গর্ভপাতের পক্ষে প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নির্বাহী আদেশ জারি

শনিবার, ০৯ জুলাই ২০২২

গর্ভপাতের পক্ষে প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নির্বাহী আদেশ জারি
প্রতিকী ছবি

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন গর্ভপাতের পক্ষে নির্বাহী আদেশ জারি করে কংগ্রেসকে স্থায়ী সমাধানে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন। সম্প্রতি মার্কিন সুপ্রিম কোর্টে গর্ভপাতের পক্ষের একটি বিখ্যাত মামলা ‘রো বনাম ওয়েইড’ মালার রায় পাল্টে যায়। ফলে আমেরিকাজুড়ে গর্ভপাতের পক্ষে যে ফেডারেল সুরক্ষা ছিল, তা উঠে যায়। গর্ভপাত শাস্তিযোগ্য অপরাধ হয়ে দাঁড়ায়।

মার্কিন সমাজে গর্ভপাত নিয়ে বিতর্ক চলছে বহুদিন থেকে। উদারনৈতিকরা গর্ভপাতকে বেআইনি করার বিপক্ষে। এ নিয়ে রক্ষণশীলদের অবস্থানও খুবই কড়া। চার্চ , বিভিন্ন ধর্মীয় গোস্টি মাতৃগর্ভে জীবন শুরু হওয়ার পর ভ্রূন হত্যা নিষিদ্ধ ও শাস্তিযোগ্য করার পক্ষে। এরইমধ্যে আমেরিকার বহু রাজ্যে গর্ভপাত সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে এবং তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ।


ধর্ষণের শিকার বা অনাকাঙ্ক্ষিত গর্ভধারণের সমস্যা থেকে বাঁচার জন্য মার্কিন নারীদের অধিকাংশই গর্ভপাতের পক্ষে। নিজেদের শরীরের সমস্যা নিয়ে নিজেদেরই সিদ্ধান্ত নেয়ার অধিকারের দাবি তাদের। রাষ্ট্রযন্ত্র সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দিতে পারে না বলে উদারনৈতিকরা মনে করেন। রক্ষণশীলরা মনে করেন গর্ভাপাত নিষিদ্ধ করলে অনাচার বন্ধ হবে। পাশাপাশি জনগণের ট্যাক্সের অর্থে জন্মনিয়ন্ত্রণের নামে, গর্ভপাতের নামে অর্থের অপচয় রোধ করা সম্ভব হবে। রক্ষণশীলরা গর্ভপাতকে খুনের মতো অপরাধ হিসেবে হিসেবে বিশ্বাস করে।

গত মাসে সুপ্রিম কোর্ট গর্ভপাত নিষিদ্ধের পক্ষে রায় প্রদান করলে আমেরিকাজুড়ে আন্দোলন শুরু হয়েছে। ওয়াশিংটনে এ নিয়ে উত্তপ্ত। গর্ভপাতের পক্ষে আইন প্রণয়ন করার জন্য কংগ্রেসে পর্যাপ্ত সংখ্যাগরিষ্ঠতা নেই। অন্তত সিনেটে রিপাবলিকান দুইজন সদস্যের সমর্থন পেলে কংগ্রেস এ নিয়ে আইন প্রণয়ন করতে সক্ষম হতো। আসছে নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট দল প্রতিনিধি পরিষদেও সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ফলে গর্ভপাত বিতর্ক আমেরিকার রাজনীতিতে একটি প্রধান বিতর্ক হয়ে দাঁড়িয়েছে এই মুহূর্তে।

৮ জুলাই হোয়াইট হাউসে এ নিয়ে নির্বাহী আদেশ জারি করে গর্ভপাতের পক্ষে লোকজনের জন্য কিছু সুবিধা উন্মুক্ত করেছেন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। যুক্তিসঙ্গত গর্ভপাত করার কারণে অপরাধ আইনে মামলায় পড়া এবং স্বাস্থ্য সেবায় গর্ভপাত ও জন্মনিয়ন্ত্রণের জন্য ওষুধপত্রের সুবিধা উন্মুক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে স্বাস্থ্য শিক্ষার সুযোগ বৃদ্ধি করা হয়েছে নির্বাহী আদেশে মাধ্যমে। গর্ভপাতের জন্য সরকারি জরুরি স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করা হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, এ নির্বাহী আদেশ সমস্যার সমাধান নয়। সমস্যার সমাধানের জন্য আসছে নির্বাচনে সবাইকে ভোট দিতে হবে। নিজেদের পক্ষে নিজ নিজ এলাকায় ভোট দিয়ে গর্ভপাতের পক্ষে আইন প্রণয়নে কংগ্রেসকে বাধ্য করতে হবে বলে তিনি বলেছেন। হোয়াইট হাউস থেকে দেয়া বিবৃতিতে বলা হয়েছে, গর্ভপাত নিয়ে নারীদের অধিকার রক্ষার একমাত্র উপায় হচ্ছে সুপ্রিম কোর্টের আদেশে পাল্টে যাওয়া আইনকে মোকাবেলা করে নতুন আইন প্রণয়ন করা। এ কাজটি আইন প্রণেতাদের করতে হবে। সাময়িকভাবে গর্ভপাতের অধিকার সংরক্ষণের জন্য চিকিৎসা সুবিধা ও কিছু আইনগত রক্ষা দেয়া হচ্ছে নির্বাহী আদেশের মাধ্যমে। প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সুপ্রিম কোর্টের আদেশ পাল্টে দেয়ার মতো কোনো নির্বাহী আদেশ জারি করতে পারেন না। এমন নির্বাহী আদেশে আমেরিকাজুড়ে গর্ভপাত বৈধ হয়ে যাবে না। হোয়াইট হাউস থেকে বলা হয়েছে, জনগণ যেন আসছে নির্বাচনে স্ব স্ব এলাকায় গর্ভপাতের পক্ষের লোকজনকে নির্বাচিত করেতে পারেন। এজন্য তাদের ভোট দিতে হবে গর্ভপাতের পক্ষের লোকজনকে। আইন প্রণেতাদেরই এ সমস্যার সমাধানে আইন প্রণয়ন করতে হবে।

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৭:২৯ অপরাহ্ণ | শনিবার, ০৯ জুলাই ২০২২

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com