স্বাস্থ্যবিধি এবং সামাজিক দূরত্বের শর্তসাপেক্ষে

জর্জিয়ায় ঈদুল আযহার প্রথম জামাত আল ফারুকে সকাল ৭ টায়

শুক্রবার, ৩১ জুলাই ২০২০

জর্জিয়ায় ঈদুল আযহার প্রথম জামাত আল ফারুকে সকাল ৭ টায়
শনিবারের চিঠির পক্ষ থেকে পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা ।। ঈদু মুবারক

মহামারি কভিড-নাইনটিনের প্রাদূর্ভাবে জর্জিয়ায় আসন্ন ঈদুল আযহার নামায অনুষ্ঠিত হবে কি হবে না ? হবে এ নিয়ে জর্জিয়ায় বসবাসরত মুসসমান সম্প্রদায়ের মধ্যে একটি শংকা চলতেছিল । এই মাত্র জানা গেল সে শংকা কাটিয়ে সিডিসির প্রদত্ত স্বাস্থ্যবিধি এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে  শর্তসাপেক্ষে আগামিকাল জর্জিয়ার কেন্দ্রীয় মসজিদ আল ফারুক মসজিদ অব আটলান্টা, মসজিদ ওমর বিন আব্দুল আজিজ, মসজিদ দারুস সালামসহ জর্জিয়ার বিভিন্ন মসজিদের পবিত্র ঈদুল আযহার নামায অনুষ্ঠিত হবে ।

প্রায় পাঁচ হাজার বছর আগে হযরত ইব্রাহিম (আঃ) আল্লাহ তায়ালার নির্দেশে নিজের প্রাণপ্রিয় সন্তান হযরত ইসমাইলকে কোরবানী করতে উদ্যত হয়েছিলেন, যা সর্বকালের মানব ইতিহাসে ত্যাগের সর্বোচ্চ নিদর্শন। কিন্ত আল্লাহর অশেষ কুদরত ও রহমতে ইসমাইলের পরিবর্তে কোরবানী হলো একটি দুম্বা। এর মাধ্যমে হযরত ইব্রাহিম (আঃ) ত্যাগের চরম পরীক্ষায় আল্লাহর দরবারে উত্তীর্ণ হয়ে যান। তারপর থেকে বিশ্বের মুসলমানদের জন্য জিলহজ্ব মাসের ১০ তারিখে পবিত্র ঈদুল আজহার দিনে হালাল পশু কোরবানী করার রেওয়াজ চালু হয়। ইসলামী শরিয়তে সামর্থ্যবানদের জন্য পশু কোরবানী করা ওয়াজিব। পশু কোরবানীর কারণে ঈদুল আজহা বাঙালি সমাজে “কোরবানীর ঈদ” নামে পরিচিত।


পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে জর্জিয়ায় বিভিন্ন মসজিদ ও সামাজিক সংঠন পবিত্র ঈদুল আযহার জামাতের আয়োজন করেছে।

জর্জিয়ায় ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠি হবে ডাউন টাউনে  আটলান্টায় আল-ফারুক মসজিদ অব আটলান্টায় যথাক্রমে সকাল সাড়ে ৭ টা, ৮ টা, সাড়ে ৮টা ও সকাল ন’টায় ৪টি জামাত অনুষ্ঠিত হবে । মসজিদ ওমর বিন আব্দুল আজিজে সকাল সাড়ে ৭ টা, সাড়ে ৮ টা ও সকাল সাড়ে ন’টায় ৩ টি জামাত, মসজিদ দারুস সালামে সকাল সাড়ে ৭ টা ও সকাল সোয়া ৮ টায় দু’টি জামাত অনুষ্ঠিত হবে ।

জর্জিয়া ইসলামিক সেন্টার লরেন্সভিল,  ইসলামিক সেন্টার অব নর্থ ফুলটন আলফারাটা, ইবাদুর রহমান দাওয়াহ্ সেন্টার মেরিয়াটা, আটলান্টা মসজিদ আল ইসলাম, মসজিদ মুমিন, আত্তাকোয়া মসজি, মসজিদ আবু বকরে বিভিন্ন সময়ে পবিত্র  ঈদুল আযহার জামাত অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে।

মসজিদে  ঈদুল আজহার নামাজ আদায় করতে নিন্মে বর্ণিত শর্তসমূহ মানতে হবেঃ

১. ১০ বছরের নিন্মে  বা ৬৫ বছরের উর্ধে এবং মহিলা মুসল্লিরা জামাতে অংশ গ্রহণ করতে পারবে না।

২. প্রত্যেক মুসল্লিকে  অবশ্যই মাস্ক পরে মসজিদে আসতে হবে। মাস্কে অবশ্যই নাক এবং মুখমণ্ডল ঢাকা থাকতে হবে ।

৩.মুসল্লিদের বাসা থেকে ওজু করে ও সুন্নত নামাজ আদায় করে আসতে হবে। নামাযের পর সুন্নত বা অন্যান্য নামাযও বাসায় ফিরে আদায় করতে হবে ।

৪.নামাযের লাইনে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে ৬ ফুট পরপর দাঁড়াতে হবে এবং এক লাইন বাদ দিয়ে পরের লাইন তৈরি করতে হবে।

৫.অসুস্থ ব্যক্তিরা মসজিদের চেয়ার টেবিল ব্যবহার করে জামাতে অংশ নিতে পারবে না। এ ক্ষেত্রে বাড়ি থেকে চেয়ার টেবিল আনতে হবে।

৬.মসজিদে সংরক্ষিত জায়নামাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না। নিজ নিজ জায়নামাজ বাড়ি থেকে নিয়ে আসতে হবে এবং নামায শেষে বাড়িতে ফিরেয়ে নিতে হবে । মসজিদ প্রাঙ্গণে রাখা যাবে না।

৭.হাতে হাত মিলানো বা কোলাকুলি করা যাবে না। সামাজিক দূরত্ব মেনে ভার্চুয়াল  কুশলাদি আদান প্রদান করা যেতে পারে ।

শনিবারের চিঠি / আটলান্টা/ জুলাই ৩০, ২০২০

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, ৩১ জুলাই ২০২০

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com