গো-মাংস ভক্ষণ নিয়ে ভারতীয় সরকারের মন্ত্রীদের মতপার্থক্য

বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০১৫

গো-মাংস ভক্ষণ নিয়ে ভারতীয় সরকারের মন্ত্রীদের মতপার্থক্য

 

imagesনয়াদিল্লীঃ ভারতে গো-মাংস ভক্ষণ নিয়ে কেন্দ্রের এনডিএ সরকারের মন্ত্রীদের মধ্যেই মতপার্থক্য প্রকাশ্যে এল। কেন্দ্রীয় সংখ্যালঘু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মুক্তার আব্বাস নকভি সম্প্রতি বলেছেন, ‘যারা গো-মাংস ভক্ষণ না করে থাকতে পারছেন না, তাদের পাকিস্তানে চলে যাওয়া উচিত’।


কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী কিরণ রিজু নকভির মন্তব্যের বিরোধিতা করে বলেছেন, নকভির মন্তব্য ‘রুচিসম্মত’ নয়। মণিপুরের আইজলে তিনি বলেছেন, ‘আমি গরুর মাংস খাই। আমি অরুণাচলের বাসিন্দা। আমাকে গরুর মাংস খাওয়া থেকে কেউ আটকাতে পারে’?

রিজু আরও বলেছেন, হিন্দু অধ্যূষিত রাজ্যগুলি গো-হত্যা বন্ধ করার জন্য আইন প্রণয়ন করতে পারে। কিন্তু সেগুলি উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলিতে প্রয়োগ করা যায় না। কারণ, এখানে তো সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের খাদ্য গো-মাংস।

নকভি-র মন্তব্যকে ‘ভালো নয়’ বলেও মন্তব্য করে রিজু বলেছেন, সংখ্যালঘু উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী বাক স্বাধীনতার ব্যবহার করেছেন। সম্প্রতি কয়েকটি রাজ্যে গো-হত্যা নিষিদ্ধ করে আইন করা হয়েছে। রিজু বলেছেন, দেশের সমস্ত মানুষের সংস্কৃতি, ঐতিহ্য, অভ্যাস ও আবেগ-অনুভূতিকে গুরুত্ব দিতে হবে এবং সম্মান করতে হবে।

বিজেপি মন্ত্রীদের এই মতবিরোধকে কাজে লাগাতে আদৌ সময় নেয়নি কংগ্রেস। টুইটারে কংগ্রেস মুখপাত্র শাকিল আহমেদের কটাক্ষ, ‘মোদি সরকারের স্বরাষ্ট্র দফতরের প্রতিমন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা কিরণ রিজু বলেছেন, আমি গরু মাংস খাই। তাহলে মুক্তার আব্বাস নকভি কখন নিজেদের মন্ত্রীকে পাকিস্তানে পাঠাচ্ছেন’?

নকভি সম্প্রতি বলেছিলেন, যারা গোমাংস ভক্ষণ না করে থাকতে পারছেন না, তাদের পাকিস্তানে চলে যাওয়া উচিত। যদিও পরে ওই মন্তব্যের সাফাই দিতে গিয়ে নকভি বলেন, খাদ্যাভ্যাস নিয়ে লক্ষ লক্ষ মানুষের ভাবাবেগকে আহত করা যায় না।

নকভি আরও বলেন, এটা বিতর্কের বিষয় নয়। এটা সত্যিই কোটি কোটি মানুষ গরুকে পবিত্র ভাবেন, পুজো করেন এবং গোমাতা হিসেবে অভিহিত করেন। তেমনই মুসলিম অধ্যূষিত এলাকায় কেউ যদি শুয়োরের মাংস খাওয়ার কথা বলেন তাহলে তা সকলে মেনে নেবেন না। তাই এক্ষেত্রে সঠিক বিবেচনাবোধের প্রয়োজন রয়েছে। গরুকে যারা পবিত্র মনে করেন তাঁদের সামনে গো-হত্যাটা ঠিক নয়।

শনিবারের চিঠি / আটলান্টা / ২৮ মে ২০১৫

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৬:১৩ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০১৫

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com