসী চৌধুরী ও আজহারুল হক মিলন। অন্যদিকে সভায় কার্যকরী কমিটির মাত্র তিনজন ছিলেন সাদী মিন্টুকে তার কৃতকর্মের জন্য শাস্তি দেবার পক্ষে। এরা সিনিয়র সহ সভাপতি আব্দুর রহিম হাওলাদার, কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ আলী ও স্কুল ও শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক আহসান হাবীব। নিউইয়র্ক বাংলাদেশ সোসাইটির একজন নারী সদস্যের সাথে একজন পুরুষ সদস্যের অনৈতিক আচরণের বিষয়টি যখন ‘টক অব দ্য কমিউনিটি’-তে পরিণত হয়ে গেছে তখন ‘সমঝোতা’ করে সোসাইটির ‘মান’ কিভাবে রক্ষা করেছেন ট্রাস্টিবোর্ডের সদস্যরা তা নিয়ে হাসাহাসি হচ্ছে কমিউনিটিতে। তাদের এই আচরণকে অনেকটা মরুঝড়ের সময়ে ‘উট পাখি’র বালির ভেতরে মুখ ঢুকিয়ে ঝড় থেকে রক্ষা পাবার হাস্যকর প্রচেষ্ঠার সাথে তুলনা করেছেন কেউ কেউ। এদিকে একজন নারীর সাথে এমন গর্হিত আচরনের খবর পত্রিকান্তরে এতোদিনে বিভিন্ন নারী সংগঠন ও নারী স্বাধীনতা নিয়ে কাজ করা মানুষরা জানতে পারেননি এটা ভাবা যায় না।

কিন্তু অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে তারাও ‘উট পাখি’র ভূমিকা নিয়েছেন এবং জেনেও না জানার ভান করছেন শুধু দায়িত্ব এড়ানোর জন্য , নাকি অন্য কোন ভয় বা লোভে তাও জানতে চান সাধারন প্রবাসীরা। নারী স্বার্থ সংরক্ষণকারী সংগঠনগুলো সাংষ্কৃতিক সম্পাদক মনিকা রায়ের পাশে এসে দাঁড়ালো হয়তো মনিকা রায় সাহস পেতেন ন্যায় বিচার পাওয়ার জন্য প্রচলিত আইনের আশ্রয় নেবার পথে পা দিয়ে। কিন্তু নানা সূত্রে জানা গেছে সোসাইটির অনেক কর্তা ও ট্রাস্টি সদস্য মনিকা রায়কে আইনের আশ্রয় থেকে বিরত রাখতো উল্টো তাকে নানা হুমকী দিয়ে আসছেন। তারা এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছেন বলেই মনিকা রায় উপায়ন্তর না দেখে সাদী মিন্টুর সাথে সমঝোতা করতে বাধ্য হয়েছেন বলে মনে করেন তারা।

আমরা মনিকা রায়ের সাথে কৃত অনৈতিক অপরাধের জন্য সাদী মিন্টুকে আজীবন সোইটির সদদ্য পদ থেকে বহিস্কার এবং তার আগে তাকে কার্যকরী কমিটিতে থেকে বরখাস্তের আহ্বান জানাই নিউইয়র্ক বাংলাদেশ সোসাইটির কার্যকরী কমিটির কাছে।

এই কাজটি করে সোসাইটি তার নৈতিক দায়িত্ব পালন করবে এবং যদি না করে তাহলে ভবিষতে এরজন্য হয়তো অনেক চড়া মূল্য দিতে হতে পারে সংগঠনটিকে। কারন ভবিষতে যদি এ নিয়ে কোন মামলা হয় তখন তাতে শুধু সাদী মিন্টুই আসামী হবেন না- সেই সাথে সাদী মিন্টুকে সমর্থন করে জোরপূর্বক বা কৌশলে মনিকা রায়কে ‘সমঝোতা’ করতে বাধ্য করার জন্য সোসাইটিকেও কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হতে পারে। তখন কিভাবে সেই ন্যাক্কারজনক পরিস্থিতি থেকে পরিত্রাণ পাবে বাংলাদেশ সোসাইটি?

– নিউইয়র্ক, ২৭ অক্টোবর, ২০১৭

বিদ্রঃ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয় । সম্পূর্ণ দায়ীত্ব লেখকের ।

শনিবারের চিঠি / আটলান্টা/ ২৮ অক্টোবর , ২০১৭

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৭:৪১ অপরাহ্ণ | শনিবার, ২৮ অক্টোবর ২০১৭

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com