গারো তরুণী ধর্ষক ১০ দিনের রিমান্ডে

বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০১৫

গারো তরুণী ধর্ষক ১০ দিনের রিমান্ডে

 

ঢাকাঃ রাজধানীর কুড়িলে মাইক্রোবাসে তরুণী ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার তুষার ও লাভলুর ১০ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (২৮ মে) তুষার ও লাভলুকে ঢাকার সিএমএম আদালতে হাজির করে দশদিনের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন জানিয়েছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ভাটারা থানার ওসি (তদন্ত)। দুপুরে পরে শুনানি শেষে এ আবেদন মঞ্জুর করেন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট অমিত কুমার দে’র আদালত। মঙ্গলবার (২৬ মে) দিনগত রাতে আশরাফ খান তুষারকে পটুয়াখালী কলাপাড়ার কুয়াকাটা থেকে এবং চালক লাভলুকে রাজধানীর গুলশান-১ নম্বর থেকে আটক করে পুলিশে হস্তান্তর করে র‍্যাব।


পরে বুধবার সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব জানায়, মঙ্গলবার মধ্যরাতে পর পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া থেকে তুষারকে পরে তার দেয়া তথ্য মতে রাজধানীর গুলশান থেকে লাভলুকে গ্রেপ্তার করা হয়। এই দুজন ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে বলেও সংবাদ সম্মেলনে দাবি করে র‌্যাব।

বৃহস্পতিবার রাতে কর্মস্থল থেকে ফেরার পথে কুড়িলে মাইক্রোবাসে তরুণী ধর্ষণ ঘটনার পর দেশজুড়ে যখন তোলপাড় তখনই ঘটনার সঙ্গে সরাসরি জড়িত সন্দেহে দু’জনকে গ্রেপ্তার করলো র‌্যাব।মঙ্গলবার মধ্যরাত ও বুধবার ভোরে দুজনকে গ্রেপ্তারের পর দুপুরে হাজির করা হয় গণমাধ্যমের সামনে। আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক জানান, একটি বাইং হাউজের গাড়িচালক তুষারের সঙ্গে ওই তরুণীর প্রথম কথা হয়।

সেদিন তরুণীর কর্মস্থল একটি কাপড়ের দোকানে সে গিয়েছিলো কেনাকাটার জন্য। তখন কৌশলে মেয়েটির ফোন নম্বর সংগ্রহ করে সে। পরের দিন বেশি বেতনে চাকরি দেয়ার বিষয়ে ফোনে কথা বলে সে। এক পর্যায়ে ঘটনার দিন আবারো ফোন দিয়ে যমুনা ফিউচার পার্কের সামনে দেখা করতে বলে তুষার ও লাভলু একটি রেস্টুরেন্টে অপেক্ষা করতে থাকে।

রাত নয়টার দিকে মেয়েটি এলে তাকে বাসায় পৌঁছে দেয়ার প্রস্তাব দেয় তুষার। মেয়েটি যেতে অস্বীকৃতি জানালে জোর করে গাড়িতে তুলে দু’জনই শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে। পরে উত্তরার একটি সড়কে ফেলে যায় তাকে।

কমান্ডার মুফতি মাহমুদ বলেন, ‘আটককৃত তুষার এবং জাহিদুল ইসলাম লাভলু এই দু’জনই নির্যাতনের সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ততার কথা আমাদেরকে অবগত করেছে। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই মেয়েটিকে হাত ধরে মাইক্রোবাসে উঠায় এবং একপর্যায়ে মেয়েটি চিৎকার করলে তাকে ভয়ভীতি দেখানো হয়।’

ঘটনার পর ওই তরুণীর উদ্ধৃতি দিয়ে পুলিশ জানায়, ধর্ষণ ঘটনার সঙ্গে জড়িত ছিলো পাঁচজন। তবে র‌্যাবের সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয় পাঁচ জন নয় পুরো ঘটনার সাথে জড়িত ছিলেন দুইজন।কমান্ডার মুফতি মাহমুদ আরও বলেন, ‘আমরা যাদেরকে আটক করেছি, তাদেরকে যথেষ্ট তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতেই আটক করেছি।’গ্রেপ্তার দু’জনকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে র‌্যাব।

শনিবারের চিঠি / আটলান্টা / ২৮ মে ২০১৫

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৬:১০ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ২৮ মে ২০১৫

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com