‘নিঃশর্তে’ই নায়েক রাজ্জাককে ফেরত দেবে মিয়ানমার

মঙ্গলবার, ২৩ জুন ২০১৫

‘নিঃশর্তে’ই নায়েক রাজ্জাককে ফেরত দেবে মিয়ানমার

 

শনিবার রিপোর্টঃ
অপহরণ করে নিয়ে যাওয়া বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) নায়েক আবদুর রাজ্জাককে অবশেষে কোনো শর্ত ছাড়াই ফেরত দিতে রাজি হয়েছে মিয়ানমার। বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ গতকাল সোমবার রাতে সংবাদমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন। 


বিজিবির আরেকটি সূত্র জানিয়েছে, দু-এক দিনের মধ্যে রাজ্জাককে ফেরত দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে মিয়ানমার।

বিজিবির মহাপরিচালক গতকাল বলেন, ‘মিয়ানমারে নিয়োজিত বাংলাদেশের ডিফেন্স অ্যাটাশে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মাহবুবের সঙ্গে সন্ধ্যা ৭টার দিকে আমার কথা হয়েছে। সোমবার মিয়ানমারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে তাঁর (মাহবুবের) বৈঠক হয়েছে। মিয়ানমারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাঁকে জানিয়েছে, তারা নায়েক রাজ্জাককে তার অস্ত্রসহ নিঃশর্তভাবে ফেরত দেবে।’এর আগে পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে রাজ্জাককে ফেরত দেওয়ার আশ্বাস দিয়েও ছয় দিন কাটিয়ে দেয় মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি)। তবে গতকাল সকালে তারা বিজিবি কর্মকর্তাদের বলে রাজ্জাককে সাগরে ভাসমান অভিবাসী হিসেবে ফেরত আনতে। পরে শর্ত দেয়, সম্প্রতি মিয়ানমার উপকূলে উদ্ধার হওয়া ৫৫৫ জন ‘অভিবাসীর’ সবাইকে ফেরত আনলে তারা রাজ্জাককে ফেরত দেবে। কিন্তু উদ্ধার হওয়া এসব অভিবাসীর মধ্যে মিয়ানমারের রোহিঙ্গাও রয়েছে। এ প্রস্তাব পাওয়ার পর বিজিবি জানিয়েছিল, দুটি দুই ইস্যু, এক করার সুযোগ নেই।

গতকাল দুপুরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, সম্প্রতি মিয়ানমার সাত শতাধিক ‘অভিবাসীকে’ সাগর থেকে উদ্ধার করে। এর মধ্যে ৫৫৫ জন বাংলাদেশি বলে তারা একটি তালিকা পাঠিয়ে তাদের ফেরত আনতে অনুরোধ করে। সেই তালিকার মধ্যে ১৮ জন নারী ও শিশুর নাম রয়েছে। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে তাদের বিষয়ে যাচাই করে দেখা গেছে নারী ও শিশুদের একজনও বাংলাদেশের নাগরিক নয়। তবে তালিকায় থাকা বেশির ভাগই বাংলাদেশি হিসেবে ধারণা করা হচ্ছে। মিয়ানমার প্রস্তাব করেছে, যারা সাগরে ভাসমান ছিল তারাও বাংলাদেশি, অন্যদিকে বিজিবির নায়েক রাজ্জাকও বাংলাদেশি। এ কারণে নায়েক রাজ্জাককে তারা সাগরে ভাসা লোকজনের সঙ্গে ফেরত দিতে চায়।

