দেশজুড়ে মহান বিজয় দিবস উদযাপন

বৃহস্পতিবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০২০

দেশজুড়ে মহান বিজয় দিবস উদযাপন
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের শ্র্রদ্ধা।

আজ ১৬ ডিসেম্বর মহান মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের ৪৯তম বার্ষিকী। বীরের জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশসহ পৃথিবীর মানচিত্রে বাংলাদেশ নামে একটি স্বাধীন ভূখণ্ডের নাম জানান দেওয়ার দিন। বিজয়ের দিনে শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় দেশজুড়ে মহান মুক্তিযুদ্ধে শহিদদের স্মরণ করা হয়েছে।

জেলায় জেলায় রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক বিভিন্ন সংগঠন, সরকারি-বেসরকারি দপ্তর, সাধারণ মানুষের পক্ষ থেকেও স্মৃতিসৌধ ও স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়েছে।


দেশের একমাত্র ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় কুষ্টিয়ায় বিজয় দিবসে উদযাপনে  মুক্তবাংলা সৌধে ফুল দেওয়া নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের দু’টি পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে।সকাল পৌনে ১১টার দিকে  অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে কয়েকজন কর্মকর্তা ফুল দিতে গেলে কর্মকর্তা সমিতির সদস্যরা বাধা দেন। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি হয়, উভয় পক্ষের কাউকে কাউকে এসময় লাঠি দিয়ে প্রতিপক্ষকে আক্রমণ করতেও দেখা যায়। এসময় বেদীতে থাকা ফুলের ডালি ভাঙচুর করে উভয় পক্ষ।

দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে পাঠানো আমাদের  প্রতিনিধিদের পাঠানো খববঃ

সকাল ৭টায় বাগেরহাট জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শহরের দশানীস্থ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দেওয়া হয়।

বাগেরহাটঃ (১৬ ডিসেম্বর) সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে ৩১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে দিনটির কর্মসূচি শুরু হয়। পরে সকাল ৭টায় বাগেরহাট জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শহরের দশানীস্থ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দেওয়া হয়। তারপর শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণে গার্ড অব অনার প্রদান ও এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। পরে সব শহীদের স্মরণে আয়োজন করা হয় বিশেষ মোনাজাত। এরপরেই বাগেরহাট সার্কিট হাউস মিলনায়তনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়।

এসব কর্মসূচি শেষে দশানীস্থ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিস্তম্ভে শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের ঢল নামে। একে একে জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, পুলিশ সুপার, সিভিল সার্জন, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, সমাজতান্ত্রিক দল, সড়ক ও জনপথ বিভাগ, এলজিইডি, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল, শিক্ষা প্রকৌশল, বাগেরহাট জেলা আইনজীবী সমিতি, বাগেরহাট প্রেসক্লাব, সরকারি পিসি কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সামাজিক, রাজনৈতিক ও বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায়।

তবে বিজয় দিবস উপলক্ষে প্রতি বছর এই দিনে বাগেরহাট হেলাল উদ্দিন স্টেডিয়ামে কুচকাওয়াজ, শরীরচর্চা ও ডিসপ্লে প্রদর্শনসহ বিভিন্ন আয়োজন থাকলেও, করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে এবার সেসব কর্মসূচি বাতিল করেছে জেলা প্রশাসন।

বিজয় দিবসে খুলনার গল্লামারী স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে খুলনা জেলা ও মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড।

খুলনা :  বুধবার খুলনা জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ হেলাল হোসেন প্রথম গল্লামারী শহিদ স্মৃতিসৌধে মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মদানকারী শহিদদের শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন। প্রথমেই জেলা প্রশাসক, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, খুলনা জেলা ও মহানগর ইউনিট জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধারা শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন।

এর পরপরই শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি তালুকদার আব্দুল খালেক, খুলনা বিভাগীয় কমিশনার ড. মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেন হাওলাদার, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ (কেএমপি) কমিশনার মাসুদুর রহমান ভূঞা, খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি ড. খ. মহিদ উদ্দিন, খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (কেডিএ) চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আব্দুল মুকিম সরকার,  খুলনা বিভাগ ও জেলা পর্যায়ের বিভিন্ন সরকারি দপ্তর, খুলনা জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সংগঠন, খুলনা প্রেসক্লাব, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সর্বস্তরের জনসাধারণ।

বিএনপির পক্ষ থেকে কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও মহানগর সভাপতি নজুরুল ইসলাম মঞ্জু দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে পুষ্পমাল্য অর্পণ করে।

গোপালগঞ্জে বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সের বেদিতে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

গোপালগঞ্জ : বিজয় দিবসে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

বুধবার সকাল ১০টায় টুঙ্গিপাড়া বঙ্গবন্ধু সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সের বেদিতে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আজিজুস সামাদ ডন ও আব্দুল আওয়াল শামীম ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। পরে পবিত্র ফাতেহাপাঠ, বঙ্গবন্ধু, স্বাধীনতা সংগ্রামে আত্মদানকারী ৩০ লাখ শহীদ, জাতীয় চার নেতা ও ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনায় বিশেষ দোয়া মোনাজাত করা হয়।

