অপহরণের বর্ণনা দিলেন বিজিবি প্রধান

শুক্রবার, ২৬ জুন ২০১৫

অপহরণের বর্ণনা দিলেন বিজিবি প্রধান

 

ঢাকা: বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) নায়েক আব্দুর রাজ্জাককে নাফ নদী থেকে অপহরণের ঘটনা সাংবাদিকদের কাছে বর্ণনা দিলেন বিজিবি প্রধান মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ।


বৃহস্পতিবার বিকেলে বিজিবির পিলখানা সদর দপ্তরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বিজিবি মহাপরিচালক জানান, ১৭ জুন ভোর রাতে নদীতে বিজিবির দুটি নৌকায় ৩ জন করে ৬ জন টহল দিচ্ছিল। তাদের দলনেতা ছিল রাজ্জাক। প্রায় ৫০০ গজ দূরত্বে নৌকা দুটি টহল দিচ্ছিল।ভোর সাড়ে ৫টার দিকে নদীতে একটি নৌকা দেখে সন্দেহ হলে সেটিতে তল্লাশি করে বিজিবি সদস্যরা। এরপরেই সাদা পোশাকে মিয়ানমার থেকে আরেকটি নৌকা ঘটনাস্থলে আসে এবং বিজিবি সদস্যদের উপর এলোপাথরি গুলি ছুঁড়তে থাকে। এতে বিজিবির সিপাহী বিপ্লব গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুত্বর আহত হন। এ ঘটনার সময় অন্যরা পানিতে পরে গেলে রাজ্জাককে তুলে নিয়ে যায় বিজিপির সদস্যরা। ঘটনাস্থল থেকে মিয়ানমারের সীমান্তের দূরত্ব ছিল মাত্র ১৫০ গজের মত। বিজিবির আরেকটি নৌকা আসার আগেই তারা রাজ্জাককে নিয়ে পালিয়ে যায়।

এদিন বিজিবির দুটি টহল নৌকার মধ্যে ১ থেকে দেড়শ গজের দূরত্ব থাকার কথা থাকলেও তাদের দূরত্ব ৫০০ গজের বেশি ছিল। কেন তারা এত বেশি দূরত্বে অবস্থান করছিলো। বিষয়টিও যাচাই করে দেখা হবে বলে জানান আজিজ আহমেদ।

বিজিবি মহাপরিচালক বলেন, ‘অপহরণের দেড় ঘণ্টার মধ্যে ঘটনাটি জানাজানি হলে সব মহল থেকে রাজ্জাককে ফিরিয়ে দেয়ার আনুষ্ঠানিকতা শুরু করা হয়। ১৮ জুন তাদের লিখিত প্রতিবাদ, ১৯ জুন পতাকা বৈঠকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। তবে উপরের নির্দেশ না পাওয়ায় বৈঠকে বসবে না বলে তাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়।’

অবশেষে বৃহস্পতিবার তারা পতাকা বৈঠকে রাজি হয় এবং অস্ত্র, মোবাইল, ইউনিফর্ম, টর্চসহ সব আনুসাঙ্গিক জিনিসসহ রাজ্জাককে ফেরত দেয় বিজিপি। এঘটনায় বিজিপি সংশ্লিষ্টদের শাস্তি দেয়ার আহ্বান জানানো হয় বিজিবির পক্ষ থেকে।

শনিবারের চিঠি / আটলান্টা / ২৬ জুন ২০১৫

 

Facebook Comments Box

বাংলাদেশ সময়: ৯:১৮ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, ২৬ জুন ২০১৫

https://thesaturdaynews.com |

Development by: webnewsdesign.com