ট্রাম্প দেশ পরিচালনায় অক্ষম হলে কী ঘটবে ?

শনিবার, ০৩ অক্টোবর ২০২০

ট্রাম্প দেশ পরিচালনায় অক্ষম হলে কী ঘটবে ?
প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প

করোনাভাইরাসের কারণে যদি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প দেশ পরিচালনায় অক্ষম হন, তখন তাকে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হতে পারে। এমনকি তার পরিবর্তে অন্য কাউকে নির্বাচনী টিকিট দেয়া হতে পারে।

শুক্রবার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন ট্রাম্প ও তার স্ত্রী ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প। ‍বুধবার ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠ একজন উপদেষ্টা হোপ হিকস করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর শুক্রবার এই দম্পতির কোভিড রিপোর্ট পজিটিভ আসে।


শুক্রবার সকালে এক টুইট বার্তায় ট্রাম্প সস্ত্রীক করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর জানান। তিনি লিখেন, আজ রাতে ফার্স্ট লেডি এবং আমার করোনাভাইরাস পজিটিভ হয়েছে। আমরা তাৎক্ষণিকভাবে আমাদের কোয়ারেন্টিন এবং রিকভারি প্রসেস শুরু করবো। আমরা একসঙ্গে এই সময় পার করবো।

ট্রাম্পের বয়স এখন ৭৪ বছর। তাই করোনাভাইরাস জনিত জটিলতার কারণে উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছেন তিনি। এদিকে দেশটিতে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আর মাত্র ৩২ দিন রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে ট্রাম্প যদি খুব অসুস্থতার কারণে নির্বাচন করতে না পারেন তাহলে সংবিধানের সঙ্গে সংগতি রেখে বিকল্প ভাবতে হবে।

মার্কিন সংবিধানের ২৫তম সংশোধনীতে বলা হয়েছে, যদি কোনও কারণে প্রেসিডেন্ট তার দায়িত্ব পালনে অক্ষম হয়, তাহলে সাময়িক সময়ের জন্য কমান্ডার-ইন-চিফ হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে পারবেন ভাইস প্রেসিডেন্ট। যদি ভাইস প্রেসিডেন্টও দায়িত্ব পালনে অক্ষম হন, তাহলে মার্কিন কংগ্রেসের হাউজ স্পিকার দায়িত্ব পালন করবেন।

কিন্তু সামনেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। সেক্ষেত্রে বিষয়টা আরও জটিল হয়ে গেছে ডেমোক্রেটিক এবং রিপাবলিকান পার্টি ন্যাশনাল কমিটির জন্য। যদি প্রেসিডেন্ট প্রার্থীরা মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেয়, সেক্ষেত্রে বিকল্প কাউকে মনোনয়ন দিতে পারে উভয় দলের ন্যাশনাল কমিটি।

কমিটি চাইলে ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থীকে বা দলের মধ্য থেকেই অন্য কাউকে মনোনয়ন দিতে পারে। তবে এই নির্বাচন প্রক্রিয়া স্ব স্ব দলের আইনের ওপর নির্ভরশীল। রিপাবলিকান পার্টির ক্ষেত্রে ট্রাম্পের বিকল্প হিসেবে কাউকে মনোনয়ন দিতে হলে দলের ১৬৮ জন সদস্যের সবাইকে মিলিত হয়ে ভোটাভুটির মাধ্যমে কাউকে নির্বাচন করতে হবে।

উল্লেখ্য, চিকিৎসার প্রয়োজনে সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ দুইবার এভাবে অস্থায়ীভাবে দায়িত্ব হস্তান্তর করেছিলেন। এছাড়া অস্ত্রোপচারের কারণে আরেক সাবেক প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যানও একবার ভাইস প্রেসিডেন্টের হাতে অস্থায়ীভাবে দায়িত্ব হস্তান্তর করেছিলেন।

শনিবারের চিঠি/ আটলান্টা/ অক্টোবর ০৩, ২০২০

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৭:৫১ অপরাহ্ণ | শনিবার, ০৩ অক্টোবর ২০২০

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com