একাত্তরের দায়শোধে ৬ যুদ্ধাপরাধীকে ফাঁসি কার্যকর

রবিবার, ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬

একাত্তরের দায়শোধে ৬ যুদ্ধাপরাধীকে ফাঁসি কার্যকর

ডেস্ক রিপোর্টঃ ১৯৭১ সালে দেশমাতৃকার বিরুদ্ধে ছিল ওদের অবস্থান। পাকিস্তানি শাসকদের পদলেহন করেই ক্ষ্যান্ত ছিল না এ দেশের মানুষ হত্যার উৎসবে মেতেছিল ওরা। লুন্ঠন-ধর্ষণ আর হত্যায় এরা পাকিস্তানি সেনাদের নৃশংসতাকে হার মানিয়েছিল। মেতে ওঠেছিল মানবতাবিরোধী অপরাধে। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল গঠনের মধ্য দিয়ে ওইসব যুদ্ধাপরাধীর বিচার শুরুর পরও অনেকের মনে দণ্ড কার্যাকর করা নিয়ে যে দ্বিধা-সন্দেহ ছিল, তা কেটে গেছে। মুক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে একে এক ছয় যুদ্ধাপরাধীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে।

এদেশের রক্তস্নাত স্বাধীনতা অর্জনের ৩৮ বছর পর ২০০৯ সালের ২৯ জানুয়ারি জাতীয় সংসদে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল গঠনের প্রস্তাব ওঠলে সর্বসম্মতিক্রমে তা পাশ হয়। মুক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধে বিচারে ২০১০ সালের ২৫ মার্চ ট্রাইবুনাল, আইনজীবী প্যানেল এবং তদন্ত সংস্থা গঠন করা হয়। আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের সর্বোচ্চ দণ্ডপ্রাপ্ত ছয় যুদ্ধাপরাধীর ফাঁসি এ পর্যন্ত কার্যকর করা হলো। এরা হলেন- কাদের মোল্লা, কামরুজ্জামান, সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী, আলি আহসান মুহম্মদ মুজাহিদ, মতিউর রহমান নিজামী এবং সর্বশেষ গতকাল শনিবার রাতে কার্যকর হলো মীর কাসেম আলী ফাঁসি।


আব্দুল কাদের মোল্লা
image_92469২০১০ সালের ১৩ জুলাই আব্দুল কাদের মোল্লাকে গ্রেফতার করা হয়। তদন্ত শুরু হয় ২১ জুলাই। ২০১২ সালের ২৮ মে অভিযোগ গঠন করা হয়। ৩ জুলাই থেকে সাক্ষ্য শুরু হয়। যুক্তিতর্ক শেষে ২০১৩ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি কাদের মোল্লাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় শোনায় ট্রাইবুনাল-২। এই যাবজ্জীবন দণ্ডের আদেশে সাধারণ মানুষ ও তরুণদের মধ্যে প্রচণ্ড প্রতিক্রিয়া হয়। ক্ষুব্ধ মানুষ সে দিন বিকেল থেকে জড়ো হতে থাকে রাজধানীর শাহবাগে। গড়ে ওঠে শাহবাগ প্রতিবাদ গণজাগরণ মঞ্চ। গণদাবির এক পর্যায়ে সরকার আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিটি) আইন সংশোধন করে। ১৭ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক অপরাধ (ট্রাইবুনালস) সংশোধন বিল, ২০১৩ জাতীয় সংসদে পাশ করা হয়। সংশোধনের ফলে আসামী পক্ষের মতো রাষ্ট্রপক্ষও রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার সমান সুযোগের অধিকারী হয়। এর আগের আইনে দণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের আপিল করার সুযোগ ছিল না।

আইন সংশোধনের পরে ৩ মার্চ কাদের মোল্লার সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড চেয়ে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ। আর সাজা থেকে অব্যাহতি চেয়ে পর দিন ৪ মার্চ আপিল করেন কাদের মোল্লা। ১ এপ্রিল আপিলের শুনানি শুরুর ৫৫ দিন পরে ১৭ সেপ্টেম্বর প্রধান বিচারপতি মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের বেঞ্চে সংখ্যাগরিষ্ঠের মতের ভিত্তিতে কাদের মোল্লাকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেয়। ১২ ডিসেম্বর ২০১৩ রাতে তাঁর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। মানবতাবিরোধী অপরাধে কাদের মোল্লার মৃত্যুদণ্ডই বাংলাদেশে প্রথম কার্যকর হওয়া যুদ্ধাপরাধীর শাস্তি।

কামারুজ্জামান
Kamruzzaman-final-325-x-430একাত্তরে শেরপুর জেলার সোহাগপুর গ্রামে ১৪৪ জনকে হত্যা ও নারী নির্যাতনের দায়ে ২০১৩ সালের ৯ মে কামারুজ্জামানকে ফাঁসির আদেশ দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল-২। এই রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আপিল করেন তিনি। গত বছরের ৩ নভেম্বর সোহাগপুর হত্যাকাণ্ডের দায়ে সংখ্যাগরিষ্ঠ বিচারকের মত অনুযায়ী কামারুজ্জামানের ফাঁসির আদেশ বহাল রাখে আপিল বিভাগ। ১১ এপ্রিল, ২০১৫ কামারুজ্জামানের ফাঁসির দণ্ড কার্যকর করা হয়।

সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ
মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধে বিএনপির নেতা সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদে— এই দু’জনকে ২২ নভেম্বর ২০১৫ শনিবার রাত ১২টা ৫৫ মিনিটে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে পাশাপাশি দু’টি মঞ্চে ফাঁসি কার্যকর করা হয়। ২০১৩ সালের ১৭ জুলাই মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় জামায়াতে ইসলামির সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদকে মৃত্যুদণ্ড দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল। তাঁর বিরুদ্ধে বুদ্ধিজীবী হত্যা, গণহত্যা, ধর্ষণ-সহ সাতটি অভিযোগের মধ্যে পাঁচটি অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। গত বছর ১৬ই জুন আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের মৃত্যুদণ্ডের রায় বহাল রাখে আপিল বিভাগ।

1443621137অন্য দিকে, গত বছর ২৯ জুলাই সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর বিরুদ্ধে দেওয়া মৃত্যুদণ্ডের রায় বহাল রাখেন আপিল বিভাগ। তাঁর বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল কর্তৃক আনীত অভিযোগগুলোর অন্যতম ১৯৭১ সালের ৪-৫ এপ্রিল সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দু সম্প্রদায়ের ৭ জনকে অপহরণ এবং তাঁদের মধ্যে ৬ জনকে হত্যা করা। ১৩ই এপ্রিল রাউজানের মধ্য গহিরা হিন্দু পাড়ায় পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সঙ্গে মিলিত ভাবে গণহত্যা। ১৩ই এপ্রিল কুণ্ডেশ্বরী ওষুধালয়ের মালিক নতুনচন্দ্র সিংহকে হত্যা। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সঙ্গে মিলে ৩২ জনকে হত্যা, বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়া ও ধর্ষণের অভিযোগ। ১৪ই এপ্রিল সতীশচন্দ্র পালিত হত্যা, তাঁর বাড়িতে আগুন ও পরিবারের সদস্যদের ধর্মান্তরে বাধ্য করা। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সঙ্গে মিলে বোয়ালখালির শাখাপুর হিন্দু অধ্যুষ্যিত অঞ্চলে হামলা করে ৭৬ জনকে হত্যা।

মতিউর রহমান নিজামী
nijami_0মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াতের আমির ও একাত্তরের বদর বাহিনীর প্রধান মতিউর রহমান নিজামীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয় ১১ মে ২০১৬ রাত ১২টা এক মিনিটে। আপিল বিভাগ ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের রায়ে নিজামিকে বলা হয়েছে, একাত্তরে বুদ্ধিজীবী হত্যাকাণ্ডের নকশাকার। বিএনপি-র নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের আমলে তিনি প্রথমে কৃষি ও পরে শিল্পমন্ত্রী হন। এ নিয়ে ট্রাইবুনাল রায়ে বলা হয়েছে, নিজামিকে এ দেশের মন্ত্রী করার মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লাখ শহিদ ও সম্ভ্রমহারা ২ লাখ নারীর গালে চড় মারা হয়েছে। এটা জাতির জন্য লজ্জা, অবমাননা। ২০১৪ সালের ২৯ অক্টোবর ট্রাইবুনাল নিজামির বিরুদ্ধে মামলায় ফাঁসির রায় দেয়। ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন নিজামি। চলতি বছরের ৬ জানুয়ারি আপিল বিভাগেও নিজামির ফাঁসির রায় বহাল থাকে। এর পর ফাঁসির রায় পুনর্বিবেচনা চেয়ে আবেদন করেন নিজামী। ৫ মে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্রকুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের চার সদস্যের বেঞ্চ নিজামির আবেদন খারিজ করে দেন। প্রধান বিচারপতি মাত্র এক শব্দের আদেশে বলেন, ‘ডিসমিসড।’ অন্য দিকে, চট্টগ্রামের ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলাতেও নিজামির মৃত্যুদণ্ডের আদেশ হয়েছিল।

মীর কাসেম আলী

মৃত্যুদণ্ডাদেশপ্রাপ্ত মীর কাসেম আলী

মুক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধে ৩ সেপ্টেম্বর রাতে কার্যকর হল  মীর কাসেম আলীর ফাঁসি। জামায়াতের প্রধান অর্থ যোগানদাতা মির কাসেম আলির বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধের সময় হত্যা, অপহরণ, নির্যাতনের মতো মানবতাবিরোধী অপরাধের ১৪টি ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগ আনা হয়। এর মধ্যে ট্রাইবুনালের দেওয়া রায়ে ১০ টি অভিযোগ প্রমাণিত হয়। মৃত্যুদণ্ড হয়েছে দু’টি অভিযোগে। প্রথম অভিযোগ, ১৯৭১ সালে মুক্তিযোদ্ধা জসিমকে অপহরণ করে আলবদর সদস্যরা। মীর কাসেম আলীর নির্দেশে তাঁকে চট্টগ্রামের ডালিম হোটেলের নির্যাতন কেন্দ্রে নিয়ে হত্যা করা হয়। পরে সেখানে নির্যাতনের শিকার আরও পাঁচজনের মরদেহের সঙ্গে জসিমের দেহ কর্ণফুলি নদীতে ফেলে দেওয়া হয়। দ্বিতীয় অভিযোগ, মীর কাসেমের নির্দেশে আলবদররা চট্টগ্রামের হাজারি গলির ১৩৯ নম্বর বাড়ি থেকে রঞ্জিত দাস ও টুন্টু সেনকে অপহরণ করে ডালিম হোটেলে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে তাঁদের হত্যা করে লাশ গুম করা হয়েছিল।

শনিবারের চিঠি/ আটলান্টা / সেপ্টেম্বর ০৪, ২০১৬

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ১১:০৮ পূর্বাহ্ণ | রবিবার, ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৬

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com