মিয়ানমার বলেছে, ৫শ ৫৫ জনের সঙ্গে নায়েক রাজ্জাককে ফেরত নিতে চাইলে তারা দ্রুত সময়ের মধ্যে ফেরত দেবে।

www_myanmarexpress_net (17)বিজিবির ৪২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবু জার আল জাহিদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘সোমবার দুপুরে বিজিপির সঙ্গে আমাদের দুইবার কথা হয়েছে। তারা সাগরে ভাসা লোকদের সঙ্গে নায়েক রাজ্জাককে ফেরত দেওয়ার কথা বলেছে। আমরা বলেছি, দুটি দুই ইস্যু। দুটিকে এক করা যাবে না। আপনারা পতাকা বৈঠক করে নায়েক রাজ্জাককে ফেরত দিন। সাগর থেকে উদ্ধার করা ব্যক্তিদের আগের মতো নাম-ঠিকানা যাচাই-বাছাই করে ফেরত আনা হবে। এর সঙ্গে নায়েক রাজ্জাকের ঘটনা মেলানোর সুযোগ নেই।’ আবু জার বলেন, বিজিপি জানিয়েছে, তারা শিগগিরই নায়েক রাজ্জাককে ফেরত দেবে।

গতকাল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মিয়ানমার প্রস্তাব করতেই পারে। তারা প্রস্তাব দিলেই মানতে হবে এমন নয়। যারা ট্রলারে করে বিদেশে যাওয়ার চেষ্টা করছিল তাদের ঘটনার সঙ্গে নায়েক রাজ্জাকের ঘটনা মেলানোর কোনো সুযোগ নেই।’

এ অবস্থায় গতকাল রাতে মিয়ানমারের পক্ষ থেকে বিজিবিকে জানানো হয়, তারা শর্ত ছাড়াই রাজ্জাককে ফেরত দিতে রাজি। 

এর আগে গতকাল দুপুরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান। নায়েক রাজ্জাকের বিষয়ে তাঁর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘নায়েক রাজ্জাককে ফেরত আনতে উদ্যোগের অভাব নেই। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে কাজ করে যাচ্ছে। তাদের সঙ্গে আমাদের কথা হচ্ছে। আমরা চাই তাদের সঙ্গে সুসম্পর্ক রেখেই এ সমস্যার সমাধান করতে। বিজিবি প্রতিদিন কথা বলছে। আশা করি ফ্ল্যাগ মিটিং হবেই।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘অপহরণ করা হয়নি। তাদের জলসীমায় চলে যাওয়ার কারণে তাঁকে অ্যারেস্ট করেছে বলে মিয়ানমারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে।’ স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, ‘মিয়ানমারের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক ভালো।’ আরেক প্রশ্নের জবাবে আসাদুজ্জামান খান বলেন, ‘আমরা যতক্ষণ নায়েক রাজ্জাককে তাঁর পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিতে না পারব ততক্ষণ তো উদ্বেগ থাকবে, চিন্তা থাকবে।’

গত ১৭ জুন ভোর সাড়ে ৫টার দিকে টেকনাফের নাফ নদীর বাংলাদেশ অংশে বিজিবির ছয় সদস্য দুটি নৌকায় করে পরস্পরের মধ্যে ৫০০ গজ দূরত্ব বজায় রেখে টহল দিচ্ছিলেন। ওই সময় একটি টহল নৌকাকে লক্ষ্য করে বেসামরিক পোশাক পরা মিয়ানমারের বিজিপি দল তাদের একটি টহল নৌকা থেকে হঠাৎ গুলিবর্ষণ শুরু করে। আত্মরক্ষার্থে বিজিবিও পাল্টা গুলি চালায়। গুলিতে বিজিবির সিপাহি বিপ্লব আহত হন। একই সময় নায়েক রাজ্জাককে বিজিপি অপহরণ করে নিয়ে যায়। বিপ্লব বর্তমানে চট্টগ্রাম সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তিনি সুস্থ হয়ে উঠছেন।সুত্রঃ কালের কন্ঠ

শনিবারের চিঠি/ আটলান্টা/ ২৩ জুন ২০১৫

 

 

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৯:৩৪ পূর্বাহ্ণ | মঙ্গলবার, ২৩ জুন ২০১৫

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com