তেল বিপর্যয়ের নয়দিন পর সুন্দরবনে দু’টি প্রাণীর মৃতদেহ উদ্ধার

রবিবার, ২১ ডিসেম্বর ২০১৪

তেল বিপর্যয়ের নয়দিন পর সুন্দরবনে দু’টি প্রাণীর মৃতদেহ উদ্ধার

 

tigমংলা, বাগেরহাটঃ সুন্দরবনের শ্যালা নদীতে ভাসমান অবস্থায় মৃত দুটি ভোঁদড় উদ্ধার করেছে বনবিভাগ। সুন্দরবনের শ্যালা নদীতে তেলবাহী ট্যাংকার ডুবির নয়দিন পর সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের শ্যালা নদীর আন্ধারমানিক এলাকায় ভাসমান অবস্থায় মৃত দুটি ভোঁদড় উদ্ধার করা হয়। বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ ১৯ ডিসেম্বর পরীক্ষাগারে ওই মৃত ভোঁদড় দুটির ময়না তদন্ত সম্পন্ন করে। সুন্দরবনের শ্যালা নদীতে ছড়িয়ে পড়া তেল মিশ্রিত জলপান করে ওই ভোঁদড় দুটির মৃত্যু হয়েছে বলে তারা নিশ্চিত হয়েছে।


সুন্দরবনের শ্যালা নদীতে তেলের ট্যাংকার ডুবির নয়দিন পর এই প্রথম কোন বন্যপ্রাণীর মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া গেল। সুন্দরবনের নদীখালে ছড়িয়ে পড়া তেল মিশ্রিত জলপান করে সুন্দরবনে বসবাস করা অন্য কোন বন্যপ্রাণী অসুস্থ বা মারা গেল কিনা তা অনুসন্ধান (পর্যবেক্ষণ) করতে বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের তিনটি দল কাজ করছে।

বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো. জাহিদুল কবীর রবিবার সকালে এ প্রতিনিধিকে জানান, সুন্দরবনে তেলবাহী ট্যাংকার ডুবির পর আমাদের বিভাগ বন্যপ্রাণীর ক্ষয়ক্ষতি পর্যবেক্ষণ করতে শুরু করে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণীবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক মনিরুল এইচ খানকে নিয়ে গত ১৮ ডিসেম্বর আমাদের একটি দল সুন্দরবনে যায়। সেখানে গিয়ে শ্যালা নদীর আন্ধারমানিক এলাকায় দুটি বন্যপ্রাণী নদীর জলে ভাসতে দেখে বনকর্মীরা তা তুলে উপরে নিয়ে আসে। মৃত ভোঁদড় দুটির শরীরে ফার্নেস অয়েল লেগে ছিল। বন্যপ্রাণী দুটি উদ্ধার হওয়ার অন্তত দুই তিন দিন আগে মারা গিয়েছিল বলে ধারণা করা হয়। পরে তা আমরা সংরক্ষণ করে বণ্যপ্রাণী দুটির মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধান করতে পরীক্ষাগারে নিয়ে আসি।sundarban

বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের চিকিৎসক (ভ্যাটেনারী সার্জন) সৈয়দ হোসেন শুক্রবার ওই প্রাণী দুটির ময়না তদন্ত করেন। তেল মিশ্রিত জলপান করে তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে তিনি প্রতিবেদন দিয়েছেন। এই মারা যাওয়া বন্যপ্রাণী দুটি প্রাপ্ত বয়স্ক। এরা নদীর মাছ শিকার করে জীবনধারণ করে থাকে। তা্রা যখন মাছ শিকার করছিল তখন ওই নদীর জলে তেল ভাসছিল। ওই তেল মিশ্রিত মাছ ও জল পান করে বণ্যপ্রাণী দুটির মৃত্যু হয় বলে চিকিৎসক নিশ্চিত হয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের যেসব এলাকায় তেল ছড়িয়ে পড়েছে সেসব এলাকায় তেল মিশ্রিত জলপান করে সুন্দরবনে বসবাস করা অন্য কোন বন্যপ্রাণী অসুস্থ বা মারা গেল কিনা তা অনুসন্ধান (পর্যবেক্ষণ) করতে বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের তিনটি দল কাজ করছে।

ছড়িয়ে পড়া তেলে সুন্দরবনে বসবাস করা বাঘ, হরিণ, শুকর বা অতিথি পাখির কোন ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, তা অনুসন্ধান করতে আমাদের একাধিক দল কাজ করছে। সুন্দরবনের ভেতরে মিষ্টি পানির জলাশয় রয়েছে। বাঘ ও হরিণ এই জলাশয়ের পানি পান করে থাকে। ইতিমধ্যে দেশি বিদেশি বিভিন্ন সংস্থা সুন্দরবনে তেল বিপর্যয়ের ফলে সুন্দরবনের বন্য ও জলজপ্রাণীর দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতিরপ্রভাব কি হবে তা নিয়ে কাজ করছে। যারা সুন্দরবন নিয়ে কাজ করছেন তারা যদি এমনটি দেখতে পান তাহলে (বণ্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মো. জাহিদুল কবীর ( ০১৭৭৮৪৫৪৪৯৯) যোগাযোগের অনুরোধ জানিয়েছেন।

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ১১:১৪ অপরাহ্ণ | রবিবার, ২১ ডিসেম্বর ২০১৪

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com