ক্ষতি নিরুপণে সুন্দরবনে বিশেজ্ঞ দল

শনিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৪

ক্ষতি নিরুপণে সুন্দরবনে বিশেজ্ঞ দল

 

tigবাগেরহাটঃ সুন্দরবনের শ্যালা নদীতে ‘ওটি সাউদার্ন স্টার সেভেন’ নামে একটি তেলবাহী ট্যাংকার ডুবির ঘটনায় ছড়িয়ে পড়া তেলের কারণে ঐ এলাকায় জলজ ও পরিবেশগত ক্ষতি নিরূপণে বিশেষজ্ঞ দল সুন্দরবন গেছে।


এদিকে পানিতে ভেসে থাকা তেলের কার্যকারিতা নষ্ট করতে নদীতে জাহাজ দিয়ে স্প্রে করার বিষয়টি পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য পেছানো হয়েছে। এর আগে বাংলাদেশে সুন্দরবনের শ্যালা নদীতে ছড়িয়ে পড়া তেল বালতিসহ বিভিন্ন পাত্রের মাধ্যমে সংগ্রহ করার জন্য আশে-পাশের গ্রামগুলোর মানুষ এবং জেলেদের প্রতি আহবান জানানো হয়।

স্থানীয় প্রশাসনের তথ্যমতে, এই সংগ্রহ করা তেল রাষ্ট্রীয় একটি তেল সংস্থা প্রতি লিটার ৩০ টাকা করে কিনবে।

প্রশাসন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, স্থানীয় লোকদের সাহায্যে পুরোনো এই পদ্ধতিতে যতটা সম্ভব হবে তেল সরানোর পর বাকি তেলের কার্যকারিতা নষ্ট করতে নদীতে জাহাজ দিয়ে স্প্রে করা হবে।

বন বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ডুবে যাওয়া ট্যাংকারটিকে তিনদিন পর উদ্ধার করা হলেও নদীতে ৬০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে তেল ছড়িয়ে থাকার বিষয়টিই ডলফিনসহ জলজ প্রাণী এবং সুন্দরবনের জন্য বড় সমস্যা হয়ে রয়েছে। ঘটনার তিনদিনের মাথায় তেল ট্যাংকারটিকে উদ্ধার করে নদীর তীরে নেয়া হয়েছে। কিন্তু ট্যাংকারে থাকা সাড়ে তিন লাখ লিটার তেলের সবই শ্যালা নদীতে এবং সুন্দরবনের খালগুলোতে ছড়িয়ে পড়েছে বলে কর্মকর্তারা বলেছেন।

শেষপর্যন্ত এখন গ্রামবাসী এবং জেলেদের উদ্বুদ্ধ করে নদী থেকে তেল সরানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। স্থানীয় প্রশাসন, বনবিভাগ এবং নৌবাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট সব সংস্থাগুলোর বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত এসেছে।

প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার পূর্ব সুন্দরবনের চাঁদপাই রেঞ্জের শ্যালা নদীতে মালবাহী জাহাজের ধাক্কায় ‘ওটি সাউদার্ন স্টার সেভেন’ নামে একটি তেলবাহী ট্যাংকার ডুবে যায়। এঘটনায় নদীর উপর ফার্নেস তেলের ভারী আস্তরণ জমা পড়ায় পানিতে প্রয়োজনীয় অক্সিজেন প্রবাহে বাধার সৃষ্টি হয়। ফলে এই বিশ্বের সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বনের জীববৈচিত্র এখন মারাত্মক হুমকির মুখে পতিত হয়েছে। শুধু শ্যালা নদীই নয়, এ নদীর শাখা প্রশাখা দিয়ে এসব ফার্নেস তেল ছড়িয়ে পড়েছে সুন্দরবনের আরো গভীরে। সুন্দরবনের যে অংশে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে, সে অঞ্চল সরকার ঘোষিত ডলফিনের অভয়ারণ্য। ট্যাংকারের তেল ছড়িয়ে পড়ায় এসব বিলুপ্তপ্রায় ডলফিনও মরতে শুরু করেছে। সুন্দরবন ও এর আশপাশের জেলেদের ভাষ্য অনুযায়ী, তারা বিভিন্ন নদীতে মাছ ভাসতে দেখেছেন।

