নিউইয়র্কের রাস্তায় ট্যাক্সি ক্যাব পার্ক করে নামায আদায় করার গণহারে জরিমানা

সোমবার, ২৯ জুন ২০১৫

নিউইয়র্কের রাস্তায় ট্যাক্সি ক্যাব  পার্ক করে নামায আদায় করার গণহারে জরিমানা

 

নিউইয়র্কঃ শুক্রবার জুমার নামাজ আদায়ের সময় মসজিদের আশপাশে পার্ক করায়  শতাধিক ট্যাক্সিতে গণহারে জরিমানার টিকিট ইস্যু করার খবর পাওয়া গেছে।। এর অধিকাংশই ট্যক্সি ড্রাইভারই বাংলাদেশি বলে জানা যায়।  প্রতিটির জরিমানার পরিমাণ হচ্ছে ১১৫ ডলার করে। এসব ট্যাক্সি ডাবল পার্কিংয়ে রাখা হয়েছিল। এ ঘটনা ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে রোজাদার ড্রাইভারদের মধ্যে। ট্রাফিক এজেন্টরা এর আগে আর কখনোই এমন আচরণ করেনি।


নিউইয়র্ক সিটির ওয়েস্ট ৭২ স্ট্রিটের নিকটে রিভারসাইড ড্রাইভে অবস্থিত ইসলামিক কালচারাল সেন্টার মসজিদের আশপাশের রাস্তায় ডাবল লাইনে গাড়ি পার্ক করা হয় বহু বছর থেকে। বিশেষ করে জুমার নামাজের সময়। সে অনুযায়ী এবারও রমজানের প্রথম শুক্রবার ক্যাবীরা (ইয়েলো ট্যাক্সি ড্রাইভার) ট্যাক্সি পার্ক করে মসজিদে ঢুকেছিলেন। নামাজ শেষে প্রত্যেকেই জরিমানার টিকিট দেখে বিস্ময়ে হতবাক।

এ প্রসঙ্গে ক্যাবী মোহাম্মদ জামান বলেন, ‘ডাবল লাইনে পার্ক করা শতাধিক ট্যাক্সিতেই জরিমানার টিকিট দেখে আমি হতবাক। পবিত্র রমজানের সময় রোজাদার প্রত্যেক ক্যাবীই এই মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করি। এর আগে আর কখনোই এমন নির্দয় আচরণ কোন ট্রাফিক এজেন্ট করেননি।’

নিজের টিকিট পরখ করে মোহাম্মদ জামান দেখেন যে, টিকিট ইস্যুর তারিখ শনিবারের অর্থাৎ সেটি ভুল। এজন্যে হয়তো তিনি জরিমানা থেকে মাফ পেয়ে যাবেন বলে আশা করছেন। কিন্তু অন্য সকলকেই ১১৫ ডলার করে গুণতে হবে।

এই মসজিদ পরিচালনা কমিটির কর্মকর্তারা বলেছেন, রমজানের সময় কখনো টিকিট ইস্যুও ঘটনা ঘটেনি এ মসজিদের আশপাশে পার্কিং ভায়োলেশনের জন্যে। এবার কেন এমনটি করা হচ্ছে তা বুঝতে পারছি না। রোজাদার মুসল্লীগণের ওপর কেন ট্রাফিক এজেন্ট ক্ষেপেছেন সেটি ভেবে দেখার বিষয়। সবগুলো টিকিট একজন এজেন্টই ইস্যু করেছেন বলে জানা গেছে। অর্থাৎ নামাজের এক ঘণ্টার মধ্যে শতাধিক টিকিট ইস্যু করতে হয়েছে ঐ এজেন্টকে। এ কারণেই হয়তো মোহাম্মদ জামানের টিকিট ইস্যুতে ভুল তারিখ লেখা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে নিউইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্টের একজন মুখপাত্র বলেন, ‘পবিত্র রমজানের সময় মসজিদের আশপাশে গাড়ি পার্কিংয়ের ক্ষেত্রে অনেকটাই ছাড় দেয়া হয়ে থাকে। আবার কোন কোন মসজিদ নামাজের সময় ডাবল পার্কিংয়ের আগাম অনুমতি নেয়। কিন্তু রিভারসাইডের এই মসজিদ সে অনুমতি নেয়নি। কোন দুর্ঘটনা ঘটলে অথবা কেউ অসুস্থ হলে এ্যাম্বুলেন্স ও দমকল বাহিনীর গাড়ি চালানো যায় না ডাবল পার্কিং থাকলে। সে জন্যেই ট্রাফিক এজেন্ট টিকিট ইস্যু করেছেন। এতে দোষের কিছু নেই। আইনতো সকলের জন্যেই সমান।’

রোজাদার ক্যাবীদের টার্গেট করে টিকিট দেয়া হচ্ছে বলে মনে করে না নিকটস্থ পুলিশ স্টেশনের কমান্ডিং অফিসারগণ। ‘কারণ, এই পুলিশ স্টেশনের সকলের সাথেই ভ্রাতৃত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে মুসল্লীগণের সাথে’- মন্তব্য নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুলিশ অফিসারের। নামাজ আদায়রত ক্যাবীদের ট্যাক্সিতে গণহারে টিকিট ইস্যুর ঘটনায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে মুসলিম-আমেরিকানদের মধ্যে।

শনিবারের চিঠি / আটলান্টা/ ২৯ জুন ২০১৫

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ১০:০২ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ২৯ জুন ২০১৫

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com