ক্যানভাসে অপার্থিব মানব-মানবী

শুক্রবার, ২১ নভেম্বর ২০১৪

ক্যানভাসে অপার্থিব মানব-মানবী

 

শহিদুল ইসলাম মিন্টু


 

Mintuছবি যেকোনো মাধ্যমেই হোক, গভীরতা ও আকর্ষণ করার ক্ষমতা থাকলেই সার্থক ছবি হতে পারে বলে আমার বিশ্বাস। শিল্পী সৈয়দ ইকবালের সম্প্রতি ১৬তম একক চিত্রপ্রদর্শনী হলো ১৭ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর কানাডার গ্রেটার টরন্টো মিসিসাগা প্রমেনেড গ্যালারিতে। প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশের কৃতি সন্তান কানাডার অ্যাকাডেমিক গগনে উর্ধ্বে থাকা মানুষ ড. অমিত চাকমা, প্রেসিডেন্ট ও ভাইস চেন্সেলার ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি, কানাডা।

উদ্বোধনকালে তিনি বলেন, ‘সৈয়দ ইকবালের ছবিতে একরকম আকর্ষণ আছে যা কাছে টানে, নিজর বলয়ে টেনে নেয়।’ বিশেষ অতিথি সিটি কাউন্সিলার জিম টুভে ও সাউথ এশিয়ান গ্যালারি অব আর্ট টরন্টো-এর সিইও আলী আদিল খান প্রায় একই রকম কথা বলেন।

২০১৩-তে সেপ্টেম্বরে ঢাকার ধানমন্ডি বেঙ্গল গ্যালারি অব ফাইন আর্টসে তাঁর ‘কালার ফ্রম সোল’ ১৫তম প্রদর্শনী হয়েছিল, ২০১৪ অক্টোবরে হলো ১৬তম কানাডায়। প্রমেনেড গ্যালারি একেবারে অন্টারিও লেকের পাড়ে। সব সময় জলে ছোঁয়া শীতল বাতাস এসে গায়ে লাগে। ২৮টি বড়-ছোট ছবি নিয়ে এই প্রদর্শনী। পরিচিত ‘টিয়ার্স অব নেচার’, ‘মাইন্ডস্কেপ’, ‘আওয়ার ওমেন’, ‘বাটারফ্লাইম্যান’ সিরিজের তেমন ছবি ছিল না এ প্রদর্শনীতে। শুধু দুটি করে চারটি ‘মাইন্ডস্কেপ’ ও ‘মেমোরি অব লাভ’ ঢাকা থেকে আনা। বাকি ২৪টি ছবি টরন্টোতে বসে করা। নতুন সিরিজ ‘মাইন্ড দ্য গ্যাপ’-এর ৫ ফুট বাই ৫ ফুট চারটি ছবি। গৌতম বুদ্ধের বাণীনির্ভর ‘গৌতমা’ সিরিজের ৮টি ছবি। ‘আরবান ট্রেপ’ একটি।

ব্লু রঙের নানা সেডে আঁকা ‘মাইন্ড দ্য গ্যাপ’ সম্পর্কে কয়েক লাইন বিস্তার করলে পাঠক বুঝবেন। ছবির জমিন বা ব্যাকগ্রাউন্ড যা বোঝায় ইকবাল তা তৈরি করেছেন আল্টামেরিন, কোবাল্ট, টার্কিশ ব্লু দিয়ে। ব্যাকগ্রাউন্ডে মহাশূন্যতা আর উজ্জ্বল নক্ষত্র ছড়ানো-ছিটানো। ফোরগ্রাউন্ডে পরস্পরের দিকে হাত বাড়িয়ে দাঁড়িয়ে আছে দুই ক্যানভাসে দুই অপার্থিব মানব-মানবী।

যেন আহবান করছে—আয়, আয়। সাবওয়ে স্টেশনে যেমন হলুদ দাগ দিয়ে তার মাঝে লেখা থাকে ‘মাইন্ড দ্য গ্যাপ’ ছবির নিচে কোনায় তেমনি লেখা রয়েছে। দাগ অতিক্রম করে এগুলে যেমন দ্রুতগামী ট্রেনের ধাক্কায় থেতলে টুকরো-টুকরো হতে হবে। তবে জেন্ডারের মিলন গতি তো আরো তীব্র। আপেল দিয়ে ঠেকানো যায় না। আপেল কেটে দুই টুকরো করে ভেতরটা দেখলেই বোঝা যায়। ‘আরবান ট্রেপ’ ছবিটির সামনে দাঁড়ালে মনে হয়, বিশাল সিটি ম্যাপ খোপ-খোপ নানা রঙের মিলনে একত্রিত এক রঙিন শহুরে ট্রেপ। গ্রামের সবুজ বুকে নিয়ে এসে চিরতরে শহরে আটকে পড়া। ‘মেমোরি অব লাভ’ ছবির কাজের ধরন একেবারে অন্য ছবি থেকে আলাদা। ছবির সাদা জমিনে সাদা রঙের মডেলিং পেস্ট দিয়ে টেকচার কিলবিল করছে, নিচের দিকে ছাইরঙা বর্ডারের ঠিক মাঝখানে টকটকে লাল ত্রিভুজে বন্দি একলা নারীর দেহভঙ্গী। ত্রিভুজের ওপরদিকে সাদা জমিনে বাংলা, ইংরেজি ও ফ্রেঞ্চে লেখা ত্রিভুজ টানের মর্মবাণী। সাদা কাগজে কালো কালিতে করা বেশকিছু বড় ড্রইং ‘টু ম্যান উইথ বার্ড’, ‘ওমেন উইথ বার্ড’ দুই-তিন টানে দ্রুত করা কাজ বলেই হয়তো ফোর্স অটুট, গতিময়।

প্রদর্শনীটি টরন্টোর প্রিন্ট মিডিয়া ও টিভি ভালোভাবে নিয়েছে, বিশেষ করে টরন্টো রজার্স টিভির সাউথ এশিয়ান ফোকাসে সৈয়দ ইকবালের বিস্তারিত সাক্ষাত্কার ব্রডকাস্ট করেছে।

 

শহিদুল ইসলাম মিন্টুঃ সম্পাদক, দ্য বেঙ্গলি টাইমস

 

 

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৮:৫০ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ২১ নভেম্বর ২০১৪

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com