 নাটোর : সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে নাটোরের সিংড়া কেন্দ্রীয় স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। পরে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন প্রতিমন্ত্রী। এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও), পৌর মেয়রসহ বিভিন্ন সংগঠন ও সর্বস্তরের মানুষ উপস্থিত ছিলেন। একই সময়ে নাটোর শহরের স্বাধীনতা চত্বরের স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন জেলা প্রশাসক মোহম্মদ শাহরিয়াজ, পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহাসহ সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও সাধারণ মানুষ।

 মেহেরপুর : আজ সকালে সার্কিট হাউস চত্বরে ৩১ বার তোপধ্বনির মধ্যে দিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। বুধবার সকাল সাড়ে ৬টায় কলেজ মোড়ে অবস্থিত শহিদ মিনারে জেলা প্রশাসক ড. মো. মুনসুর আলম খান পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। পরে পুলিশ সুপার এস এম মুরাদ আলীসহ স্থানীয় রাজনীতিবিদ, সামাজিক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে শহিদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এ ছাড়া দিনের কর্মসূচি অনুযায়ী মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

নড়াইল : জেলা প্রশাসন  ও বিভিন্ন সংগঠনের আয়োজনে যথাযোগ্য মর্যাদায় নড়াইলে মহান বিজয় দিবস পালন করা হচ্ছে। সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে ৩১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে দিবসের কর্মসূচির সূচনা হয়। পরে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। জাতীয় পতাকা উত্তোলন শেষে স্মৃতিসৌধ, গণকবর, বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল ও বধ্যভূমিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, গণকবর জিয়ারত ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় জেলা প্রশাসক আনজুমান আরা, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন বিশ্বাস, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুবাস চন্দ্র বোস, পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র রেজাউল বিশ্বাস, জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি খায়রুল আরেফিন রানা। এ ছাড়া জেলা আওয়ামী লীগ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, বিএনপি,  প্রেসক্লাব, সরকারি বিভিন্ন দপ্তরসহ সাংস্কৃতিক ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানের লোকজন উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া জেলায় মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা দেওয়া হয়।

মাগুরা : যথাযোগ্য মর্যাদায় নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে মাগুরায় ৫০তম মহান বিজয় দিবস পালিত হচ্ছে। সকাল ৭টা ৪৫ মিনিটে নোমানী ময়দান শহিদ স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সাইফুজ্জামান শিখর, জেলা প্রশাসক ড. আশরাফুল আলম, পুলিশ সুপার খান মুহাম্মদ রেজোয়ানসহ জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড ও বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

 পাবনা : বিনম্র শ্রদ্ধা আর যথাযোগ্য মর্যাদায় পাবনায় মহান বিজয় দিবস পালন করা হচ্ছে। দিবসটি উপলক্ষে বুধবার সকালে শহিদদের শ্রদ্ধা জানাতে দূর্জয় পাবনায় পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ জেলা পরিষদ, পাবনা প্রেসক্লাব, আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ সামাজিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক লোকজন। এ ছাড়া দিবসটি উপলক্ষে দিনব্যাপী নানা কর্মসূচি পালন করেছে বিভিন্ন সংগঠন।

 জয়পুরহাট : জয়পুরহাট শহিদ ডা. আবুল কাশেম ময়দানের ’৭১ ফুট উচ্চ মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিসৌধে’ প্রথম পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন জেলা প্রশাসক মো. শরীফুল ইসলাম। পরে একে একে জেলা পরিষদ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টিসহ রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধে শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া : স্বাস্থ্যবিধি মেনে ফারুকী পার্কে অবস্থিত স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে মহান মুক্তিযুদ্ধের শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়। জেলা প্রশাসক হায়াত উদ দৌলা খানের নেতৃত্বে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ সুপার আনিসুর রহমানের নেতৃত্বে জেলা পুলিশ শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানোর পর আওয়ামী লীগ, বিএনপি, প্রেসক্লাবসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন পুষ্পস্তবক অর্পণ করে। এ ছাড়াও দিনটি পালনে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ভার্চুয়াল আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল, কারাগার-হাসপাতাল-সরকারি শিশু পরিবারে বিশেষ খাবার বিতরণসহ দিনব্যাপী নানা কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

লক্ষ্মীপুরে বিজয় দিবসে বিনম্র শ্রদ্ধা।

লক্ষ্মীপুর : শহরের ঝুমুর সিনেমা হল এলাকার বিজয় চত্বর স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে জেলা প্রশাসন, আওয়ামী লীগ, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনগুলো মুক্তিযুদ্ধের শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায়। শ্রদ্ধা নিবেদন করেন জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পাল, পুলিশ সুপার ড. এএইচএম কামরুজ্জামান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক ও সাধারণ সম্পাদক নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন প্রমুখ।

পরে সকাল ৬টা ৪৫ মিনিটে শহরের বাগবাড়ি গণকবরে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ শেষে শহিদদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়।

