ওকলাহোমায় ভূমিকম্প

সোমবার, ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬

ওকলাহোমায়  ভূমিকম্প

পনী,ওকলাহোমাঃ গত শনিবার ৩ সেপ্টেম্বর সকালে ৫.৬ মাত্রার ভূমিকম্প অনুভূত হয় অঙ্গরাজ্যটিতে। এই কম্পনে কেঁপে ওঠে ইলিনয় থেকে টেক্সাসের দক্ষিণ-পশ্চিম অংশ পর্যন্ত।

ভূতাত্ত্বিকরা ধারণা করছেন, মাটির নিচ দিয়ে তেল ও গ্যাস উত্তোলনের জন্য করা ড্রিলিংয়ের কারণে এই ভূমিকম্প সৃষ্টি হয়েছে। কেননা ভূমিকম্পটি ঘটেছে অঙ্গরাজ্যটির জ্বালানি উৎপাদনকারী এলাকায়।


ওকলাহোমার গভর্নর ম্যারি ফলিন শনিবার বিকেলে এক টুইটার বার্তায় বলেন, অঙ্গরাজ্যের ৩৭টি তেল-গ্যাস কূপকে তাঁদের কার্যক্রম আগামী সাত থেকে ১০ দিন বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ইউএস জিওলজিক্যাল সার্ভে জানিয়েছে, স্থানীয় সময় সকাল ৭টা ২০ মিনিটে ওকলাহোমার উত্তরপশ্চিমাঞ্চলে ভূমিকম্পটি অনুভূত হয়।

তবে এখন পর্যন্ত বড় কোনো দুর্ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। অবশ্য পাওনি শহরের কিছু ভবন কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানা গেছে। এর মধ্যে রয়েছে শতবর্ষী ঐতিহাসিক একটি ভবন। যার বেশ কিছু অংশ ভবনের সামনের রাস্তার ওপর ধসে পড়ে। এ ছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত এক ভবনের আহত মালিককে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল।

ওকলাহোমার জরুরি ব্যবস্থাপনা বিভাগের কর্মীরা এই মুহূর্তে পাওনি শহরের ক্ষতিগ্রস্ত ভবনগুলোর ক্ষয়ক্ষতির মাত্রা নির্ধারণ করছেন। এ ছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর আসছে কি না সে দিকেও লক্ষ রাখছে স্থানীয় প্রশাসন। কোনো ভবন ধসের খবর বা গ্যাস লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার কারণে গ্যাসের গন্ধ পাওয়া গেলে সঙ্গে সঙ্গে তা প্রশাসনকে জানাতে বলা হয়েছে।

ওকলাহোমা করপোরেশন কমিশনের মুখপাত্র ম্যাট স্কিনার বলেন, কূপের কর্মকাণ্ডের কারণে ভূ-অভ্যন্তরে ফল্ট লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে এমন আশঙ্কায় পানি শোধনকূপগুলোর কার্যক্রম বন্ধ রাখা হয়েছে।

জ্বালানি উৎপাদনকারী কূপগুলো থেকে যখন তেল ও গ্যাস বের করা হয় তখন উপজাত হিসেবে আসে হাজার হাজার ব্যারেল লবণ পানি ও ভারি ধাতব পদার্থ। পরে বিশেষ পাইপের মাধ্যমে উচ্চচাপে এসব পানিকে আবারো ভূগর্ভে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। এই তেল-গ্যাস উৎপাদন ও অপরিশোধিত পানিকে উচ্চচাপে ভূগর্ভে প্রবেশ করানোর কারণে ফল্ট লাইন ক্ষতিগ্রস্ত হয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। আর এসব কারণেই ওকলাহোমায় ভূমিকম্প হয়েছে বলে অনেক ভূতাত্ত্বিক মনে করছেন।

এর আগে ২০১১ সালেও এই অঙ্গরাজ্যে একই মাত্রার ভূমিকম্পের ঘটনা ঘটেছিল। সেই সময় অন্ততত ১৪টি বাড়ি ধসে পড়েছিল।

শনিবারের চিঠি/ আটলান্টা / সেপ্টেম্বর ০৫, ২০১৬

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ১১:৪০ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৬

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com