নদীতে তেল ছড়িয়ে পড়ায় শুধু বিলুপ্তপ্রায় ডলফিনই নয় বরং বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই শ্বাসমূলীয় বনের গাছপালা, মাছ ও বন্য প্রাণীর জন্য এক মহাবিপর্যয়ে পড়েছে। কারণ পানিতে তেলের আস্তরণ প্রাণের অস্তিত্বের জন্য বিরাট হুমকি। আশ্চর্যের বিষয় হলো, দুর্ঘটনার পর ১২ ঘণ্টা পার হয়ে গেলেও বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কিছু জানতেন না। জাহাজ উদ্ধার ও তেল অপসারণের কোনো উদ্যোগও নেওয়া হয়নি।

ইতোমধ্যে তেলবাহী ট্যাংকারডুবির ঘটনা ওই অঞ্চলের পানিসহ বনাঞ্চলের প্রাণীদের উপর মারাত্মক ক্ষতিকর প্রভাব ফেলবে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক পরিবেশবাদী সংগঠন ওয়াইল্ডলাইফ কনজারভেশন সোসাইটি। তাদের উদ্বেগানুযায়ী, জীববৈচিত্র্য ও পরিবেশের ওপর প্রভাব পড়লে তা সুন্দরবনের ঐতিহ্যের খেতাবের ক্ষেত্রে মারাত্মক হুমকি হয়ে দেখা দেবে।

এর আগে দুর্ঘটনাকবলিত ট্যাংকারের সুপারভাইজার ওয়ালিউল্লাহ জানিয়েছেন, সংকেতের তোয়াক্কা না করে পরিকল্পিতভাবেই এমভি সাউদার্ন স্টার-৭ ট্যাংকারে ধাক্কা দেয় এমভি টোটাল ট্যাংকার।

তিনি জানান, সোমবার বিকেল ৪টার দিকে জয়মনি ঘোল থেকে ট্যাংকারটি রওয়ানা দেয়। ঘন কুয়াশার কারণে ট্যাংকারটি মঙ্গলবার রাতে নোঙর করে তিনি দাঁড়িয়ে ছিলেন। তখন তিনি আরেকটি ট্যাংকার আসতে দেখেন। ওই ট্যাংকারকে বেশ কয়েকবার সংকেত দেওয়া হয়। কিন্তু সংকেতের তোয়াক্কা না করে পরিকল্পিতভাবেই ধাক্কা দেয় এমভি টোটাল। ট্যাংকার ডুবে যাওয়ার পর প্রশাসনকে জানান হয়। কিন্তু তারা কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

জানা গেছে, সুন্দরবনে ডুবে যাওয়া তেলবাহী জাহাজ ‘ওটি সাউদার্ন স্টার-৭’ সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরে নিবন্ধিত না। এটির লাইসেন্স দিয়েছে পেট্রোবাংলা।

সমুদ্র পরিবহন অধিদফতরের মহাপরিচালক কমোডর জাকিউর রহমান ভুঁইয়া এ তথ্য জানিয়ে বলেন, সমুদ্র পথে তেল পরিবহনের জন্য যে ধরনের ক্র্যাইটেরিয়া (উপযোগিতা) থাকার কথা, তা এ জাহাজে ছিল না। তা ছাড়া এগুলো অভ্যন্তরীণ নদীপথে তেল পরিবহন করার জন্য, যা ডিপো থেকে সরাসরি গ্রাহকের কাছে পৌঁছে দেয়। তেলবাহী জাহাজের জন্য যে ধরনের স্ট্যান্ডার্ড থাকার কথা তা এই জাহাজে নেই। এ জাহাজের লাইসেন্স তারা দেননি। ২০১০ সালে কুইক রেন্টাল পাওয়ার প্ল্যান্টের জন্য পেট্রোবাংলা এ সব জাহাজের লাইসেন্স দেয়। সে সময় থেকে এ জাহাজগুলো তেল পরিবহন করে আসছে।

 

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ১০:৩৯ পূর্বাহ্ণ | শনিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৪

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com