কাকার পরীক্ষায় ভাতিজা ধরা

শনিবার, ১৮ এপ্রিল ২০১৫

কাকার পরীক্ষায় ভাতিজা ধরা

 

রাজশাহী: কাকা পালন কুমারের বিশ্বাস ভাতিজা শরৎচন্দ্র অনেক মেধাবী। নিয়োগ পরীক্ষায় বসলে সে নির্ঘাত সবাইকে টপকে যাবে। যেই না ভাবা, সেই কাজ। ভাতিজাকে অনুরোধ করলেন নিয়োগ পরীক্ষায় তাকে সবার উপরে পৌঁছে দিতে।


কাকার কথামতো ভাতিজা শরৎচন্দ্র দাস গুপ্ত (২৩) শুক্রবার সকালে গেলেন বাংলাদেশ রেলওয়েতে স্টোর মুন্সি পদে পরীক্ষা দিতে। কেন্দ্র ছিল রাজশাহী সরকারি মহিলা কলেজে। পালন কুমারের সিট পড়ে কেন্দ্রের ১০৫ নম্বর কক্ষে।

পরীক্ষা চলাকালিন কক্ষের পরিদর্শক রাজশাহী রেলওয়ের প্রধান সংস্থাপন কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার সাহা ও অধ্যাপক মনোয়ারা বেগম বিষয়টি জানতে বুঝতে পারেন। পরে শরৎচন্দ্রকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়।

শরৎচন্দ্র দাস গুপ্ত রাজশাহী মহানগরীর সিটি কলেজের গণিত বিভাগের অনার্স তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ও চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনা এলাকার সুনীল চন্দ্র দাস গুপ্তের ছেলে। আর তার কাকা পালন কুমার নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার মৃত সত্য নারায়নের ছেলে। সম্পর্কে তারা কাকা ভাতিজা।

রাজশাহী রেলওয়ের প্রধান সংস্থাপন কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার সাহা জানান, শুক্রবার সকাল ১০টায় রেলওয়ে স্টোর মুন্সি পদে নিয়োগের জন্য লিখিত পরীক্ষা চলছিলো। লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেয়ার কথা ছিলো পালন কুমারের। তবে তার পরিবর্তে পরীক্ষায় অংশ নিতে আসে শরৎচন্দ্র দাস গুপ্ত। পরীক্ষা চলাকালিন বিষয়টি জানতে পারা যায়। পরে তাকে বোয়ালিয়া মডেল থানা পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়। এ ঘটনায় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ বোয়ালিয়া মডেল থানায় একটি মামলা করেছে।

রাজশাহী বোয়ালিয়া মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই মশিউর রহমান জানান, পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের স্টোর মুন্সি পদের নিয়োগ পরীক্ষা নগরীর বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্য সরকারি মহিলা কলেজ কেন্দ্রে শরৎ চন্দ্র দাসগুপ্ত নামের এক ভুয়া পরীক্ষার্থীকে আটক করা হয়। দুপুরে তাকে কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

 

শনিবারের চিঠি / আটলান্টা / ১৮ এপ্রিল ২০১৫

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৬:০৬ পূর্বাহ্ণ | শনিবার, ১৮ এপ্রিল ২০১৫

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com