আওয়ামী লীগ না হলেই আজকে রাজাকার

রবিবার, ৩১ জানুয়ারি ২০১৬

আওয়ামী লীগ না হলেই আজকে রাজাকার

রাজনীতিবিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য সবচেয়ে বড় জ্বালা উল্লেখ করে বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেছেন, আওয়ামী লীগ না হলেই আজকে রাজাকার। সরকারের চুরি-রাহাজানি-লুটপাটের প্রতিবাদ করায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা দেয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। ।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে ভাসানী মিলনায়তনে জাসাস ঢাকা মহানগর (উত্তর-দক্ষিণ) আয়োজিত এক প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমন অভিযোগ করেন শাহ মোয়াজ্জেম। খালেদা জিয়ার ‍বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা ও সমন জারির প্রতিবাদে এ সভার আয়োজন করা হয়।


শাহ মোয়াজ্জেম বলেন, ‘সরকারের চুরি-রাহাজানি-লুটপাটের প্রতিবাদ করায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা (রাষ্ট্রদ্রোহ) দেয়া হয়েছে। বেগম জিয়া তার (শেখ হাসিনা) জন্য সবচেয়ে বড় জ্বালা। আজকে বেগম জিয়ার বিরুদ্ধে উনি অভিযোগ করবেন না, মামলা দেবেন না, এটা তো চিন্তা করা যায় না। মামলা তো দেবেনই।’

শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, খালেদা জিয়া মুক্তিযুদ্ধের সময় এই দেশেই ছিলেন, পাকিস্তানিদের হাতে তিনি বন্দি ছিলেন। সুতরাং তিনি মুক্তিযুদ্ধে ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধে তার কন্ট্রিবিউশন আছে। পাশাপাশি তার স্বামী শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছেন, যুদ্ধ করেছেন, সেক্টর কমান্ডার ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য আজকের প্রধানমন্ত্রীর বাবা তাকে ‘বীরউত্তম’ খেতাব দিয়েছেন। আর আজকে আপনি (শেখ হাসিনা) তাকে বলেন ‘রাজাকার’। বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীকেও আপনি (হাসিনা) রাজাকার বলেন।’

চুরি-ডাকাতি-খুন-রাহাজানি-মামলা-মোকদ্দমা দিয়ে বাংলাদেশের মানুষের স্বাধীনতার আশার বারটা বাজিয়ে দেয়া হয়েছে- এমন অভিযোগ করে বিএনপির এই নেতা আরো বলেন, স্বাধীনতা কাকে বলে মানুষ ভুলতে বসেছে। রাস্তায় কেউ দাঁড়াতে পারবে না,  কথা বলতে পারবে না, সভা-সমাবেশে, মিছিল-মিটিং করতে পারবে না- এজন্য কী আমরা যুদ্ধ করেছি?

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে শাহ মোয়াজ্জেম আরো বলেন, সারা দেশে সরকারের চুরি-রাহাজানি-লুটপাটের প্রতিবাদ করেন খালেদা জিয়া। তাই আপনি খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা (রাষ্ট্রদ্রোহ) দিয়েছেন। এটি রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হয়। বেগম জিয়া তার বক্তব্যে রাষ্ট্রের দ্রোহে কোন কথাটা বলেছেন? মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা নিয়ে উনি একটি কথা বলেছেন। এটি নিয়ে প্রশ্ন আছে, আছে তো। এবার আমার বিরুদ্ধে মামলা করবেন, রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা করবেন। রাষ্ট্রদ্রোহী বানান জানেন? রাষ্ট্রদ্রোহী কাকে বলে? জানেন? আইন পড়েছেন? রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে যে দ্রোহ করে, বিদ্রোহ করে তাকে রাষ্ট্রদ্রোহী-রাষ্ট্রবিদ্রোহী বলা হয়। বেগম খালেদা জিয়া এই রাষ্ট্রের জন্য জেল খেটেছেন।

জাসাস ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি জাহাঙ্গীর শিকদারের সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন- বিএনপির যুববিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, সহ-তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব প্রমুখ।

শনিবারের চিঠি/ আটলান্টা/ ৩১ জানুয়ারি ২০১৬

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ১১:৩১ পূর্বাহ্ণ | রবিবার, ৩১ জানুয়ারি ২০১৬

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com