ময়মনসিংহ : যথাযোগ্য মর্যাদায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে মহান বিজয় দিবস উদযাপিত হচ্ছে ময়মনসিংহে। আজ বুধবার সকাল ৭টায় নগরীর পাটগুদাম ব্রিজ মোড় স্মৃতিস্তম্ভে ৩১ বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে মহান বিজয় দিবসের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়।

মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের মেয়র ইকরামু ল হক টিটু, সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য মনিরা সুলতানা মনি, বিভাগীয় কমিশনার কামরুল হাসান, পুলিশের ময়মনসিংহ রেঞ্জ ডিআইজি ব্যারিস্টার হারুন অর রশিদ, জেলা প্রশাসক মিজানুর রহমান, পুলিশ সুপার আহমার উজ্জামানসহ রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

ফরিদপুর : নানা আয়োজনে ফরিদপুরে মহান বিজয় দিবস পালিত হচ্ছে। সকাল ৮টায় শহরের গোয়ালচামটে স্মৃতিস্তম্ভে ফরিদপুর সদর আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেনের পক্ষে পুষ্পমাল্য অর্পণের মধ্যে দিয়ে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন শুরু হয়। পরে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও সহযোগী সংগঠন পুষ্পমাল্য অর্পণ করে।

সকাল সাড়ে ৯টায় ফরিদপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে ‘শত সহস্র কণ্ঠে’ জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। এতে সরাসরি ও ইন্টারনেট প্রযুক্তির মাধ্যমে দেশ ও দেশের বাইরে থেকে জাতীয় সংগীত গেয়ে ওঠেন এক লাখ ২০ হাজারের বেশি মানুষ। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক অতুল সরকার, পুলিশ সুপার মো. আলিমুজ্জামানসহ নানা শ্রেণি ও পেশার মানুষ।

খাগড়াছড়ি: আজ ভোর ৬টায় ৩১ বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে দিবসের কর্মসূচি শুরু হয়। শরণার্থী পুনর্বাসন বিষয়ক টাস্কফোর্স চেয়ারম্যান কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, তিন পার্বত্য জেলার সংরক্ষিত আসনের নারী সংসদ সদস্য বাসন্তী চাকমা, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মংসুইপ্রু চৌধুরী অপু, রেড ক্রিসেন্টের বোর্ড মেম্বার কংজরী চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয়পার্টি, খাগড়াছড়ি প্রেসক্লাব, সাংবাদিক ইউনিয়নসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে শহিদ স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দিয়ে বীর শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়।

বিজয় দিবসে বিভিন্ন সরকারি দপ্তরগুলো নিজেদের মতো করে উদযাপন করবে। প্রতি বছর বিজয় দিবসের কুচকাওয়াজ খাগড়াছড়ি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হলেও এবার তা বাতিল করা হয়েছে। স্মৃতিসৌধ এলাকায় পুলিশ শান্তিশৃঙ্খলা ও নিরাপত্তায় নিয়োজিত ছিল।

নেত্রকোনায় বিজয় দিবসে শ্রদ্ধা জানায় সর্বস্তরের জনগণ।

নেত্রকোনা : আজ সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে কালেক্টরেট ভবন প্রাঙ্গণে ৩১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে বিজয় দিবসের সূচনা হয়। জেলা প্রশাসক কাজী আব্দুর রহমান, পুলিশ সুপার আকবর আলী মুন্সীর নেতৃত্বে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন এবং সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী খান খসরু নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ স্মৃতিফলকে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে।

পাশাপাশি আওয়ামী লীগ ও বিএনপিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহ শহিদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিফলকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায়।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় কুষ্টিয়ায় বিজয় দিবসে উদযাপনে দু’টি পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

কুষ্টিয়া : ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় কুষ্টিয়ায় বিজয় দিবসে উদযাপনে  মুক্তবাংলা সৌধে ফুল দেওয়া নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের দু’টি পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। সকাল পৌনে ১১টার দিকে  অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে কয়েকজন কর্মকর্তা ফুল দিতে গেলে কর্মকর্তা সমিতির সদস্যরা বাধা দেন। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি হয়, উভয় পক্ষের কাউকে কাউকে এসময় লাঠি দিয়ে প্রতিপক্ষকে আক্রমণ করতেও দেখা যায়। এসময় বেদীতে থাকা ফুলের ডালি ভাঙচুর করে উভয় পক্ষ।

এছাড়া  ভোর ৬টা ৪০ মিনিটে ৩১ বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে কুষ্টিয়া কালেক্টরেট চত্বরের মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতিস্তম্ভে ফুল দিয়ে শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক মো. আসলাম হোসেন ও পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাত। এরপর বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এ ছাড়াও দিবসটি উপলক্ষে জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক আমজাদ আলী খানের নেতৃত্বে জেলা শ্রমিক লীগ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বিভিন্ন সংগঠন মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতিস্তম্ভে ও বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে ফুল দিয়ে শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

এছাড়াও  দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে মহান বিজয় দিবস উদযাপনের খবর পাওয়া গেছে ।

শনিবারের চিঠি / আটলান্টা / ১৭ ডিসেম্বর, ২০২০

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৬:৪৪ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ১৭ ডিসেম্বর ২০২০

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com