অবরুদ্ধ অবস্থায় ২৪ ঘন্টা কিভাবে কাটালেন খালেদা জিয়া?

সোমবার, ০৫ জানুয়ারি ২০১৫

অবরুদ্ধ অবস্থায় ২৪ ঘন্টা কিভাবে কাটালেন খালেদা জিয়া?

 

ঢাকাঃ গুলশান কার্যালয়ে শনিবার রাতের পর রোববার রাতটিও এক কাপড়ে কাটাচ্ছেন ২০ দলীয় জোট প্রধান ও বিএনপি চেয়ারপরসন খালেদা জিয়া। নিরাপত্তা বাহিনীর ব্যাপক উপস্থিতিতে তিনি গুলশানে নিজের কার্যালয়ে কার্যত অবরুদ্ধ অবস্থায় রয়েছেন। তার ব্যক্তিগত কর্মীরা জানিয়েছেন গোলাপি রঙের যে শিফন শাড়িটি পরে খালেদা শনিবার রাতে কার্যালয়ে এসেছিলেন, এখনোও সেটি বদলানোর সুযোগ হয়নি। তারা বলছেন, সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী রাতে ঘুমিয়েছেন ওই ভবনের দ্বিতীয় তলার নিজের কক্ষে চেয়ারে হেলান দিয়ে।


দুপুরে অভুক্ত থেকে সারা দিন টেলিফোনে দলের নেতাদের সঙ্গে সামগ্রিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেছেন খালেদা। কার্যালয়ে সেলিমা রহমানসহ প্রায় ৫০ জন বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী অবস্থান করছেন। তাদের জন্য কলা-রুটি আনানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

গত ২৪ ঘন্টায় খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরিস্থিতি কেমন ছিল জানতে চাইলে উত্তরে খালেদার প্রেস সচিব মারুফ কামাল খান জানান, ওষুধ তো সঙ্গে আছে। তবে ঘুম কম হচ্ছে। গত ২৪ ঘন্টায় তিনি খুব অল্প ঘুমিয়েছেন।

কিন্তু স্থায়ী কমিটির রুমে তো একটি খাট পাতা হয়েছে? উত্তরে মারুফ কামাল খান বলেন, না, কই নাতো, আমি এই মাত্র দেখে আসলাম। কোনও খাট তো চোখে পড়েনি। তাহলে বিশ্রাম নিচ্ছেন কী উপায়ে? জানান মারুফ কামাল খান। বলেন, উনার নির্ধারিত রুমে। রুমেই চেয়ারে নয়তো সোফায় শুয়ে-বসে সময় কাটছে তার। বিশ্রাম করছেন।

গুলশানে নিজের রাজৈনিতক কার্যালয়ে অবরুদ্ধ অবস্থায় ২৪ ঘন্টা কাটালেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। শনিবার দিবাগত রাত ১১.৩০ মিনিট থেকেই কার্যত নিজস্ব কার্যালয়ে অবরুদ্ধ হন তিনি। রবিবার দিনভর তার কার্যালয়ের আশেপাশে ঘেঁষতে পারেনি বিএনপি ও এর সহযোগি সংগঠনগুলোর কোনও নেতাকর্মী।

তবে নিয়মিত বিরতিতে দিনভর বিএনপির সমর্থক ও পেশাজীবী সমাজের অনেকেই তার সঙ্গে দেখা করতে এলেও খুব সংক্ষিপ্ত সময় দিয়েছেন তাদের। তবে প্রত্যেকেই বের হয়ে জানিয়েছেন, সোমবার যে কোনও মূল্যে নয়া পল্টনের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হতে চেষ্টা করবেন তিনি। যদিও প্রশাসন ও গোয়েন্দা সংস্থার তথ্যমতে, সরকারের উচ্চ পর্যায়ের নির্দেশনা ছাড়া কোনও অবস্থাতেই কার্যালয়ের বাইরে যেতে দেওয়া হবে না খালেদা জিয়াকে।

এর আগে শনিবার রাত ৮.২৫ এ গুলশান-২ এর ৭৩ নাম্বার রোডের বাসায় থেকে সিএসএফ এর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে নিয়মিত দিনের মতো গুলশান-২ এর রাজনৈতিক কার্যালয়ে আসেন খালেদা জিয়া। উদ্দেশ্য, নিত্যকার রাজনৈতিক ও বিএনপির সাংগঠনিক কার্যক্রমের খোঁজখবর। কিন্তু হঠাৎ করে নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অবস্থানরত দলের যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এরপর রিজভীকে দেখতে নিজের কার্যালয়ের দুতলা থেকে নেমে এসে নয়া পল্টনের উদ্দেশ্যে যেতে নিজের গাড়িতে চড়েন তিনি।

কিন্তু এর আগেই প্রশাসন ও গোয়েন্দাসংস্থার কাছে খবর চলে যায়, আজ রাতেই নয়া পল্টনে অবস্থান নেবেন খালেদা জিয়া। এ কারণেই হঠাৎ ‘অসুস্থ’ হয়ে পড়েছেন রুহুল কবির রিজভী। আর তাকে দেখতে যাবেন খালেদা। এরপর সেখান থেকে ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যা দিবসের পূর্বঘোষিত সমাবেশ কর্মসূচিতে অংশ নিয়েই ফিরবেন গুলশানের বাসায়। গোয়েন্দা সূত্রে খবর পেয়েই রাত সাড়ে দশটা থেকে বাড়তে থাকে পুলিশের সংখ্যা। গুলশান কার্যালয়ের সামনে এসে উপস্থিত হন পুলিশের বেশ কয়েকজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তা। বাদ ছিল না গোয়েন্দা সংস্থাও। পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা কার্যালয়ের নিয়ন্ত্রণ নেন। বন্ধ করে দেওয়া হয় যান চলাচল। ঠিক রাত সাড়ে এগারোটার দিকে খালেদা জিয়া নয়া পল্টনের উদ্দেশ্যে বের হওয়ার প্রস্তুতি নিলেই আড়াআড়ি করে পুলিশের ভ্যান ও দুটি নীল রঙা গাড়ি অবস্থান নেয় গেটের মাঝ বরাবর। এরপর কিছুক্ষণ অপেক্ষা। খালেদা জিয়া ওঠে যান নিজের কার্যালয়ে।

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ১০:৫৪ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ০৫ জানুয়ারি ২০১৫

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com